করোনা সংক্রমণে মস্তিষ্কের জটিল রোগ কিশোরীর, ঝাপসা দৃষ্টিশক্তিও, জানাল এইমস

এইমসের স্নায়ুরোগ বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ার পরে বাচ্চা মেয়েটির মস্তিষ্কে অ্যাকিউট ডিমায়েলিনেটিং সিন্ড্রোম (এডিএস) দেখা দিয়েছে। এই রোগে মস্তিষ্কের স্নায়ু দুর্বল হতে থাকে। স্মায়ুতন্তুর মায়েলিন নষ্ট হয়ে যায়।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা সংক্রমণে মস্তিষ্কের জটিল রোগ হতে পারে এমন সম্ভাবনার কথা আগেই বলেছিলেন গবেষকরা। দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্স (এইমস) প্রথম কোভিড সংক্রমণে মস্তিষ্কের রোগের কথা সামনে আনল। জানা গিয়েছে, সংক্রমণে মস্তিষ্কের স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ১১ বছরের এক কিশোরীর। সংক্রমণ এতটাই ছড়িয়েছে যে তার দৃষ্টিশক্তিও ঝাপসা হয়ে গেছে।

এইমসের স্নায়ুরোগ বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ার পরে বাচ্চা মেয়েটির মস্তিষ্কে অ্যাকিউট ডিমায়েলিনেটিং সিন্ড্রোম (এডিএস) দেখা দিয়েছে। এই রোগে মস্তিষ্কের স্নায়ু দুর্বল হতে থাকে। স্মায়ুতন্তুর মায়েলিন নষ্ট হয়ে যায়। ফলে স্নায়ু আর বার্তা পাঠাতে পারে না। এই রোগ এমন এক নিউরোলিজক্যাল ডিসঅর্ডার যার থেকে পেশির ব্যথা, খিঁচুনি, ব্লাডার এবং হাওয়েল মুভমেন্টও ক্ষতিগ্রস্থ হয়। মস্তিষ্কে সংক্রমণ ছড়ানোর কারণে প্রভাব পড়তে পারে দৃষ্টিশক্তিতেও।

শিশুরোগ বিভাগের ডাক্তার শেফালি গুলাটি বলেছেন, মেয়েটির এমআরআই করে ধরা পড়েছে মস্তিষ্কে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়েছে। ভারতে প্রথমবার এমন ঘটনা দেখা গেল। করোনা সংক্রমণে কীভাবে মস্তিষ্কের স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে তা সবিস্তারে মেডিক্যাল জার্নালে প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

Coronavirus: What does Covid-19 do to the brain? - BBC News

বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, করোনা সংক্রমণে স্নায়বিক রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন অধিকাংশ রোগীই। অনেকের আবার হ্যালুসিনেশন হচ্ছে, ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিনাশের শঙ্কাও দেখা দিচ্ছে। এইসবের কারণই হল মস্তিষ্কের কোষে দ্রুত সংক্রমণ ছড়াচ্ছে ভাইরাস। ইয়েল ইউনিভার্সিটির গবেষকরা তাঁদের সাম্প্রতিক গবেষণায় দাবি করেছেন, মস্তিষ্কের কোষে খুব তাড়াতাড়ি বিভাজিত হয়ে প্রতিলিপি তৈরি করতে পারছে সার্স-কভ-২ ভাইরাস। সংখ্যায় বেড়ে কোষকে চারদিক দিয়ে ঘিরে ফেলছে। ফলে অক্সিজেন পৌঁছতে পারছে না মস্তিষ্কের কোষে। ধীরে ধীরে সেই কোষ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটির গবেষকরাও দাবি করেছিলেন, ভাইরাসের সংক্রমণে মস্তিষ্কে অক্সিজেনের অভাবেই কোষ দ্রুত নষ্ট হতে বসেছে। সেই কারণেই রক্ত জমাট বাঁধতে দেখা গেছে মস্তিষ্কে। জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ছে।

‘অ্যালঝাইমার্স ডিজিজ’ সায়েন্স জার্নালে একটি গবেষণার রিপোর্ট সামনে এনেছিলেন নিউরোলজিস্টরা। কোভিড সংক্রমণে কীভাবে মস্তিষ্কের ক্ষতি হচ্ছে বা হতে পারে তার সম্ভাব্য কিছু কারণ বলা হয়েছিল। নিউরোলজিস্টরা বলছিলেন, ফুসফুসের এপিথেলিয়াল কোষকে নষ্ট করে দিচ্ছে ভাইরাস। ফলে শ্বাসপ্রশ্বাসের প্রক্রিয়া বাধা পাচ্ছে। মস্তিষ্কে অক্সিজেন পৌঁছনো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে, যার কারণে ‘ব্রেন ড্যামেজ’ হচ্ছে। করোনার নতুন উপসর্গগুলির মধ্যে মানসিক অবসাদ, ভুল বকা, ভুলে যাওয়ার প্রবণতা ইত্যাদিরও উল্লেখ করেছেন নিউরোলজিস্টরা। গবেষণায় দেখা গেছে, এর কারণ হতে পারে সাইটোকাইন প্রোটিনের মাত্রাতিরিক্ত ক্ষরণ এবং রক্ত চলাচল বাধা পাওয়া। মস্তিষ্কে অক্সিজেন পৌঁছনো  বন্ধ হলে বা রক্ত জমাট বাঁধলে তীব্র প্রদাহ হচ্ছে, যার থেকে স্মৃতিনাশ বা ডিমেনশিয়ার ঝুঁকি বাড়ছে। গবেষকদের বক্তব্য, ১৮ বছর থেকে ৮৫ বছর বয়সী কোভিড রোগীদের পরীক্ষা করে দেখা গেছে, অনেকেই সাইকোসিস, স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়েছেন। এমনকি অ্যাকিউট ডিসেমিনেটেড এনসেফ্যালোমায়েলিটিস (Adem) রোগে আক্রান্ত হতেও দেখা গেছে অনেককে। এটি মস্তিষ্কের এক জটিল রোগ যেখানে তীব্র প্রদাহ হয়।

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More