ভারতে সুস্থতার হার প্রায় ৩০ শতাংশ, করোনা আক্রান্ত ৯১ শতাংশেরও জটিলতা নেই: কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকও তাদের বুলেটিনে জানাচ্ছে, মৃতদের মধ্যে ৭০ শতাংশের মধ্যে কো-মর্বিডিটির সমস্যা ছিল। অর্থাৎ সুস্থ-সবল আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুর হার ৩০ শতাংশের কম। বরং তাঁদের মধ্যে একটা বড় অংশ ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন। এই পরিসংখ্যান যথেষ্ট ইতিবাচক বলেই জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রকের যুগ্মসচিব।   

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা যেমন হু হু করে বাড়ছে, তেমনই বাড়ছে সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যাও। গত ২০ দিনে এই সুস্থ হয়ে ওঠার হার উল্লেখযোগ্য ভাবে বেড়েছে বলে জানাল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। আর এই সুস্থ হয়ে ওঠার হারে বৃদ্ধি যে খুবই ইতিবাচক সেকথাও জানিয়েছে তারা। সেইসঙ্গে এই মুহূর্তে আক্রান্ত রোগীদের ৯১ শতাংশের সেরকম জটিলতা নেই বলেই জানিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক।

শুক্রবার এই বিষয়ে পরিসংখ্যান দেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের যুগ্মসচিব লব আগরওয়াল। গত ২৪ ঘণ্টার সঙ্গে সঙ্গে এতদিনের মোট আক্রান্তের পরিসংখ্যানও তিনি দেন। লব বলেন, “ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় ১২৭৩ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এখনও পর্যন্ত দেশে মোট ১৬৫৪০ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এই রিকভারি রেট বা সুস্থতার হার বর্তমানে ২৯.৩৬ শতাংশ। অর্থাৎ প্রতি তিনজন আক্রান্তের মধ্যে একজন সুস্থ হয়ে উঠছেন। এই হার খুবই আশাবাদী। ২০ দিন আগে দেশের রিকভারি রেট ২০ শতাংশের কম ছিল। বর্তমানে প্রতিদিন এই হার বাড়ছে।”

আরও পড়ুন কিছু রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় ভারতের কোভিড ১৯ ডাবলিং রেট কমেছে: কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক

এর সঙ্গে বর্তমানে করোনা অ্যাকটিভ রোগীদের শারীরিক অবস্থারও একটা হিসেব দেন লব আগরওয়াল। তিনি বলেন, “ভারতে এই মুহূর্তে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ৩৭৯১৬। তাঁরা প্রত্যেকে ডাক্তারদের পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ৩.২ শতাংশ রোগীকে অক্সিজেন পরিষেবা, ৪.৭ শতাংশ রোগীকে আইসিইউ পরিষেবা ও ১.১ শতাংশ রোগীকে ভেন্টিলেশনে রাখতে হয়েছে।”

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের এই পরিসংখ্যান থেকে স্পষ্ট এই ১০ শতাংশ রোগী বাদ দিয়ে বাকি ৯০ শতাংশ আক্রান্তদের মধ্যে সেই অর্থে জটিলতা নেই। সংক্রামিত হওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তাঁরা। তাঁদের চিকিৎসা চলছে। তাঁদের মধ্যেই প্রতিনিয়ত অনেকে সুস্থ হয়ে উঠছেন।

আরও পড়ুন করোনাকে সঙ্গে নিয়েই বাঁচতে হবে আমাদের, মেনে চলতে হবে নিয়ম কানুন: স্বাস্থ্যমন্ত্রক

এর আগে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে কিংবা দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল জানিয়েছিলেন, তাঁদের রাজ্যে আক্রান্তদের মধ্যে একটা বড় অংশের রোগীর শরীরেই জটিলতা কম। সংক্রমণ ছড়ালেও তাঁরা শারীরিকভাবে স্থিতিশীল রয়েছেন। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চের তরফেও জানানো হয়েছে, ভারতে কোভিড আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুর হার তাঁদের মধ্যেই বেশি, যাঁদের শরীরে কো-মর্বিডিটির সমস্যা রয়েছে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকও তাদের বুলেটিনে জানাচ্ছে, মৃতদের মধ্যে ৭০ শতাংশের মধ্যে কো-মর্বিডিটির সমস্যা ছিল। অর্থাৎ সুস্থ-সবল আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুর হার ৩০ শতাংশের কম। বরং তাঁদের মধ্যে একটা বড় অংশ ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন। এই পরিসংখ্যান যথেষ্ট ইতিবাচক বলেই জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রকের যুগ্মসচিব।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More