দেশের প্রথম মেশিন পিস্তল ‘আসমি’, ১০০ মিটার পাল্লায় নিশানা করতে পারে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিদেশি মেশিন পিস্তলেই ভরসা ছিল এতদিন। মেক ইন ইন্ডিয়া প্রকল্পে দেশীয় প্রযুক্তিতে প্রথম মেশিন পিস্তল তৈরি করেছে ভারতের প্রতিরক্ষা গবেষণা সংস্থ ডিআরডিও। দেশের তৈরি মেশিন পিস্তলের নাম ‘আসমি’ (ASMI) ।

ভারতীয় সেনার হাতে এতদিন ৯ এমএম পিস্তল ছিল। পুরনো আমলের এই পিস্তল বাতিল করে আধুনিক প্রযুক্তির আসমি তুলে দেওয়া হবে খুব তাড়াতাড়ি। ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ডিআরডিও)-এর অধীনস্থ ‘কমব্যাট ভেহিকল রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এসট্যাবলিশমেন্ট’ তৈরি করেছে এই মেশিন পিস্তল। পাল্লা ১০০ মিটার। অর্থাৎ ১০০ মিটারের মধ্যে যে কোনও লক্ষ্যবস্তুতে নির্ভুল নিশানা করতে পারে। এই মেশিন পিস্তলের পাল্লা ভবিষ্যতে বাড়ানো হতে পারেও বলে জানিয়েছেন প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা।

ডিআরডিও-র চেয়ারম্যান জি সতীশ রেড্ডি বলেছেন, কয়েকমাসে ৩০০ রাউন্ড গুলি চালিয়ে ট্রায়াল হয়েছে এই পিস্তলের। নিখুঁত নিশানা লাগাতে পারে। দিনে-রাতে ও আবহাওয়ার যে কোনও পরিস্থিতিতে কাজ করতে পারে।

মেশিন পিস্তল সেলফ-লোডিং পিস্তল। পুরোপুরি স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে কাজ করে।অনেকটা সাবমেশিন গানের মতো। ভারতে এতদিন উজি মেশিন পিস্তল ব্যবহার করা হয়েছে। এই উজি সিরিজের মেশিন পিস্তল তৈরি হয় ইজরায়েলে। দামও অনেক বেশি। তুলনায় দেশে তৈরি আসমি পিস্তল অনেক বেশি আধুনিক, এমনটাই জানিয়েছে ডিআরডিও। উজি সিরিজেরই আপগ্রেডেড ভার্সন আসমি মেশিন পিস্তল।

লাদাখে সীমান্ত সংঘাতের পর থেকেই একের পর এক অস্ত্রে শাণ দিয়ে চলেছে ভারত। সেনাবাহিনীর জন্য নতুন রকম আধুনিক সব যুদ্ধাস্ত্র তৈরি করছে দেশের প্রতিরক্ষা গবেষণা সংস্থা ডিআরডিও। ঘাতক স্নাইপার রাইফেলের পরে সাব-মেশিনগানও তৈরি করেছে ডিআরডিও। ৫.৫৬*৩০ মিলিমিটার সাব-মেশিনগান পুরোপুরি দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি। সশস্ত্র বাহিনীর জন্যই তৈরি করা হয়েছে এই মেশিনগান। প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি জয়েন্ট প্রোটেকটিভ ভেঞ্চার কার্বাইন যা আসলে সেমি-অটোমেটিক মেশিনগান। প্রতি মিনিটে ৭০০ রাউন্ড গুলি ছুড়তে পারে।

অন্যদিকে, আমেরিকার থেকে দ্বিতীয় দফায় অত্যাধুনিক সিগ সর ৭১৬ অ্যাসল্ট রাইফেল আনতে চলেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। আমেরিকার দ্য স্মল আর্ম ম্যানুফ্যাকচারার এই অ্যাসল্ট রাইফেল তৈরি করে। প্রথম দফায় মার্কিন অস্ত্র সংস্থার থেকে ৭২ হাজার ৭.৬২ এমএম অ্যাসল্ট রাইফেল চলে এসেছে ভারতীয় বাহিনীর হাতে। এবার দ্বিতীয় দফায় আরও ৭২ হাজার সিগ সর অ্যাসল্টের বরাত দিতে চলেছে সেনাবাহিনী। সিগ ৭১৬ অ্যাসল্ট রাইফেল মূলত ব্যবহার করেন ফ্রন্টলাইন সেনা জওয়ানরাই। ৫.৫৬X৪৫ মিমি কার্তুজের ইনসাস রাইফেলের চেয়ে ৭.৬২X৫১ মিমি কার্তুজের সিগ সর অ্যাসল্ট রাইফেল অনেক বেশি আধুনিক ও আক্রমণাত্মক। ১৬ ইঞ্চির ব্যারেলের এম-এলওএম হ্যান্ডগার্ড রাইফেলে রয়েছে ৬ পজিশন টেলিস্কোপিক স্টক। এই রাইফেল দিয়ে বিপক্ষকে ঘায়েল করা যাবে যে কোনও দিক থেকেই। তাইওয়ানের ন্যাশনাল পুলিশ এজেন্সির স্পেশাল অপারেশন গ্রুপের হাতে থাকে এই রাইফেল।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More