দিল্লির চিড়িয়াখানায় বার্ড ফ্লু আতঙ্ক, মৃত প্যাঁচার শরীরে মিলল ভাইরাস

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দিল্লির ন্যাশনাল জুলজিক্যাল পার্কেও বার্ড ফ্লু আতঙ্ক ছড়াল। সংক্রমণে একটি প্যাঁচার মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। মৃত পাখির শরীর থেকে নেওয়া নমুনায় অ্যাভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের স্ট্রেন মিলেছে। চিড়িয়াখানার বাকি পশুপাখির শরীরে যাতে ভাইরাস না ছড়ায় সেজন্য সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

চিড়িয়াখানার ডিরেক্টর রমেশ পাণ্ডে বলেছেন, ব্রাউন ফিশ প্রজাতির ওই প্যাঁচার মৃত্যু হয়েছে বার্ড ফ্লুতে। মৃত পাখিটির নমুনা পাঠানো হয়েছিল ভোপালের আইসিএআর-ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হাই সিকিউরিটি অ্যানিমাল ডিজিজে। আরটি-পিসিআর টেস্ট করিয়ে নমুনায় এইচ৫এন৮ ভাইরাল স্ট্রেনের সন্ধান মিলেছে।

বার্ড ফ্লু আতঙ্কে দিনকয়েক আগেই দিল্লির পোলট্রি ফার্মগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। মুরগি বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছিল। তবে পোলট্রির মুরগির নমুনায় ভাইরাল স্ট্রেন না মেলায় মুরগি বিক্রি ও আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় অরবিন্দ কেজরিওয়াল সরকার।

করোনা আতঙ্কের মধ্যে অ্যাভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা তথা বার্ড ফ্লু নিয়ে শঙ্কা বেড়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের। দিল্লি ও মহারাষ্ট্রে মৃত পাখিদের নমুনায় অ্যাভিয়ান ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের খোঁজ মিলেছে। বার্ড ফ্লুয়ের কারণেই যে পাখি মৃত্যু হয়েছে সেটা নিশ্চিত করেছেন বিশেষজ্ঞরা। স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানাচ্ছে, দেশের ৯টি রাজ্যে বার্ড ফ্লু ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে যার মধ্যে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ, কেরল, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, হিমাচলপ্রদেশ, হরিয়ানা ও গুজরাট। এই রাজ্যগুলিতে চূড়ান্ত সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

বার্ড ফ্লু যাতে ছড়াতে না পারে, সেজন্য সতর্ক হয়েছে পশ্চিমবঙ্গও। গত সোমবার নবান্ন থেকে সব জেলার মেডিকেল অফিসারদের বলা হয়েছে, কোথাও পোলট্রির মুরগি অস্বাভাবিক কারণে মারা গেলে, বা কোনও বন্য পাখির অস্বাভাবিক কারণে মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটলে তক্ষুনি যেন তা প্রাণী সম্পদ ও জনস্বাস্থ্য দফতরে জানানো হয়। মৃত পাখি বা পোলট্রির সংস্পর্শে যাঁরা এসেছে তাঁদের উপর নজরও রাখতে হবে। তার মধ্যে কোনও উপসর্গ দেখা যাচ্ছে কিনা। যদি ইনফ্লুয়েঞ্জার মতো কোনও উপসর্গ দেখা যায় তা হলে সঙ্গে সঙ্গে রিপোর্ট করতে হবে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More