চিনের দিকে সতর্ক নজর, নেপাল-ভুটান সীমান্তে সেনা বাড়াচ্ছে সশস্ত্র সীমা বল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পূর্ব লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা থেকে সেনা সরালেও নেপাল-ভুটান-সিকিম সীমান্তে চূড়ান্ত তৎপর চিনের পিপলস লিবারেশন আর্মি। কিছুদিনে আগেই খবর মিলেছিল, ভুটানের ভেতরে আস্ত একটা গ্রাম বানিয়ে ফেলেছে চিন। ভারত-ভুটান-চিন ত্রিদেশীয় সীমান্তে সামরিক কাঠামো বানানো শুরু করেছে চিনের সেনা, হেলিপ্যাডও তৈরি হচ্ছে। ডোকলামের মতো ঘটনার পুনরাবৃত্তি চায় না ভারত। তবে তেমন পরিস্থিতি তৈরি হওয়া যে অস্বাভাবিক নয় তাও ভাল করেই জানে ভারত। সে কারণেই ভারত-ভুটান-চিন সীমান্তে আরও বড় বাহিনী রাখা হচ্ছে।

সশস্ত্র সীমা বল (এসএসবি) বাহিনীর ১৩ হাজার জওয়ানকে প্রাথমিকভাবে নিয়োগ করা হচ্ছে ত্রিদেশীয় সীমানা বরাবর। এসএসবি নেপাল (১৭৫১ কিলোমিটার) ও ভুটান (৬৯৯ কিলোমিটার) সীমান্তে টহলদারি দেয়। প্রতিরক্ষা সূত্রে খবর, বর্তমান পরিস্থিতি আঁচ করে সশস্ত্র সীমা বল বাহিনীর পাঁচ থেকে ছয় ব্যাটেলিয়ন নিয়োগ করা হবে নেপাল, ভুটান ও চিনের সীমান্ত বরাবর।

13 Sashastra Seema Bal personnel test positive for COVID-19

এসএসবি-র ডিরেক্টর জেনারেল কুমার রাজেশ চন্দ্র বলেছেন, এসএসবি বাহিনীতে ৯০ হাজার জওয়ান আছেন। নেপাল, ভুটান ও চিন সীমান্ত বরাবর তিন ইউনিট করে বাহিনী মোতায়েন করা হবে। আগামী চার বছরের জন্য নতুন করে সেনা বিন্যাস করা হবে সীমান্ত বরাবর। ডিজি বলেছেন, ডোকলামে এসএসবি বাহিনী থাকে না, তবে তার আশপাশের এলাকায় সেনার সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। তাছাড়া সীমান্তে পরিকাঠামো তৈরির প্রস্তুতিও শুরু হয়েছে। সীমান্ত জুড়ে বর্ডার আউটপোস্টের সংখ্যাও অত্যন্ত দ্রুত বাড়ানো হচ্ছে।

Post Doklam stand-off, SSB increases presence on India-Bhutan border

২০১৭ সালে  ভারত-ভুটান-চিন-সীমান্তের ডোকলামে বেনজির সামরিক টানাপড়েনে জড়িয়েছিল ভারত চিন। ভুটানের এলাকায় ঢুকে রাস্তা তৈরির চেষ্টা করছিল চিন, যা আটকে দেয় ভারতীয় বাহিনী। তার জেরেই উত্তেজনা বাড়ে। দু’দেশের বাহিনী টানা ৭৩ দিন পরস্পরের মুখোমুখি অবস্থানে ছিল। কূটনৈতিক পথেই উত্তেজনা প্রশমিত হয়েছিল শেষ পর্যন্ত। গত বছর থেকে লাদাখ সীমান্তে চিনের সঙ্গে ভারতীয় বাহিনীর সংঘর্ষের পর থেকে ডোকলামে ফের নতুন করে চিনা সেনার তৎপরতার খবর আসছে।

ডোকলামের যে জায়গায় চিন ও ভারতের বাহিনী মুখোমুখি দাঁড়িয়েছিল সেখান থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে নতুন সামরিক কাঠামো তৈরি করেছে চিনের সেনা। সিকিম-চিন সীমান্তে নাকু লা-তে এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম মোতায়েন করার কাজ চলছে। নতুন স্যাটেলাইট ইমেজ দেখাচ্ছে, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা তথা এলএসি শুধু নয় চিন ও ভুটান সীমান্তে ডোকলামেও সেনার সংখ্যা বাড়িয়ে দিয়েছে চিন। পূর্ব লাদাখের একটা বড় অংশ চিন যেমন নিজেদের বলে দাবি করে, তেমনি চিন-ভুটান সীমান্তের পশ্চিম সেক্টরে ৩১৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকা ও মধ্য সেক্টরের ৪৯৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকায় চিন নিজেদের আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া। ওই এলাকায় নিয়মিত টহলদারির পাশাপাশি সেনা মোতায়েনের জন্য পরিকাঠামোও গড়ে তোলা হয়েছে বলে খবর।

তাই শুধু নজর রেখেই ক্ষান্ত হচ্ছে না নয়াদিল্লি। যে কোনও পরিস্থিতির মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত থাকতে ভারতীয় বাহিনীর তৎপরতাও বাড়িয়ে তোলা হচ্ছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More