আইইডি বিস্ফোরণ থেকে জওয়ানদের বাঁচাবে, প্রতিরক্ষার নয়া অস্ত্র এই সাঁজোয়া গাড়ি তৈরি হচ্ছে ভারতেই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘আত্মনির্ভর’ প্রতিরক্ষা।

‘মেড ইন ইন্ডিয়া’ প্রকল্পে ফের চমক আসতে চলেছে। এমন এক সাঁজোয়া গাড়ি তৈরি হচ্ছে যা টিএনটি বা আইইডির মতো শক্তিশালী বিস্ফোরণেও দুমড়ে মুচড়ে যাবে না। গ্রেনেড হামলা ঠেকাতে পারবে। সেনা কনভয়ে হামলার জন্য প্রায়ই ফাঁদ পেতে রাখে জঙ্গিরা। ঠিক যেমন পুলওয়ামায় সেনা কনভয়ে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছিল। সাধারণ গাড়ি সে বিস্ফোরণের ধাক্কা সামলাতে পারবে না। কিন্তু নয়া প্রজন্মের এই সাঁজোয়া গাড়ি যে কোনও শক্তিশালী বিস্ফোরকের হামলা রুখে দিতে পারবে। প্রাণ বাঁচাবে দেশের সেনা জওয়ানদের।

Bharat Forge, Paramount Group to Produce Kalyani M4 Protected Vehicles in  India

ভারতীয় সেনার জন্যই বিশেষ করে তৈরি হচ্ছে এই সশস্ত্র গাড়ি। নাম কল্যাণী এম৪। গ্লোবাল অ্যারোস্পেস অ্যান্ড টেকনোলজি কোম্পানি প্যারামাউন্ট গ্রুপ এই গাড়ির নকশা তৈরি করেছে। তবে ভারতে সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে এই আধুনিক সাঁজোয়া গাড়ি বানাচ্ছে পুণের ভারত ফোর্জ লিমিটেড। গাড়ির ডিজাইনের জন্য হাত মিলিয়েছে এই দুই সংস্থা।

Paramount and WMF vehicles undergoing trials in India – Defence News of  India - Defence News of India

আবুধাবিতে ইন্টারন্যাশনাল ডিফেন্স এক্সপো ২০১২ এর অধিবেশনে এম৪ সশস্ত্র গাড়ি তৈরির জন্য গ্লোবাল সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করে কল্যাণী গ্রুপ। এই চুক্তিমাফিক সাঁজোয়া গাড়ি পুরোপুরি দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরির বরাত পায় কল্যাণী গ্রুপ। সংস্থার তরফে জানান হয়েছে, দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি এই সাঁজোয়া গাড়ির নাম হবে কল্যাণী এম৪। সেনাবাহিনীর জন্য এমন গাড়ি তৈরি করতে কল্যাণী গ্রুপকে প্রায় ১৭৮ কোটি টাকার বরাত দিয়েছে দেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক।

Kalyani M4: New armored vehicle of Indian Army, even 50 kg of TNT can't harm

কেমন হবে এই গাড়ি? প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে কোনও দুর্গম এলাকায় দ্রুতগতিতে ছুটতে পারবে এই গাড়ি। উঁচু পাহাড়ি এলাকায় অস্ত্রশস্ত্র ও সেনার রসদ বয়ে নিয়ে যাওয়া যাবে এই গাড়িতে। প্রাথমিকভাবে এই গাড়ির প্রোটোটাইপ তৈরি করে লাদাখে কয়েকবার ট্রায়ালও দেওয়া হয়েছে।

৫০ কিলোগ্রাম টিএনটি বা আইইডি-র বিস্ফোরণেও কোনও ক্ষতি হবে না এই গাড়ির। মাওবাদী অধ্যুষিত এলাকায় প্রায়ই সেনা কনভয়ে মাইন পুঁতে রাখে আততায়ীরা। সেনার গাড়ি যাওয়ার সময় মাইন ফেটে দুর্ঘটনা ঘটে। কল্যাণী এম৪ সাঁজোয়া গাড়িতে সেই ভয় নেই। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জঙ্গিরা গ্রেনেড ছুড়লেও রক্ষা পাবেন সেনা জওয়ানরা। যে কোনও শক্তিশালী বিস্ফোরকের হামলা থেকে জওয়ানদের বাঁচাবে এই গাড়ি।

গাড়ির গতি হবে ১৪০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। ২.৩ টনের বেশি পেলোড নিয়ে যাওয়া যাবে এই গাড়িতে। ৮০০ কিলোমিটার অবধি ছুটতে পারবে এই গাড়ি।

দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি রিমোর্ট চালিত সাঁজোয়া গাড়িও তৈরি হচ্ছে ভারতে। ‘সুরান’ (SOORAN) এই সাঁজোয়া গাড়ি নতুন অস্ত্র হতে চলেছে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে। ‘আনম্যানড’ এই গাড়ির ডিজাইন ও প্রযুক্তির ভাবনা ডিফেন্স মাস্টার ইন্ডিয়া প্রাইভেট লিমিটেডের। ৫০০ কিলোগ্রাম ওজনের এই গাড়িটি চালনা করা যাবে কন্ট্রোল রুম থেকে। আবার প্রয়োজনে রিমোট কন্ট্রোল এবং মোবাইল থেকেও অপারেট করা যাবে এই সাঁজোয়া গাড়িকে। পেট্রল ইঞ্জিন রয়েছে এই গাড়িতে। এর কার্যক্ষমতা নিয়ন্ত্রণ করবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স। গাড়ির নেভিগেশন, অস্ত্র চালনা, নিশানা স্থির করা, আচমকা আক্রমণ হলে তাকে প্রতিরোধ করা, শত্রুপক্ষের গুলি, মিসাইল রুখে দেওয়া—এই সাঁজোয়া গাড়ির কাজ অনেক।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More