মুকেশ আম্বানির বাড়ির বাইরে বিস্ফোরক রাখার দায় নিল জইশ উল হিন্দ, টেলিগ্রামে বার্তা জঙ্গি সংগঠনের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারত তথা এশিয়ার ধনীতম শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির বাড়ির বাইরে বৃহস্পতিবার একটি বিস্ফোরক ভর্তি গাড়ি উদ্ধার হয়। আগে থেকে খোঁজ পাওয়ায় কোনও দুর্ঘটনা ঘটেনি। গাড়ির মধ্যে থেকে নাকি শিল্পপতি ও তাঁর স্ত্রীর উদ্দেশে লেখা একটি চিঠিও পায় পুলিশ। এই ঘটনার দায় নিল জঙ্গি সংগঠন জইশ উল হিন্দ। তারা ওই বিস্ফোরক ভর্তি গাড়ি রেখেছিল বলে জানিয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ টেলিগ্রামের মাধ্যমে একটি বার্তায় এই দাবি করেছে জইশ উল হিন্দ। সেখানে লেখা হয়েছে, “আম্বানির বাড়ির বাইরে যে ভাই বিস্ফোরক ভর্তি এসইউভি রেখেছিল সে সেফ হাউসে পোঁছে গেছে। এটা শুধুই একটা ট্রেলর। বৃহত্তর ছবি আসা এখনও বাকি রয়েছে।”

এই বার্তার পরেই প্রশ্ন উঠেছে, তবে কি দিল্লিতে ইজরায়েলি দূতাবাসের বাইরে বিস্ফোরণের পরে টার্গেট ছিল আম্বানিদের বাড়ি। কোনও রকমের ঝুঁকি নিতে মারাজ মহারাষ্ট্র সরকার। আম্বানিদের বাড়ির বাইরে নিরাপত্তা অনেকটা বাড়ানো হয়েছে। এই ঘটনার তদন্তও শুরু হয়েছে। কে বা কারা সেদিন ওই গাড়িতে করে এসেছিল সিসিটিভি ফুটেজের মাধ্যমে তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার মুকেশ আম্বানির বাড়ির বাইরে বিস্ফোরক ভর্তি একটি গাড়ি পাওয়া যায়। শুক্রবার পুলিশ জানায়, গাড়ির মধ্যে একটি চিঠিও পাওয়া গিয়েছে। চিঠিটি শিল্পপতি মুকেশ আম্বানি ও তাঁর স্ত্রী নীতা আম্বানির উদ্দেশে লেখা। মুম্বই পুলিশ জানায়, কারমাইকেল রোডে ‘অ্যান্টিলিয়া’ নামে মুকেশ আম্বানির যে বাড়িটি আছে, তার বাইরে একটি স্করপিও গাড়ি দাঁড় করানো ছিল। খালি গাড়িটির ভিতরে পাওয়া গিয়েছে ২০টি জিলেটিন স্টিক। বম্ব ডিসপোজাল স্কোয়াড ওই বিস্ফোরক নিষ্ক্রিয় করে দিয়েছে।

মুম্বই পুলিশের এক মুখপাত্র শুক্রবার জানিয়েছেন, গাড়ির ভেতরে কয়েকটি নাম্বার প্লেট ছিল। সেই সঙ্গে ছিল হাতে লেখা একটি চিঠি। চিঠিতে কী লেখা ছিল পুলিশের মুখপাত্র জানাননি। অ্যান্টিলিয়ার নিরাপত্তা ব্যবস্থা যথেষ্ট কড়া। তা সত্ত্বেও কীভাবে ওই প্রাসাদের মাত্র ১.৪ কিলোমিটারের মধ্যে বিস্ফোরকভর্তি গাড়ি পাওয়া গেল, তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়েছেন অনেকে।

মুম্বই পুলিশ জানিয়েছে, শহর জুড়ে তল্লাশি করা হচ্ছে। গাড়িটিও তদন্তের স্বার্থে কাজে লাগছে। মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনিল দেশমুখ টুইট করে বলেছেন, “শিল্পপতি মুকেশ আম্বানির মুম্বইয়ের বাড়ির কাছেই পাওয়া গিয়েছে একটি স্করপিও গাড়ি। তার ভেতরে ২০টি জিলেটিন স্টিক ছিল। মুম্বই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ এ সম্পর্কে তদন্ত করছে। তদন্তে কী পাওয়া গেল, জানানো হবে শীঘ্র।”

এর আগে প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন দিল্লিতে ইজরায়েলি দূতাবাসের বাইরে একটি কম শক্তিশালী বিস্ফোরণ হয়। এত নিরাপত্তা থাকা এলাকায় বিস্ফোরণের ঘটনায় রাজধানীর সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। সেই সময় মাত্র দেড় কিলোমিটার দূরে বিজয় চকে প্রজাতন্ত্র দিবসের বিটিং দ্য রিট্রিট অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। সেই ঘটনার পরে দেশ জুড়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা। তার মধ্যেই এই ঘটনায় সুরক্ষা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More