‘লাগা ভি দিয়া, পাতা হি নেহি চালা’, কোভ্যাক্সিন নিয়ে নার্সকে বললেন মোদী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গলায় অসমের গামছা, মুখে হাসি। দেশের তৈরি ভ্যাকসিন ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিতই ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সূঁচ ফোটানোর পরে নার্স নিবেদিতাকে বলেছেন, “লাগা ভি দিয়া, অউর পাতা ভি নেহি চলা।”

দেশজুড়ে টিকাকরণের তৃতীয় বৃহত্তর পর্ব শুরু হয়ে গেছে গতকাল ১ মার্চ থেকে। দেশবাসীকে টিকাকরণের উৎসাহিত করতে দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্স (এমস)-এ গতকাল সকালে কোভিড টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন তথা ভারতে সেরামের তৈরি কোভিশিল্ড টিকা নয়, বরং দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি কোভ্যাক্সিন টিকার ডোজ নিতে দেখা গিয়েছে মোদীকে। টিকা নেওয়ার সময় তাঁর যে কোনও শারীরিক অস্বস্তি হয়নি তাও বুঝিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। আসলে ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন টিকা নিয়ে এতদিন বিস্তর বিতর্ক হয়েছে। কোভ্যাক্সিন টিকার ডোজ কতটা কাজে দেবে সে নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। টিকার ডোজ নিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ার খবরও শোনা গেছে। তার থেকেই একটা ভীতি তৈরি হয়েছে জনমানসে। ১৬ জানুয়ারি থেকে প্রথম দফায় টিকাকরণ শুরু হওয়ার পরে অনেক স্বাস্থ্যকর্মীই কোভ্যাক্সিন টিকা নিতে চাননি। প্রথম দফায় তাই টিকাকরণের যে লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছিল কেন্দ্র, তাও পূরণ হয়নি।

তৃতীয় পর্বে ২৭ কোটি মানুষকে টিকা দেওয়ার বৃহত্তর পরিকল্পনা রয়েছে। তাই টিকা নিয়ে যাতে কোনওরকম সংশয় বা ভয় না থাকে, সেজন্য নিজের টিকার ইঞ্জেকশন নিয়ে দেশবাসীকে উৎসাহ দিতে চেয়েছেন মোদী। আত্মনির্ভর ভারত গড়তে গেলে দেশীয় প্রযুক্তিতেও যে ভরসা রাখতে হবে, সে বার্তাও দিয়েছেন।

টিকা নিয়ে নিজেই টুইট করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, “বিজ্ঞানী ও চিকিৎসকরা যেভাবে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন তা সত্যিই চমকপ্রদ। কোভিডের টিকা নেওয়ার জন্য যাঁদের মনোনীত করা হয়েছে, তাঁদের কাছে অনুরোধ সকলে এসে টিকা নিন। আসুন আমরা দেশকে কোভিড মুক্ত করি।”

প্রধানমন্ত্রী সোমবার সাত সকালে যখন নয়াদিল্লি এইমস হাসপাতালে টিকা নিতে যান তখন তাঁর গায়ে ছিল অসমের তৈরি বিখ্যাত গামছা। অসমে ভোট আসছে। অনেকে মনে করছেন সেই কারণেই প্রধানমন্ত্রীর গায়ে চড়ানো ছিল ওই গামছা। প্রধানমন্ত্রীকে টিকা দেওয়ার সময়ে ছিলেন দুই নার্স। তাঁদের এক জন জন্মসূত্রে পুদুচেরির, অন্যজন কেরলের। এই দুই রাজ্যেও এ বার ভোট হবে। যদিও প্রধানমন্ত্রীর সচিবালয় সূত্রে বলা হয়েছে, পুদুচেরি বা কেরলের নার্সকে বাছার মধ্যে কোনও রাজনীতির গন্ধ নেই। পুরোটাই ঘটনাচক্রে হয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More