জনতা কার্ফু কাজে আসেনি, দৈনিক সংক্রমণ লাগামছাড়া, দু’সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা কর্নাটকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভয়াবহ পরিস্থিতি কর্নাটকে।

দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা রোজই বাড়ছিল। শুক্রবার নতুন সংক্রমণ রেকর্ড করল। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে কর্নাটকে। সংক্রমণের হারও সাঙ্ঘাতিক। এমন পরিস্থিতিতে তড়িঘড়ি ব্যবস্থা নিল বিএস ইয়েদুরাপ্পা সরকার।

সরকারি তরফে ঘোষণা করা হয়েছে, আগামী সোমবার ১০ তারিখ থেকে টানা ১৪ দিন লকডাউন থাকবে রাজ্যে। সোমবার সকাল ৬টা থেকে শুরু হবে লকডাউন, চলবে ২৪ মে অবধি। জরুরি পরিষেবা ছাড়া বাকি সবই বন্ধ থাকবে ১৪ দিনের জন্য।

কী কী খোলা আর বন্ধ থাকবে? ভোর ৬টা থেকে সন্ধে ৬টা অবধি খোলা থাকবে মুদির দোকান। ওষুধপত্র ও অন্যান্য জরুরি পণ্যের দোকান খোলা থাকবে। মেট্রো চলবে না। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কোনও ক্যাব ভাড়া করা যাবে না। স্কুল-কলেজ, অফিস, হোটেল-রেস্তোরাঁ, শপিং মল, থিয়েটার ইত্যাদি জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত নয় এমন সবকিছুই বন্ধ থাকবে। পূর্ব নির্ধারিত সময় মেনেই ট্রেন ও বিমান চলবে।

মহারাষ্ট্র, গুজরাটের মতোই কর্নাটকে গত দুসপ্তাহ ধরে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছিল। শুক্রবার একদিনে ৫৯২ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে, যা এখনও অবধি সর্বাধিক। বেঙ্গালুরুতে সংক্রমণ লাগামছাড়া। পজিটিভিটি রেট প্রায় ৪০ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় বেঙ্গালুরুতেও ২১ হাজারের বেশি নতুন সংক্রমণ ধরা পড়েছে, মৃত্যু সাড়ে তিনশোর কাছাকাছি।

করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে এমন আশঙ্কা করছেন বিজ্ঞানীরা। আজই কেন্দ্রীয় সরকারের মুখ্য বিজ্ঞান উপদেষ্টা ডক্টর কে বিজয়রাঘবন জানিয়েছেন, করোনার তৃতীয় ধাক্কা সামলাতে হলে লকডাউন অনিবার্য। অন্তত কয়েক সপ্তাহের জন্য মেলামেশা, জমায়েত বন্ধ করতে না পারলে সংক্রমণের ঢেউ আরও বড় আকারে আছড়ে পড়বে দেশে। অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যাবে সংক্রমণের হার। সাধারণ মানুষের সুযোগ সুবিধার দিকে খেয়াল রেখেই সরকারকে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More