শনিবার, ফেব্রুয়ারি ১৬

ইডি-র তলব রবার্টকে, মমতা বললেন বৃহত্তর ষড়যন্ত্র

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রাহুল গান্ধী দাঁড়িয়েছিলেন দিদির পাশে। দিদিও তাই এড়িয়ে গেলেন না।

কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢড়ার স্বামী রবার্ট বঢড়াকে ইডি-র জেরা নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার বিকেলে নবান্ন থেকে বেরনোর সময় মমতা বলেন, “ভোট এলেই কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলি সক্রিয় হয়ে যায়। এটা বৃহত্তর ষড়যন্ত্র।” সেই সঙ্গে দিদি এ-ও বলেন, “আমরা ইউনাইটেড ইন্ডিয়া আলোচনা করছি। এই ব্যাপারগুলি আমরা নির্বাচন কমিশনকেও জানাব।”

দেশের বাইরে অবৈধ সম্পত্তি এবং বেআইনি টাকা পয়সা লেনদেনের মামলায় সনিয়া গান্ধীর জামাইকে নোটিস দিয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট তথা ইডি। বুধবার দুপুরে দিল্লির ইডি দফতরে হাজিরা দিতে যান রবার্ট। গেট পর্যন্ত তাঁকে ছেড়ে আসেন প্রিয়ঙ্কা। ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, ৩৬ প্রশ্নের সেট নিয়ে তাঁকে জেরায় বসবেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী অফিসাররা। রেকর্ড করা হবে বয়ান।

এমনিতেই রাজীব কুমার ইস্যুতে রাজনৈতিক উত্তাপ তুঙ্গে। তার মধ্যেই এ দিন আবার জানা গিয়েছে, রাজীবের দুই অধস্থন অফিসারকে চিটফান্ড কাণ্ডে তলব করেছে ইডি। রবিবার লাউডন স্ট্রিটে পুলিশ কমিশনারের বাংলোর সামনে কলকাতা পুলিশ বনাম সিবিআই যুদ্ধের পর জল গড়িয়েছে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত। ফোর্সকে প্রোটেক্ট করতে ধর্ণায় বসে পড়েছিলেন মমতা। তারপর দেশের প্রায় সমস্ত বিজেপি-বিরোধী শক্তির নেতারাই ফোন করে মমতাকে সংহতি জানিয়েছিলেন। বাদ যাননি কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীও। রাতে টুইট করে রাহুল লিখেছিলেন, “আমি মমতাদিকে ফোন করেছিলাম। বলেছি আমরা একসঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়ব।” বাংলার কংগ্রেস নেতারা যাই বলুন না কেন, সর্বভারতীয় প্রেক্ষাপটে বিরোধী রাজনীতির ভারসাম্য বজায় রাখতেই রাহুল ওই ফোন করেছিলেন বলে পর্যবেক্ষকদের মত। তাঁদের মতে, এ দিন মমতাও রবার্ট ইস্যুতে প্রতিক্রিয়া দিয়ে বুঝিয়ে দিলেন, ইউনাইটেড ইন্ডিয়া শুধু মুখের কথা নয়। কাজেও তিনি করে দেখাচ্ছেন।

Shares

Comments are closed.