সনিয়াজির থেকে ‘মাফ চেয়ে নিচ্ছি, আমি দিল্লি যাব না’: মমতা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দেশজুড়ে এনআরসি ও নাগরিকত্ব আইন বিরোধী বিক্ষোভ আরও বাড়াতে এবং বিরোধী দলগুলিকে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে একজোট হওয়ার জন্য আগামী ১৩ জানুয়ারি দিল্লিতে সর্বদলীয় বৈঠকের ডাক দিয়েছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী। সেই বৈঠকে যোগ দেবেন না বলেই জানিয়ে দিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন বিধানসভায় বিশেষ অধিবেশন ডেকেছিলেন অধ্যক্ষ। সেখানেই গতকালের ধর্মঘটের প্রসঙ্গ তুলে আনেন মমতা। তিনি বলেন, “আমরা ধর্মঘট মানছি না। যারা ঘোলা জলে মাছ ধরতে নেমেছেন, তাদের বলছি, দিল্লিতে এক পলিসি, এখানে এক পলিসি মানব না।” তিনি আরও বলেন, “এনআরসি, এনপিআরের বিরুদ্ধে লড়ব। কিন্তু আপনাদের ( পড়ুন কংগ্রেস ও সিপিএম ) সঙ্গে থাকব না। বাস জ্বালিয়ে দেওয়া মেনে নেব না। সিপিএম, কংগ্রেস গুন্ডাগিরি করছে। এখানে ওরা যা করছে, তারপর আমি সিপিএম, কংগ্রেসের সঙ্গে একসঙ্গে কিছু করব না।”

এরপরেই ১৩ জানুয়ারির সর্বদল বৈঠকের কথা তুলে এনে মমতা বলেন, “এখানে বাম-কংগ্রেস যা করছে, তাতে আমি মাফ চেয়ে নিচ্ছি। দিল্লি যাব না।”

অন্যদিকে এদিন অধিবেশন শুরুর আগে বিএ কমিটির বৈঠক ছিল। সেখানে নাগরিকত্ব আইন, এনআরসি ও এনপিআর প্রসঙ্গে বিরোধীদের সর্বদলীয় বৈঠকের আবেদন খারিজ হয়ে যায়।

জানা গিয়েছে, এদিন বিধানসভার অধিবেশনে বক্তব্য রাখার সময় সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী ও কংগ্রেস নেতা আবদুল মান্নানের সঙ্গে তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়েন মমতা। তাঁদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। সূত্রের খবর, অধিবেশন শেষ হওয়ার পরেই এনসিপি নেতা শরদ পাওয়ারকে ফোন করেন মমতা। তাঁকে তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন, কিছুতেই দিল্লির বৈঠকে যোগ দেবেন না।

এদিনের অধিবেশনে তপশিলি জাতি, উপজাতি সংরক্ষণ বিলের প্রসঙ্গও তুলে আনেন মমতা। তিনি বলেন, ২৫ জানুয়ারির মধ্যে এই সংশোধনী না হলে তা বাতিল হয়ে যাবে। দ্রুত এই সংশোধনী দরকার। তাই এই অধিবেশন ডাকতে হয়েছে। এই সংশোধনীতে দেরি হওয়ার জন্যও বিরোধী দলগুলিকেই নিশানা বানিয়েছেন মমতা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More