৭৩ বছরেও এই ফিটনেস! পট্টনায়েক সত্যিই ‘নবীন’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তাঁর মাথায় জোড়া ভোটের ভার। এই বয়সে তিনি পারবেন তো এই ধকল নিতে? সব কৌতূহলের অবসান ঘটাতে ওড়িশার শাসক দল বিজেডি প্রকাশ করল একটি ভিডিয়ো। আর তাতে দেখা যাচ্ছে, ৭৩ বছরের নবীন পট্টনায়েক যেন সত্যিই নবীন। বিজু জনতা দলের পক্ষ থেকে ওই ভিডিওতে বলা হয়েছে, তিনি তৈরি লড়াইয়ের জন্য।

কালো টি শার্ট, গাঢ় ছাই রঙের ট্রাউজার পরে শরীর চর্চা করছেন নবীন পট্টনায়েক। নামকাওয়াস্তে নয়। একেবারে ঘাম ঝরিয়ে। কখনও হাতের ভরে ঝুলছেন, কখনও দু’হাতে ডাম্বেল তুলছেন। কখনও জগিং করছেন বাড়ির লনে, কখনও ট্রেডমিলে। এ বার ওড়িশায় লোকসভা ভোটের সঙ্গেই হবে বিধানসভার ভোট। তাই বাড়তি চাপ তো বটেই। নবীনবাবু ওড়িয়া ভাষা প্রায় একেবারেই ওড়িয়া ভাষা বলতে পারেন না। এবং তাঁর পোশাক বলতে গোটা দেশই জানে সাদা গোলগলা পাঞ্জাবি এবং ধুতি। সেই পোশাকের সঙ্গে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রীর এই পোশাক একেবারেই মেলে না। সোশ্যাল মিডিয়ায়  অনেকেই লিখেছেন, “সিএম সাহেবকে তো চেনাই যাচ্ছে না!”

রাজনৈতিক নেতাদের অনেকেই শরীর চর্চা করেন নিয়মিত। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার অন্যতম নিদর্শন। দিদি আবার শুধু নিজে করেন না, দলের অন্য নেতাদেরও শরীর চর্চা না করলে বকুনিও দেন। ৭ নম্বর রেসকোর্সে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও নিয়মিত যোগ চর্চা করেন। বিশ্ব যোগ দিবসে তাঁর যোগের ছবি এবং ফুটেজ তো সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল। বাদ যান না রাহুল গান্ধীও। নিয়মিত আইকিডোর ট্রেনিং নেন তিনি। একটা সময় তো রাহুলকে আইকিডোর ট্রেনিং দিতেন বাঙালি ট্রেনর অভিজিৎ মিত্র।

নবীন পট্টনায়েকের শরীর চর্চার ছবি এর আগেও প্রকাশ্যে এসেছিল। ২০০৪ সালে ইস্টবেঙ্গল টিম পুরীতে আবাসিক শিবিরে গিয়েছিল। সকাল বেলা তৎকালীন ইস্টবেঙ্গল কোচ সুভাষ ভৌমিক টিম নিয়ে চলে গিয়েছিলেন বিচে। তারপর দেখা যায় মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং মর্নিং ওয়াকে বেরিয়েছেন। এবং নবীন চলে যান ইস্টবেঙ্গলের প্র্যাকটিসের জায়গায়। পায়ে বল নিয়ে শটও মারেন। সেই ছবি একাধিক বাংলা সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছিল।

কিন্তু ভোটের আগে নেতাদের ফিটনেস রাখতে হয় তুঙ্গে। নাহলেই প্রতিপক্ষ চেপে ধরতে পারে। তাই ভোটের আগে বিজু জনতা দলের পক্ষ থেকে ভিডিয়ো প্রকাশ করে জানান দেওয়া হল, সেনাপতি একদম তৈরি। অনেকের মতে, বিজেডি সোশ্যাল মিডিয়ায় আগে এ ভাবে সক্রিয় ছিল না। কিন্তু দেখাদেখি সখা নাচে। সবাই যখন সোশ্যাল মিডিয়ার প্ল্যাটফর্মকে হাতিয়ার করেছে, নবীন পট্টনায়েকের দলই বা বাদ যায় কেন!

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More