ব্যারিকেড ভেঙে লালকেল্লায় ঢুকল কৃষকদের মিছিল, উড়ল সংগঠনের পতাকা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বেলা যত গড়াচ্ছে আগুন জ্বলে উঠছে দিল্লির রাজপথে। কৃষকদের ট্র্যাক্টর মিছিল এখন পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে ঢুকে পড়েছে লালকেল্লার ভেতরে। পুলিশের লাঠি, কাঁদানে গ্যাস অগ্রাহ্য করে লালকেল্লার মাথায় ওঠার চেষ্টা করছেন কয়েকজন বিক্ষোভকারী। এখনও অবধি বিক্ষোভের যেসব ছবি ও ভিডিও সামনে এসেছে তাতে দেখা গেছে, লালকেল্লার চূড়োয় পতাকা বাঁধার চেষ্টা করছেন কয়েকজন চাষি। লালকেল্লা চত্বরে আন্দোলনকারীদের হঠাতে লাঠি চালাচ্ছে পুলিশ। ধাক্কাধাক্কি, হাতাহাতি চলছে। চরম বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি দিল্লির আইটিও (আয়কর ভবন) চত্বরেও।

খবর এসেছে, লালকেল্লা চত্বরেই এক বিক্ষোভকারী কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ বলছে, ট্র্যাক্টর চালিয়ে ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা করতে গিয়ে সেটি উল্টে যায়। যে কারণে মৃত্যু হয়েছে ওই চাষির। কিন্তু বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, পুলিশ গুলি চালিয়েছিল। সেই গুলি বিঁধেই মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনাকে ঘিরে বিক্ষোভ আরও চরম আকার নিয়েছে। সংঘর্ষে গুরুতর জখম হয়েছেন এক পুলিশ কর্মীও।

Tractor rally: Farmers reach Red Fort, ITO intersection | Hindustan Times

এদিন প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচাকাওয়াজ শুরুর আগে, সকাল আটটা নাগাদ কৃষকরা ব্যারিকেড ভেঙে ফেলেন। দিল্লি-হরিয়ানা সীমান্তে সিংঘু অঞ্চলে ও দিল্লির পশ্চিমে টিকরি অঞ্চলে হাজার হাজার কৃষককে মার্চ করে দিল্লিতে ঢুকতে দেখা যায়। অন্যদিকে, গাজিপুর সীমান্তেও ট্র্যাক্টর মিছিল শুরু করে কৃষকরা।

Republic Day Tractor Rally: Message Delivered, Will Vacate Red Fort, Say Farmers -- 10 Points

Farmers' Protest: प्रदर्शनकारियों के कब्जे में लाल किला, हिंसक हुआ आंदोलन - The Financial Express

দিল্লির অক্ষরধাম নামে এক জায়গায় তোলা ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, পুলিশ ওভারব্রিজের ওপর থেকে কৃষকদের লক্ষ্য করে কাঁদানে গ্যাস ছুড়ছে। আর একটি ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, দিল্লির আউটার রিং রোড দিয়ে চলেছে সারি সারি ট্র্যাক্টর। টিকরিতে কৃষক নেতারা অনুগামীদের শান্তিরক্ষা করতে অনুরোধ করেন। মিছিল কোন পথে যাবে, তা নিয়ে তাঁরা আলোচনায় বসেন পুলিশের সঙ্গে। তবে শান্তি ফেরেনি। বেলা গড়াতেই বিক্ষোভ চরম আকার নেয়। ব্যারিকেড ভেঙে ফেলে ট্র্যাক্টর চালিয়ে লালকেল্লা চত্বরেও ঢুকে পড়ে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী চাষি। তাঁদের আটকাতে গেলে পুলিশের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধ শুরু হয়ে যায়।

একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, ট্র্যাক্টর চালিয়ে কয়েকজন পুলিশকর্মীকে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করছেন চাষিরা। দৌড়ে প্রাণ বাঁচানোর চেষ্টা করছেন পুলিশ কর্মীরা। আবার ধাক্কাধাক্কি, হাতাহাতি থেকে কয়েকজন পুলিশ কর্মীকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন বিক্ষোভকারীরা, এমন ছবিও সামনে এসেছে। এই মুহূর্তে লালকেল্লা চত্বরে উত্তেজনা চরমে পৌঁছেছে। পরিস্থিতি প্রায় নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে।

প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষে দিল্লি পুলিশ কৃষকদের মিছিলে অনুমতি দেয়। সেই সঙ্গেই সতর্ক করে বলা হয়, মিছিলের সুযোগে দুষ্কৃতীরা আইন-শৃঙ্খলার সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। পুলিশের স্পেশাল কমিশনার দীপেন্দ্র পাঠক বলেন, “১৩ থেকে ১৮ জানুয়ারির মধ্যে পাকিস্তান থেকে ৩০০ টুইটার অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে। তাদের উদ্দেশ্য মানুষকে বিভ্রান্ত করা।” এদিন সকাল থেকে ট্র্যাক্টর র‍্যালি শুরু হওয়ার পরেই চরম বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হতে থাকে। দিল্লির পথে নামানো হয় ছ’হাজার নিরাপত্তাকর্মীকে। বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয় টিকরি, গাজিপুর ও সিংঘু সীমান্তে। কিন্তু নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েই দিল্লির ভেতরে ঢুকে পড়ে ট্র্যাক্টর মিছিল। আইটিও চত্বরেও এখন চরম বিশৃঙ্খলা রয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে পুলিশ।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More