সনিয়া-মনমোহনকে ফোন মোদীর, দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সমাজবাদী পার্টির মুলায়ম সিং যাদব ও অখিলেশ যাদব, ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক, তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও, ডিএমকে প্রধান এম কে স্টালিন, পঞ্জাবের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ সিং বাদলকেও ফোন করেছেন মোদী।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারতে দিন দিন বেড়েই চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে সবাই মিলে এই মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াই করার বার্তা দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই প্রসঙ্গেই কথা বলতে রবিবার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ও কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধীকে ফোন করলেন মোদী। দেশে করোনা সংক্রমণের ফলে বর্তমানে কী পরিস্থিতি তা নিয়েই তাঁদের মধ্যে কথা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

জানা গিয়েছে, রবিবার দুই প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় ও প্রতিভা পাটিল এবং আর এক প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচ ডি দেবেগৌড়াকেও ফোন করেন মোদী। এছাড়া বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও বিরোধী দলনেতাদেরও এদিন মোদী ফোন করেছেন বলে খবর। সেই তালিকায় রয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সমাজবাদী পার্টির মুলায়ম সিং যাদব ও অখিলেশ যাদব, ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক, তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও, ডিএমকে প্রধান এম কে স্টালিন, পঞ্জাবের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ সিং বাদল প্রমুখ। সবাইকে ফোন করে তাঁদের রাজ্যের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী খোঁজ খবর নেন বলে জানা গিয়েছে।

সূত্রের খবর, এদিন ফোন করে মোদী সবার কাছে জানতে চান এই মুহূর্তে বিভিন্ন রাজ্যে লকডাউনের কী অবস্থা। এক সপ্তাহ পরে লকডাউন উঠলেও স্লোডাউন চলবে বলে কয়েক দিন আগেই জানিয়েছেন মোদী। এর মধ্যেই দু’বার সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেছেন মোদী। সেখানে সব রাজ্যকে সাহায্যের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে বাংলা-সহ বেশ কিছু রাজ্যের জন্য আর্থিক সাহায্যও বরাদ্দ করা হয়েছে কেন্দ্রের তরফে। এদিন ফোন করে লকডাউনের পরে কী করা উচিত সেই নিয়েই বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও বিরোধী দলনেতাদের সঙ্গে মোদীর কথা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

আগামী বুধবার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সর্বদল বৈঠক ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। লকডাউনের নিয়ম মেনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে হবে ওই বৈঠক। কিন্তু ৮ এপ্রিলের ওই বৈঠকে তৃণমূল অংশগ্রহণ করবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। যদিও কী কারণে বাংলার শাসকদল প্রধানমন্ত্রীর ডাকা ওই বৈঠকে থাকবে না তার কোনও ব্যাখ্যা পাওয়া যায়নি।

এদিনের ফোনালাপের পরে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের বক্তব্য, করোনা মোকাবিলায় দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করার পরে অনেক বিরোধী দল অভিযোগ তুলেছিল, তাদের সঙ্গে আলোচনা করছেন না মোদী। নিজে থেকেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। এমনকি কেন্দ্রের তরফে রাজ্যগুলির কাছে সাহায্য পৌঁছচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেছেন অনেকে। এই পরিস্থিতিতে বিরোধী দলনেতা ও সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের ফোন করে ফের একবার করোনার বিরুদ্ধে একসঙ্গে লড়াই করার বার্তা দিলেন মোদী।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More