কোভিড ভ্যাকসিন বণ্টনের স্ট্র্যাটেজি বৈঠক প্রধানমন্ত্রীর, অগ্রাধিকার নিয়ে আলোচনা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এখনও আবিষ্কার হয়নি কোভিড ভ্যাকসিন। একাধিক সংস্থা দাবি করেছে ৯০ শতাংশ বা তার বেশি কার্যকর তাদের ভ্যাকসিন। চূড়ান্ত ট্রায়াল শুরু হয়েছে কোভ্যাকসিনেরও। এর মধ্যেই শুক্রবার উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
নীতি আয়োগের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে ভ্যাকসিন বণ্টনের কৌশল নিয়ে আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানিয়েছেন, কাদের আগে এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে তার অগ্রাধিকার নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হয়েছে।
ভারতের মতো বিপুল জনসংখ্যার দেশে ভ্যাকসিন বণ্টন করতে গেলে সরকারকে একটি নির্দিষ্ট নীতি বা মানদণ্ড করতে। তা না হলে একসঙ্গে ১৩০ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব নয়। ফাইজার থেকে অক্সফোর্ড– সবাই দাবি করছে একুশের গোড়াতেই ভ্যাকসিন মিলবে।
দেশে ভারত বায়োটেকের টিকার তৃতীয় বা চূড়ান্ত পর্বের ট্রায়াল শুরু হয়ে গেছে। ২২টি জায়গায় টিকার ট্রায়াল চলছে। এই পর্বে টিকা দেওয়া হবে ২৬ হাজার জনকে। আইসিএমআর জানিয়েছে, কোভ্যাক্সিন টিকার ট্রায়ালে অংশ নিতে কমিটি তৈরি করা হয়েছে। টিকার পরীক্ষার জন্য এগিয়ে আসতে আবেদন করা হয়েছে চিকিৎসক, আইনজীবী, সমাজকর্মী থেকে সমাজের সব পেশার মানুষজনকেই।
গত ২ অক্টোবর টিকার চূড়ান্ত পর্বের ট্রায়ালের জন্য ড্রাগ কন্ট্রোলের অনুমতি চেয়েছিল ভারত বায়োটেক। নানা কারণে সেই আবেদন মঞ্জুর হতে দেরি হয়। কীভাবে টিকার ট্রায়াল হবে এবং কতজনকে ইঞ্জেকশন দেওয়া হবে তার নিয়ম বেঁধে দেয় কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। কৃষ্ণা এল্লার সংস্থা জানিয়েছে, তৃতীয় পর্বে ২৮ হাজার ৫০০ জন স্বেচ্ছাসেবককে টিকার ইঞ্জেকশন দেওয়া হচ্ছে। দিল্লি, মুম্বই, পাটনা, লখনৌ সহ দেশের ১০ রাজ্যে টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে। টিকার তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল রিপোর্ট দেখেই উৎপাদন শুরু হয়ে যাবে বলে দাবি সংস্থার কর্ণধারদের। আগামী বছর ফেব্রুয়ারির মধ্যেই টিকার পর্যাপ্ত ডোজ চলে আসবে।
দেশে তৈরি করোনা টিকার ট্রায়ালে এখনও এগিয়ে রয়েছে সেরাম ইনস্টিটিউট ও ভারত বায়োটেক। যার মধ্যে ভারত বায়োটেক ঘোষণা করেছে আগামী ফেব্রুয়ারিতেই টিকার ডোজ বাজারে আনা হতে পারে। সেই হিসেবে টিকার বিতরণের জন্য প্রস্তুতিও নেওয়া হচ্ছে। দেশে ৩০ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য গাইডলাইন তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। যার মধ্যে চারটি ক্যাটেগরিতে টিকা দেওয়া হবে। প্রথম টিকা পাবেন ডাক্তার, নার্স তথা স্বাস্থ্যকর্মী ও ডাক্তারি পড়ুয়ারা। এর পরে পুলিশ, প্রশাসনিক কর্তা ও জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্তদের টিকা দেওয়া হবে।
You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More