টিকার কাজ কতদূর, আগামীকাল আরও তিন ফার্মা কোম্পানির সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক মোদীর

সোমবার ফের তিন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির সঙ্গে আলোচনায় বসবেন মোদী। টিকার ট্রায়াল কোন পর্যায়ে রয়েছে, টিকার বন্টন ব্যবস্থা নিয়ে কী ভাবনাচিন্তা করা হচ্ছে, কী পরিমাণ ডোজ তৈরি করা হচ্ছে, যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয় নিয়ে কথাবার্তা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোভিড ভ্যাকসিন তৈরি এবং তা দ্রুত কী ভাবে মানুষের হাতে পৌঁছতে পারে, তা নিয়ে ইতিমধ্যেই উচ্চ পর্যায়ের ভার্চুয়াল বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। টিকার কাজ কতটা এগোল নিজের চোখে খতিয়ে দেখতে গতকাল, শনিবার তিন শহরে ভ্যাকসিন ট্যুরও করেছেন। আগামীকাল অর্থাৎ সোমবার ফের তিন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির সঙ্গে আলোচনায় বসবেন মোদী। টিকার ট্রায়াল কোন পর্যায়ে রয়েছে, টিকার বন্টন ব্যবস্থা নিয়ে কী ভাবনাচিন্তা করা হচ্ছে, কী পরিমাণ ডোজ তৈরি করা হচ্ছে, যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয় নিয়ে কথাবার্তা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।

ভ্যাকসিন তৈরিতে দেশে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে তিন ফার্মা কোম্পানি—ভারত বায়োটেক, সেরাম ইনস্টিটিউট এবং জাইদাস ক্যাডিলা। এর মধ্যে শুধু সেরাম অক্সফোর্ডের ফর্মুলায় কোভিশিল্ড টিকা বানিয়েছে। বাকি দুই সংস্থা দেশীয় প্রযুক্তিতেই টিকা তৈরি করেছে। এই তিন কোম্পানিতেই গতকাল ঢুঁ মেরে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী। এখন বাকি আরও তিন সংস্থা—জেনোভা বায়োফার্মা, বায়োলজিক্যাল ই এবং ডক্টর রেড্ডিস। এই সংস্থার কর্ণধার ও ভ্যাকসিন বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আগামীকালই ভার্চুয়াল কনফারেন্সে বসবেন মোদী।

গতকাল সকালে নিজের রাজ্য গুজরাট থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে জাইদাস ক্যাডিলার ভ্যাকসিন সেন্টারে পৌঁছে যান মোদী। সেখানে যাবতীয় প্রস্তুতি খতিয়ে দেখে সোজা চলে যান হায়দরাবাদের ভারত বায়োটেকে। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ-এর সাহায্যে এই সংস্থা সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে কোভ্যাক্সিন প্রতিষেধক তৈরি করেছে। টিকার তৃতীয় স্তরের ট্রায়াল চলছে দেশে। ভারত বায়োটেকে প্রায় এক ঘণ্টা কাটিয়ে মোদী যান পুণের সেরাম ইনস্টিটিউটে। অক্সফোর্ডের টিকার ফর্মুলায় কোভিশিল্ড বানিয়েছে সেরাম। সংস্থার সিইও আদর পুনাওয়ালা বলেছেন, টিকার ১০০ কোটি ডোজ তৈরির জন্য অ্যাস্ট্রজেনেকার সঙ্গে চুক্তি হয়েছে। এখনই টিকার ৪ কোটি ডোজ তৈরি। প্রাথমিকভাবে ১০ কোটি ডোজের জন্য প্রস্তুতি হয়ে গেছে। পুণের সংস্থায় যে কোভিশিল্ড টিকা তৈরি হবে তার অগ্রাধিকার পাবে ভারতই। দুটি ডোজের দাম পড়বে হাজার টাকার মধ্যেই। জাইদাস ক্যাডিলার জাইকভ ডি টিকা দ্বিতীয় পর্বের ট্রায়ালে রয়েছে, তৃতীয় স্তরের ট্রায়াল শুরু হবে ডিসেম্বরেই।

ভারত বায়োটেক, সেরাম ইনস্টিটিউট ও জাইদাস ক্যাডিলা ছাড়াও আরও তিন সংস্থার টিকাও জোরকদমে এগোচ্ছে। রাশিয়ার স্পুটনিক ভি টিকার ট্রায়াল শুরু হয়ে গেছে দেশে। হায়দরাবাদের ডক্টর রেড্ডিস ল্যাবরেটরিকে স্পুটনিক ভি টিকার ট্রায়ালের জন্য অনুমতি দেওয়া হয়েছে। রেড্ডিসও প্রাথমিকভাবে ১০ কোটি টিকার ডোজের উৎপাদন শুরু করেছে। বায়োলজিক্যাল ই ও জেনোভা বায়োফার্মার টিকাও তাদের প্রথম দুই পর্বের ট্রায়ালে রয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More