টিকাকরণ কেন্দ্রে গিয়ে সরাসরি নাম লেখানো যাবে, বয়স্কদের জন্য কী কী নিয়ম, গাইডলাইন দিল কেন্দ্র

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তৃতীয় পর্বের বৃহত্তর টিকাকরণ কর্মসূচী শুরু হতে চলেছে ভারতে। আগামী ১ মার্চ থেকে ৬০ বছরের ওপর বয়স্কদের এবং ৪৫ থেকে ৫৯ বছর বয়স অবধি ক্রনিক বা কো-মর্বিডিটির রোগীদের টিকা দেওয়া হবে। এই পর্বে ২৭ কোটিকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা আছে সরকারের। এখনও অবধি ১ কোটি ৪২ লক্ষ মানুষ টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছেন। স্বাস্থ্যকর্মী, আশাকর্মী, কোভিড ফ্রন্টলাইন কর্মীরা যাঁরা প্রথম দুই পর্বের টিকার ডোজ পাননি, তাঁরাও এই পর্বে টিকা নিতে পারবেন। তৃতীয় পর্বে টিকাকরণে নতুন কী কী নিয়ম থাকছে তার বিস্তারিত গাইডলাইন দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

এক ঝলকে দেখে নেওয়া যাক, কী কী নতুন থাকছে এবার।

অনস্পট রেজিস্ট্রেশন/সেলফ রেজিস্ট্রেশন— টিকাকরণ শুরু হওয়ার পর থেকে অনলাইন পোর্টালে আগে থেকে নাম নথিভুক্ত করে টিকা নিতে যেতে হত। সচিত্র পরিচয়পত্র দিয়ে নাম রেজিস্ট্রি করলে মোবাইলে এসএমএস পাঠিয়ে টিকাকরণ কেন্দ্রের নাম ও ঠিকানা বিস্তারে বলা থাকত। এবার থেকে অনস্পট রেজিস্ট্রেশনও সম্ভব। কো-উইন ২.০ পোর্টাল ইনস্টল করা থাকলে সরাসরি টিকাকরণ কেন্দ্রে গিয়ে নাম নথিভুক্ত করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রেও সমস্ত পরিচয়পত্র দিতে হবে। তবে আগে থেকে নাম লিখিয়ে রাখার ঝামেলা থাকবে না। বয়স্কদের জন্য বিশেষ করে থাকছে এই সুবিধা।

COVID-19 Vaccination: CoWin 2.0 App for next phase of vaccination from March 1 to be launched soon

আরোগ্য সেতু—টিকাকরণের জন্য নাম নথিভুক্ত করার আরও একটা সুবিধা পাওয়া যাবে আরোগ্য সেতু থেকে। কেন্দ্রীয় সরকারের তৈরি এই অ্যাপ থেকে নাম রেজিস্ট্রি করানো যেতে পারে। নির্দিষ্ট এলাকায় কোথায় কোথায় টিকাকরণ শিবির হয়েছে, কোন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল থেকে টিকা দেওযা হচ্ছে, কোন সময় টিকা দেওয়া হবে ইত্যাদি যাবতীয় তথ্য পাওয়া যাবে আরোগ্য সেতু অ্যাপ থেকে। টিকাকরণ সংক্রান্ত সমস্ত আপডেটও পাবেন উপভোক্তারা।

CoWIN dashboard added to Aarogya Setu, vaccine registrations 'coming soon' | MediaNama

Aarogya Setu app has no vulnerability; no data, security breach has happened: Govt - The Economic Times

পছন্দমতো টিকাকরণ কেন্দ্র বাছা যাবে—প্রবীণ নাগরিকদের জন্য এই সুবিধা থাকছে এই পর্বে। কো-উইন ২.০ পোর্টালে পছন্দমতো টিকাকরণ কেন্দ্র বেছে নেওয়া যাবে। বাড়ির কাছাকাছি কোন কোন হাসপাতাল থেকে টিকার ডোজ দেওয়া হবে, কোন সময় থেকে টিকা দেওযা শুরু হবে, কতক্ষণ চলবে ইত্যাদি সমস্ত খবর মিলবে কো-উইনের নয়া মডেলে। বয়স্করা চাইলে তাঁদের বাড়ির কাছাকাছি টিকাকরণ কেন্দ্র বেছে নিতে পারবেন। বেশিক্ষণ লাইনে দাঁড়াতেও হবে না।

দেশের প্রায় ১০ হাজার সরকারি হাসপাতাল ও ২০ হাজার বেসরকারি হাসপাতালে টিকা দেওয়া হবে। সরকারি হাসপাতাল থেকে বিনামূল্যে টিকা দেওয়া হবে, তবে বেসরকারি হাসপাতালে দাম দিয়ে টিকার ডোজ নিতে হবে।

কো-মর্বিডিটির রোগীরা কী করবেন—৪৫ বছর থেকে ৫৯ বছর বয়সীরা যাঁদের শরীরে নানা রকম ক্রনিক রোগ রয়েছে তাঁদেরও টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হবে ১ মার্চ থেকে। সেক্ষেত্রে তাঁদের ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন জমা করতে হবে। কী ধরনের রোগ আছে এবং তার জন্য কী চিকিৎসা হয় বা রোগী কী ওষুধ খান তার বিস্তারিত তথ্য দিতে হবে। কো-মর্বিডিটির রোগীরা যাতে টিকা নিতে আসেন সে জন্য স্বাস্থ্যকর্মী, পঞ্চায়েত কর্মী ও আশাকর্মীদের কাজে লাগানো হবে।

Cabinet clears phase 2 of Covid vaccination from March 1; those with comorbidities can go to govt, private hospitals | Hindustan Times

কী কী পরিচয়পত্র লাগবে—টিকা নেওয়ার জন্য নাম নথিভুক্ত করাতে গেলে আধার কার্ড, ইলেকটোরাল ফোটো আইডি কার্ড, আধার কার্ড না থাকলে অনলাইন রেজিস্ট্রেশনের সময় যে ফোটো আইডি কার্ড দিতে হয়েছিল তার কপি লাগবে। তাছাড়া লাগবে, নিজের পাসপোর্ট সাইজের ফটো, ড্রাইভিং লাইসেন্স, মহাত্মা গান্ধী ন্যাশনাল রুরাল এমপ্লয়মেন্ট গ্যারান্টি অ্যাক্ট জব কার্ড, প্যান কার্ড, পাসবুক (ব্যাঙ্ক/পোস্ট অফিস), পাসপোর্ট, পেনশন ডকুমেন্ট, যেখানে চাকরি করেন সেখানেকার আইডি কার্ড, ভোটার কার্ড ইত্যাদি।

টিকা নেওয়ার আগে তাদের মোবাইলে এসএমএস আসবে। সেখানে টিকা নেওয়ার দিন ও জায়গা বলা থাকবে। সরাসরি টিকাকরণ কেন্দ্রে গিয়ে নাম লেখাতে চাইলে পরিচয়পত্র দেখিয়েই রেজিস্ট্রেশন হবে। ট ১২ টি ভাষায় এসএমএস পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রত্যেককে ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ দেওয়ার পরে একটি কিউ আর কোড নির্ভর সার্টিফিকেট দেওয়া হবে। সেই সার্টিফিকেট মোবাইলে রাখা যাবে। এছাড়া যাঁরা ভ্যাকসিন নেবেন, তাঁদের নাম থাকবে ডিজি লকার নামে এক ডকুমেন্ট স্টোরেজ অ্যাপে। সেই সঙ্গে থাকবে হেল্পলাইন। তা সপ্তাহের সাতদিন ২৪ ঘণ্টা চালু থাকবে।

ইন্টারমাস্কুলার বা পেশির নিচে টিকার ইঞ্জেকশন দেওয়া হবে। ডোজ দেওয়ার পরে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করানো হবে। তার জন্য অবজারভেশন রুম থাকবে। এই আধঘণ্টার মধ্যে কোনওরকম শারীরিক অস্বস্তি শুরু হলে সঙ্গে সঙ্গেই তা জানাতে হবে। যথাযোগ্য ব্যবস্থা নেবেন স্বাস্থ্যকর্মী, আশা কর্মীরা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More