ঘুষ কাণ্ডে উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ, সুপ্রিম কোর্টে যাচ্ছেন রাওয়াত

এটি ২০১৬ সালের ঘটনা। নোটবন্দি পরবর্তী পরিস্থিতিতে এক ব্যক্তিকে ত্রিবেন্দ্র নির্দিষ্ট দুটি অ্যাকাউন্টে টাকা ফেলতে বলেছিলেন। সেই সময় ত্রিবেন্দ্র রাওয়াত ছিলেন ঝারখণ্ড বিজেপির দায়িত্বে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অস্বস্তিতে উত্তরাখণ্ডের বিজেপি সরকার। ঘুষ মামলায় মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াতের বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন রাওয়াত।

কী অভিযোগ?

বলা হচ্ছে, এটি ২০১৬ সালের ঘটনা। নোটবন্দি পরবর্তী পরিস্থিতিতে এক ব্যক্তিকে ত্রিবেন্দ্র নির্দিষ্ট দুটি অ্যাকাউন্টে টাকা ফেলতে বলেছিলেন। সেই সময় ত্রিবেন্দ্র রাওয়াত ছিলেন ঝারখণ্ড বিজেপির দায়িত্বে। অভিযোগ, ওই ব্যক্তিকে রাওয়াত বলেছিলেন, তার বিনিময়ে তৎকালীন ঝারখণ্ড সরকারের গোপালন প্যানেলে জায়গা করে দেবেন।

অভিযোগ, যে দুটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে রাওয়াত টাকা জমা করার কথা বলেছিলেন সেই দুটি অ্যাকাউন্ট তাঁর শালী ও ভায়রাভাইয়ের।

সম্প্রতি সাংবাদিক উমেশ কুমার শর্মা ফেসবুকে পোস্টে মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াতের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তোলেন। সরগরম হয় উত্তরাখণ্ডের রাজনীতি। সাংবাদিক উমেশ কুমার শর্মার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে উত্তরাখণ্ড পুলিশ। অভিযোগ করা হয়, সরকার ফেলে দেওয়ার বড়সড় ষড়যন্ত্র হচ্ছে। যাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ও ত্রিবেন্দ্র রাওয়াতের বিরুদ্ধে তদন্তের দাবি করে হাইকোর্টে আবেদন করেন ওই সাংবাদিক। সেই মামলার প্রেক্ষিতেই উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াতের বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে নৈনীতাল হাইকোর্ট।

উত্তরাখণ্ড হাইকোর্টের এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে দ্বারস্থ হচ্ছে রাজ্য সরকার। মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াতের মিডিয়া কো-অর্ডিনেটর দর্শন সিং রাওয়াত বলেছেন, ‘হাইকোর্টের রায়কে আমরা সম্মান করি। তবে, এবার আমরা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হব। প্রকৃত তদন্তেই সত্য প্রকাশ পাবে।’

এই ঘটনায় রীতিমত অস্বস্তিতে বিজেপি। দলের রাজ্যসভাপতি বংশীধর ভগৎ বলেছেন, ‘কী ঘটেছে আমি জানি না। আদালতের নির্দেশ মেনেই কাজ এগোবে।’

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More