বিহারে ‘সাইলেন্ট ভোটার’ কারা, জয়ের পর ব্যাখ্যা দিলেন মোদী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মঙ্গলবার সাতসকাল থেকে মাঝ রাত পর্যন্ত রোমহর্ষক উত্তেজনায় ভোট গণনা চলেছে বিহারে। শেষ পর্যন্ত শেষ হাসি হেসেছে এনডিএ। আর এই নির্বাচনে একটা অংশের ভোটার যে একেবারে চুপ ছিলেন তাও রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের বিশ্লেষণে উঠে এসেছে। কিন্তু তাঁরা কারা? বুধবার যেন সেটাই স্পষ্ট করতে চাইলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

বুধবার বিজেপি সদর দফতরে বিহার জয়ের উদযাপনে বক্তৃতা করেন মোদী। দিল্লিতে এখন ভালই ঠাণ্ডা পড়ে গিয়েছে। লাল-কালো স্ট্রাইপ কোট, জমকালো কাজ করা এক কাঁধে নেওয়া শাল– মোদীর মেজাজই ছিল আলাদা।

সেই সভা থেকেই প্রধানমন্ত্রী এদিন বলেন, “কালকে দিনভর টানটান উত্তেজনা চলেছে। সবার চোখ ছিল বিহারের ভোটের দিকে। আর সংবাদমাধ্যমে অনেকে বলছিলেন, সাইলেন্ট ভোটার, সাইলেন্ট ভোটার…। এই সাইলেন্ট ভোটাররাই পার্থক্য গড়ে দিয়েছেন। কিন্তু এই সাইলেন্ট ভোটার কারা?”

এরপর নিজেই ব্যাখ্যা দেন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর কথায় সাইলেন্ট ভোটার হল মহিলারা। নারীশক্তিই বিজেপির সাইলেন্ট ভোটার। কেন? মহিলাদের সম্মান রক্ষায় কেন্দ্রের ভূমিকা, মহিলাদের আত্মনির্ভরশীল করে তোলার কেন্দ্রীয় সরকারি পদক্ষেপ, ধর্মীয় বেড়াজাল থেকে (পড়ুন তিন তালাক) মুক্তি, উজ্জ্বলা যোজনা– এসবের জন্যই নারী শক্তি বিজেপির পক্ষে দাঁড়িয়েছেন।

বিহারের এবারের ভোট একেবারে অন্যরকম বলেও মন্তব্য করেন মোদী। তাঁর কথায়, “আগে বিহারে ভোট হওয়া মানেই আমরা কী শুনতাম? এত লোক মারা গিয়েছে, এত বুথ লুঠ হয়েছে, এত বুথে রিপোল হবে– ইত্যাদি প্রভৃতি। কিন্তু এখন? কিছু কিছু বিষয় মানুষ ভুলে যেতে বসেছেন।”

বুথ ফেরত সমীক্ষাকে কার্যত ভুল প্রমাণ করে বিহারে সরকার গড়েছে এনডিএ। তারপরই মহিলা ভোটারদের বাহবা দিতে চাইলেন মোদী।

পর্যবেক্ষকদের মতে, বিহারকে একটা মডেল হিসেবে তুলে ধরতে চেয়েছে এনডিএ। কারণ নীতীশ জমানায় বিহারে আইনের শাসন কায়েম হয়েছে। মদ বন্ধ করা, মহিলাদের জনধন অ্যাকাউন্টে টাকা দেওয়া এই সব মিলিয়ে মহিলাদের একটা পৃথক ভোট ব্যাঙ্ক তৈরি করতে চেয়েছিল বিজেপি। এবং তা সফল হয়েছে। পর্যবেক্ষকদের মতে বাংলায় যেমন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কন্যাশ্রী, সবুজসাথী প্রকল্পের মধ্যে দিয়ে উপভোক্তা শ্রেণি করতে চেয়েছেন জাতীয় স্তরে সেটাই করতে চইছেন মোদী।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More