‘কালি’ ডাকত সবাই, ফর্সা হতে মুখে পাউডার মাখতাম’, প্রিয়াঙ্কা বললেন, ‘ভুল করেছি’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তথাকথিত ‘ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি’ থেকে ‘ডার্ক অ্যান্ড লাভলি’র বিপ্লবে ভারতেরই বহু মানুষ সামিল হয়েছেন। সেই আন্দোলনে এবার যুক্ত হলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। ‘মাত্র সাত দিনে’ ফর্সা ত্বকের উপায় বলতেন বলে এবার নিজেই দুঃখপ্রকাশ করলেন প্রিয়াঙ্কা। পিগি বলেছেন, ছোটবেলায় নিজের শ্যামলা রঙ পছন্দ করতেন না তিনিও, ফর্সা হতে মুখে ট্যালকম পাউডার লাগাতেন। ফর্সা হওয়ার ক্রিমেও বিজ্ঞাপন করেছেন, যা একেবারেই সঠিক সিদ্ধান্ত ছিল না। এখন সে জন্য আফসোসও করেন তিনি।

নায়িকা, প্রেমিকা, বান্ধবী ফর্সা না হলে পাতে ফেলার যোগ্য নয়, এটা এক অংশের মানুষের ধারণা। শত বিপ্লব, আন্দোলনের পরেও, মনের এক কোণায় এই ধারণা আজও পোষণ করেন কেউ কেউ। অভিনেতা-অভিনেত্রীরা হামেশাই ফর্সা হওয়ার ক্রিম বা প্রসাধনীতে মুখ দেখাতেন, যা নিয়ে নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে সরাসরি বিরোধিতা করেছিলেন অভিনেতা অভয় দেওয়াল। এবারে এতবছর পর মুখ খুলতে দেখা গেল প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে।

Priyanka Chopra reveals why she stopped endorsing fairness creams

সম্প্রতি ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার্স’-এর জন্য সোচ্চার হয়েছিলেন প্রিয়াঙ্কা। এক সাক্ষাৎকারে নিজের আগের রুচি, ভাবনার নিন্দা নিজেই করেছেন প্রিয়াঙ্কা। বলেছেন, ছোটবেলায় তাঁর ধারণা ছিল, কালো মানেই কুৎসিত। তাই সারা মুখে ট্যালকম পাউডার লাগিয়ে রাখতেন সবসময়।

শুধু তাই নয়, প্রিয়াঙ্কা আরও জানিয়েছেন, তাঁর মনে হত তাঁদের পাঞ্জাবি পরিবারে তিনি ছাড়া সবাই সুন্দর। কারণ তাঁরা সবাই ফর্সা। তাঁকে মাঝে মধ্যেই ‘কালি’ বলে ডাকা হত। তখন তাঁর বয়স ছিল ১৩ বছর। নিজের উপর আস্থা না রাখতে পেরে, ফর্সা হওয়ার ক্রিম মেখে নিজেকে বদলাতে চাইতেন তিনি।

প্রিয়াঙ্কার এইসব ধারণা বদলে যায় হলিউডে পা রাখার পর। নিজের ওপর আত্মবিশ্বাসও বেড়ে যায়। এই সমস্ত অভিজ্ঞতা এবং এই কালো অন্ধকার পেড়িয়ে আসার কথা তিনি তাঁর প্রথম বই ‘আনফিনিশড’-এ বর্ণনা করেছেন। বইটি ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে সমস্ত অনলাইন অ্যাপে পাওয়া যাবে। বইটি নিয়ে ইদানিং চরম ব্যস্ত প্রিয়াঙ্কা। নানা ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে উপস্থিতও থাকতে হচ্ছে তাঁকে। অন্যদিকে নিজের নতুন সিনেমার কাজেও যথেষ্ট সময় দিচ্ছেন তিনি। এখন লেখিকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কাকে ছাপিয়ে যাবেন কিনা সেটা ৯ ফেব্রুয়ারির পরেই জানা যাবে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More