‘নীল রঙে মিশে গেছে লাল’, আকাশ রঙা স্তর জমেছে মঙ্গলের পিঠে, কী আছে ওখানে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: লাল পাথুরে মাটির ওপরে পরতে পরতে আকাশ রঙা স্তর জমেছে। ঠিক যেন লালে-নীলে মিলমিশ হয়ে গেছে। রক্তরঙা মঙ্গলের পিঠের এই নীল এলাকাই এখন নতুন করে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। গতকাল, রবিবার মঙ্গলে হেলিকপ্টার ওড়ার কথা ছিল। কিন্তু নানা কারণে সেই অভিযান বন্ধ রেখেছে নাসা। আজই নতুন ছবি দেখিয়ে নাসা জানিয়েছে, মঙ্গলের পিঠে নীল রঙের পাথুরে এলাকা রয়েছে। যার রঙ চকচকে ‘ইলেকট্রিক ব্লু’। এরই মাঝে আবার হালকা হলুদের ছোপ ধরেছে।

A breathtaking new image from NASA reveals the pale white and blue layers of ancient Martian bedrock. The view captures the sediments in the floor of a canyon near a feature known as Syrtis Major, and provides a glimpse at the history of the landscape

ঋতু বদলাচ্ছে মঙ্গলে? নাসার বিজ্ঞানীরা বলছেন, ২০০২ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০০৪ সালের নভেম্বর অবধি এমনই নীল স্তরের ছবি সামনে এসেছিল। নাসার অরবিটারের ‘থার্মাল এমিশন ইমেজিং সিস্টেম’ এই নীল এলাকার ছবি তুলে পাঠিয়েছিল পৃথিবীর গ্রাউন্ড স্টেশনে। লালমাটির কোথাও দেখা গিয়েছিল হালকা আকাশি রঙের স্তর, কোথাও আবার ঘন নীলের পরত জমেছে বিস্তৃত এলাকা জুড়ে।

A Gorgeous 'Blue' Sand Dune Snakes Across Mars in This Awesome NASA Photo | Space

কী আছে ওই নীলের মধ্যে? নাসা বলছে, ওই নীল এলাকা আসলে মঙ্গলের পৃষ্ঠদেশের বরফে আচ্ছাদিত একটা অংশ। ছোট ছোট টিলা, পাহাড়, পাথুরে খণ্ড জমে বরফের ওপরে নীল স্তর তৈরি করেছে। বিজ্ঞানীরা বলেন, ‘মার্শিয়ান বেডরক’। লালগ্রহে বহু প্রাচীন ওই এলাকা। গবেষকরা বলেন, ‘নিলি ফসি’ । শিলাস্তর জমে ওই এলাকা তৈরি হয়েছে। তাতে আবার রঙেরও বদল হয়।

Mars Breathtaking Photos: NASA Reveals Blue Dunes On The Red Planet - Dual Dove

সম্প্রতি নাসা যে ছবি দেখিয়েছে, তাতে নীল স্তরে দুরকম রঙ দেখা দিয়েছে। একদিকে হলুদের ছাপ ধরেছে, অন্যদিক আকাশি রঙা। বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই রঙ বদলের কারণ হল ঋতুর বদল। গ্রীষ্মের সময় ওই নীল স্তরে হলদে ছোপ ধরে যায়। আবার শীতের সময় যখন ঘন বরফ জমাট বাঁধে, তখন তাতে আলো প্রতিফলিত হয়ে নীল রঙের দেখায়। হলুদ ও কমলা রঙের মিলমিশও দেখা যায়। গ্রীষ্মের শুরুতে প্রায় ১৯ মাইল (৩০ কিলোমিটার) এলাকা জুড়ে উজ্জ্বল হলদেটে সোনালী রঙের ছটা দেখা গিয়েছিল মঙ্গলের লালপিঠ জুড়ে।

Long ago, ‘huge amounts’ of water passed through the area, beginning at a higher elevation region and spilling into the northern plains. These features can be seen at the lower right and top left of the image, respectively

মঙ্গলের বায়ুস্তর পৃথিবীর ১০০ ভাগের এক ভাগ মাত্র। দিনের বেলা প্রচণ্ড তাপে তেতে থাকে মাটি। যদি মঙ্গলের পিঠে সামান্য জলও থাকে তাহলে তা সবই উবে যাবে সূর্যের তাপে। সেই উবে যাওয়া জল উপরে উঠে বাষ্প হয়ে ভেসে বেড়াবে। মনে হবে মেঘ জমেছে মঙ্গলের আকাশে। রাত বাড়লে যখন তাপমাত্রা পৌঁছবে মাইনাস ১২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সেই জল জমে ঝিরিঝিরি বরফ হয়ে নেমে আসবে। পৃথিবীর থেকে মঙ্গলের শীত এতটাই বেশি যে বরফ গলে জল হওয়ার সম্ভাবনা কম। দিনের সময় যেটুকু জল অন্তঃসলিলা হয়ে থাকে সেটুকুই। রাতের বেলা আবার সব জমে কঠিন বরফ হয়ে যায়। লাল গ্রহের দক্ষিণের শীত আবার বেশ বেশি। সেখানে মাঝেমাঝে তুষার ঝড়ও হয়। এভাবে মঙ্গলে দিন-রাতের ফারাক যেমন হয়, তেমনি ঋতুরও বদল হয়।

Blue Dunes of Mars | WordlessTech | Space photos, Space and astronomy, Astronomy

গবেষকরা বলছেন, মঙ্গলের পিঠে জমে রয়েছে বরফের চাঁই। মাথা তুলে দাঁড়িয়ে আছে বরফের বিশাল পাহাড়। তারই নিচে অন্তঃসলিলা হয়ে আছে বরফ গলা জল। মঙ্গলের মাটিতে হাজারের বেশি উপত্যকার বিশ্লেষণ করা হয়েছে এক নতুন পদ্ধতিতে। তাতেই বোঝা গেছে, নদী নয় বরফের স্তর রয়েছে লাল গ্রহে। সেই বরফ গলে জল হচ্ছে। বড় বড় বরফের চাঙরের নিচে সেই জল সুপ্ত হয়ে আছে। গত ৪০ বছর ধরে এমন শতাধিক উপত্যকার খোঁজ মিলেছে মঙ্গলে। এই উপত্যকাগুলো আকারে, পরিধিতে একে অপরের থেকে আলাদা। অনেকটা পৃথিবীরই মতো। পৃথিবীতে যেমন কোনও উপত্যকা দিয়ে নদী বয়ে যায়, কোথাও জমে থাকে হিমবাহ। মঙ্গলেও ঠিক তাই। প্রায় ১০ হাজার এমন ‘মার্শিয়ান ভ্যালি’-র বিশ্লেষণ করা হয়েছে নতুন করম অ্যালগোরিদমে। তাতেই এই প্রমাণ মিলেছে। ওইসব এলাকাতেই এমন নীল স্তর দেখা গেছে। মঙ্গলের উত্তরে নর্থ পোলার আইস ক্যাপ দেখা যায়। দক্ষিণেও রুক্ষ-বন্ধুর মাটির নিচে এমন বরফ গলা জল চুপিচুপি মুখ বুজে থাকে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, মঙ্গলের পিঠের প্রায় ১১৫ ফুট গভীরতা অবধি এমন বরফের স্তর থাকার প্রমাণ মিলেছে। ওয়াটার আইসের বেশির ভাগটাই রয়েছে লাল গ্রহের মেরুতে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More