মোদীর জন্যই ভারত-পাকিস্তান সম্পর্ক নষ্ট হয়েছে, তীব্র আক্রমণ আফ্রিদির

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তিনি সাক্ষাৎকার দিলে ভারত-পাকিস্তান নিয়ে প্রশ্ন হবে এবং তিনি গরম গরম জবাব দেবেন–এটা যেন এক রকম রুটিনে পরিণত করে ফেলেছেন পাকিস্তানের ক্রিকেট তারকা সৈয়দ আফ্রিদি। পাকিস্তানের একটি ক্রিকেট ওয়েবসাইটকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ভারত-পাকিস্তান সম্পর্কের অবনতির জন্য আফ্রিদি সরাসরি দায়ী করেছেন নরেন্দ্র মোদীকে।

আফ্রিদিকে প্রশ্ন করা হয় ভারত-পাকিস্তান দ্বিদেশীয় সিরিজ নিয়ে। জবাবে তিনি বলেন, “আমি বুঝতে পারছি না মোদী ঠিক কী চাইছেন। তাঁর অ্যাজেন্ডাটা ঠিক কী!” তাঁর কথায়, “ওই একটা লোকের জন্যই ভারত-পাকিস্তান সম্পর্কের আজকে এমন অবস্থা।” এখানেই থামেননি বুমবুম। তিনি বলেন, “এটা অনেকেই বুঝতে পারছেন, মোদীর চিন্তা ভাবনা গোটাটাই নেতিবাচক।”

আফ্রিদির দাবি, ভারত এবং পাকিস্তানের অনেকেই চান দু’দেশের মধ্যে আর যাই হোক কিন্তু ক্রিকেটটা যেন বন্ধ না হয়। কিন্তু মোদীর জন্যই আজকে খেলার মাঠে প্রভাব পড়েছে।

পুলওয়ামা হামলার পর নয়াদিল্লি-ইসলামাবাদ সম্পর্ক একেবারে তিক্ততার জায়গায় পৌঁছে গেছে। পাকিস্তানের সঙ্গে সবরকম সম্পর্ক ছিন্ন করেছে ভারত। এশিয়া কাপ পাকিস্তানে হওয়ার কথা থাকলেও ভারত সরকার স্পষ্ট জানিয়ে দেয় বিরাট কোহলিরা ওখানে যাবেন না। যাতে চাপের পড়ে আইসিসিকে বিকল্প জায়গা ঠিক করতে নামতে হয়েছে।

ভারত পাকিস্তান শেষবার দ্বিদেশীয় সিরিজ হয়েছিল ২০১৩ সালে। তিন ম্যাচের ওয়ান ডে সিরিজ খেলতে ভারতে এসেছিল পাক ক্রিকেট দল। ভারত শেষবার পাকিস্তান সফরে গিয়েছিল ২০০৬ সালে। তখন ভারতের অধিনায়ক রাহুল দ্রাবিড়। ২০০৮ সালে মুম্বই হামলার পর আর পাকিস্তানে পা রাখেনি ভারতীয় ক্রিকেট দল। ফলে ২০১৩ সালের পর ভারত-পাকিস্তান যতবার মুখোমুখি হয়েছে, সবটাই আইসিসির বহুদেশীয় টুর্নামেন্টে।সাম্প্রতিক সময়ে সরকারকে না জানিয়ে ভারতীয় কবাডি দল পাকিস্তানে যাওয়ায় ব্যাপক বিতর্ক তৈরি হয়।

অনেকের মতে, আফ্রিদি ইচ্ছে করে বিতর্ক তৈরি করার জন্যই এই ধরনের কথা বলছেন। তাঁদের বক্তব্য, ইমরান খান সরকারের আমলে পাকিস্তান ক্রিকেটে অনেক প্রাক্তনী বিভিন্ন পদে বসেছেন। হতে পারে কোনও পদের জন্য ইমরানকে খুশি করতেই মোদীর বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়েছেন তিনি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More