আইপিএল এবারও দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে, তেমনই ভাবছে সৌরভের বোর্ড

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গতবার মরুশহরে আইপিএল হওয়ার সময় বিরাট কোহলি বারবার বলেছিলেন, ফাঁকা মাঠে খেলা এক ক্রীড়াবিদের কাছে খুবই যন্ত্রনার। তার মোটিভেশন নিয়ে সমস্যা হয়। কারণ দর্শকরাই খেলার জিয়নকাঠি।
পরিস্থিতি যা গম্ভীর, তাতে করোনাভাইরাস ফের জাঁকিয়ে বসছে দেশের বিভিন্ন শহরে। সেই কারণে চিন্তায় বিসিসিআই কর্তারাও। এখনও পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসেনি। তবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) প্রধান সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন, গতবারের মতোই এবারও ফাঁকা স্টেডিয়ামে আইপিএলের ম্যাচগুলি হতে পারে।

গত রবিবার আইপিএলের পূর্ণাঙ্গ সূচি ঘোষণার দিনই বোর্ড সচিব জয় শাহ আভাস দিয়ে রেখেছিলেন, আইপিএলের প্রথম অর্ধের বেশ কিছু খেলা রুদ্ধদ্বার স্টেডিয়ামেই হবে। বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভ অবশ পুরো টুর্নামেন্টের কথাই জানিয়েছেন।

আইপিএলের ঘোষিত সূচি অনুযায়ী, ভারতের ছয়টি শহরে হবে আইপিএলের এবারের সব খেলা। শহরগুলো হল আহমেদাবাদ, বেঙ্গালুরু, চেন্নাই, দিল্লি, মুম্বই এবং কলকাতা।

ভারত ও ইংল্যান্ডের সদ্য সমাপ্ত টেস্ট সিরিজে দেওয়া হয়েছিল দর্শক প্রবেশের অনুমতি। চেন্নাই ও আহমেদাবাদের গ্যালারিতে ছিল ধারণক্ষমতার ৫০ শতাংশ দর্শক। তবে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ ও আট দলের আইপিএল এক নয়, তাই দর্শকশূন্য গ্যালারির কথাই ভাবছে বিসিসিআই।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সৌরভ বলেছেন, ‘‘এখনও জানি না, পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করবে সব কিছু, আদৌ মাঠে দর্শক প্রবেশ হবে কিনা। দুই দলের সিরিজের চেয়ে একটু ভিন্ন আইপিএল। আপনি যদি দর্শক প্রবেশের অনুমতি দেন, এখানে মাঠে খেলবে দুই দল। বাইরে অনুশীলনেও থাকবে কয়েক দল।’’
বোর্ড প্রধান আরও যোগ করেন, ‘‘অনেক মাঠেই অনুশীলনের পিচগুলো বাইরে। যেখানে দলগুলো তাদের রুটিন অনুশীলন সেরে নেয়, কারণ নিয়মিতই খেলা থাকে। তো এমন অবস্থায় দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত করে দিলে তারা অনুশীলনরত দলগুলোর কাছাকাছি যেতে পারে। যা অনেক বড় ঝুঁকি হতে পারে।’’

নির্ধারিত সূচির প্রায় ছয় মাস পিছিয়ে সেপ্টেম্বরে দুবাইয়ে হয়েছিল আইপিএলের ১৩তম আসরের খেলা। সেখানেও ছিল না দর্শক প্রবেশের অনুমতি। মূলত ঝুঁকি এড়াতেই দর্শক ছাড়া আয়োজন করা হয়েছে আইপিএল।
এই নিয়ে সৌরভ জানিয়েছেন, ‘‘দুবাইয়েও একই ঘটনা ছিল। আমরা রুদ্ধদ্বার গ্যালারিতে শুরু করেছি এবং দর্শক প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার কথা ভেবেছিলাম। তবে যেহেতু সবকিছু দারুণভাবেই কেটেছে। তাই আমরা দর্শক প্রবেশের ঝুঁকি নিইনি নতুন করে।’’

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More