সেরেনা যা করেছেন, সেটা ছেলেরা করলেও ভুল : মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রেকর্ড ২৪ তম গ্র্যান্ড স্ল্যামের স্বপ্নে তখন হালকা ফাটল ধরেছে। প্রথম সেটে হেরে গিয়েছেন জাপানি নাওমি ওসাকার কাছে। কিন্তু বিস্ফোরণটা হলো সেকেন্ড সেটে। চেয়ার আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়লেন ২৩ গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিক সেরেনা উইলিয়ামস। সেই ঘটনায় কাওকে কাওকে পাশে পেয়েছেন তিনি। কেউ আবার নিন্দা করেছেন তাঁর আগ্রাসনের। কিন্তু যাঁকে টপকে এই মুহূর্তে রেকর্ড গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিক তিনি সেই মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা কিন্তু সমালোচনা করলেন সেরেনার।

সেকেন্ড সেটে চেয়ার আম্পায়ার কার্লোস র‍্যামোস সেরেনাকে সতর্ক করে বলেন যে খেলা চলাকালীন বক্স থেকে তাঁর কোচ প্যাট্রিক মুরাতোগলু তাঁকে ইশারায় কোচিং করাচ্ছেন। সেই প্রসঙ্গে সেরেনা তাঁকে জানান, তিনি বক্সের দিকেও তাকাননি আর কারও নির্দেশও নেননি। তার কিছুক্ষণ পর হতাশায় কোর্টের মধ্যে নিজের র‍্যাকেট আছড়ে ভেঙে ফেলেন সেরেনা। এই ঘটনায় টেনিসের নিয়ম ভাঙা হয়েছে বলে আম্পায়ার এক পয়েন্ট কেটে নেন সেরেনার থেকে।

এই নিয়েই শুরু হয় তর্কাতর্কি। সেরেনা অভিযোগ করেন, ছেলেদের টেনিসে এর থেকেও অনেক বেশি অপরাধ, অনেক খারাপ কথা অনেকে বলেন। কিন্তু তাঁদের বিরুদ্ধে কোনও সতর্কবার্তা আনা হয় না বা পয়েন্টও কাটা হয় না। মেয়েদের টেনিস বলেই এটা হচ্ছে। আম্পায়ার কার্লোসকে সরাসরি ‘চোর’ বলেন সেরেনা। এতে আম্পায়ারকে ব্যক্তিগত আক্রমণের জন্য সেরেনার থেকে একটা গেম পয়েন্ট ছিনিয়ে নেওয়া হয়।

খেলার পর ইউএস ওপেনের সরকারি ওয়েবসাইটে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে সেরেনা বলেন, তিনি কিছু ভুল করেননি। আম্পায়ার তাঁকে ‘চিট’ বলেছিলেন। কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনও দিন তিনি টেনিসের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেননি। টেনিস লিঙ্গবৈষম্যের শিকার বলেও অভিযোগ করেন ‘সুপার মম’ সেরেনা। তাঁর বক্তব্য, তিনি যা করেছেন মেয়েদের সমান অধিকারের দাবিতে। বরং আম্পায়ারই তাঁর কাছ থেকে অবৈধভাবে একটি পয়েন্ট কেটে নিয়েছেন। তাই ‘চুরি’ করছেন তিনিই।

এই প্রসঙ্গে নিউ ইয়র্ক টাইমসে একটি সাক্ষাৎকারে মুখ খোলেন মার্টিনা নাভ্রাতিলোভা। এই নাভ্রাতিলোভার রেকর্ড ভেঙেই টেনিসের রানি হয়েছেন সেরেনা। বছর ৬১’র নাভ্রাতিলোভা বলেন, সেরেনা যা বলেছে তার কিছুটা ঠিক, তবে যা করেছে তা পুরোটাই ভুল।

তাঁর বক্তব্য, টেনিসে বৈষম্য আছে। ছেলেরা যে সব ক্ষেত্রে পার পেয়ে যান, মেয়েরা পান না। কিন্তু তাই বলে সেরেনার উচিত হয়নি খেলা চলাকালীন এইরকম কাণ্ড ঘটানো। মার্টিনা বলেন, সেরেনার কোচ প্যাট্রিক স্বীকার করে নিয়েছেন বক্স থেকে তিনি নির্দেশ পাঠাচ্ছিলেন। হতে পারে সেরেনা সে দিকে তাকাননি কিন্তু আম্পায়ার এই ব্যাপারে তাঁকে সতর্ক করবেন সেটা তো স্বাভাবিক। তারপরেও র‍্যাকেট আছাড় মেরে ভেঙে ফেললেন সেরেনা। বোঝা যাচ্ছিল তখন ম্যাচ হারের মুখে এসে নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিলেন না সেরেনা। কিন্তু র‍্যাকেট ভেঙে তিনি আম্পায়ারকে সুযোগ করে দিয়েছেন পয়েন্ট কেটে নেওয়ার। সব শেষে তিনি আম্পায়ারকে চোর বললেন। এতে তো আম্পায়ারের গেম পয়েন্ট কেটে নেওয়া ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না। র‍্যামোস যা করেছেন, পুরোটাই টেনিসের নিয়মের মধ্যে থেকে।

নাভ্রাতিলোভা আরও বলেন, ছেলেদের যে সব ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়, সেটা ভুল জেনেও সেরেনার উচিত হয়নি সেই একই কাজ করা। কারণ নিয়ম বিরুদ্ধ কাজ সবসময় ভুল। সেটা ছেলেরাই করুক আর মেয়েরা। বরং প্রত্যেকের উচিত এই খেলা ও খেলার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের সম্মান জানানো। সেরেনা যদি ছেলে হতেন তাহলেও কি তিনি চেয়ার আম্পায়ারকে চোর বলে পার পেয়ে যেতেন? নিজের ব্যবহারে বরং নিজেকেই আরও ছোট করলেন টেনিস রানি, বক্তব্য নাভ্রাতিলোভার।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More