সৌরভকে উপেক্ষা করে রবি শাস্ত্রীর টুইট, ধিক্কারের মুখে কোহলিদের কোচ

এই নিয়ে সৌরভ কোনও মন্তব্যের রাস্তায় যাননি। বেঙ্গসরকারের পরে তাঁরই একদা সতীর্থ আরও এক মুম্বইকর রবি শাস্ত্রী উপেক্ষা করলেন খোদ বিসিসিআই প্রেসিডেন্টকে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আবারও মুম্বই লবি সক্রিয় হয়ে উঠছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে। কয়েকদিন আগে মুম্বইয়ের নামী প্রাক্তন তারকা দিলীপ বেঙ্গসরকার সরাসরি সৌরভকে আক্রমণ করে জানিয়েছিলেন, তিনি সব বিষয়ে নাক গলিয়ে ফেলছেন, কাউকে কথা বলতেই দিচ্ছেন না। আইপিএলের সাংগঠনিক প্রক্রিয়া থেকে শুরু করে দল নির্বাচন, সব বিষয়ে বক্তব্য রাখছেন তিনি।

এই নিয়ে সৌরভ কোনও মন্তব্যের রাস্তায় যাননি। বেঙ্গসরকারের পরে তাঁরই একদা সতীর্থ আরও এক মুম্বইকর রবি শাস্ত্রী উপেক্ষা করলেন খোদ বিসিসিআই প্রেসিডেন্টকে। তিনি মুম্বই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরে আইপিএল যে এত ভালভাবে সংঘটিত হয়েছে, সেই নিয়ে একটি টুইট করেছেন, তাতে সৌরভের নামটাই দেননি।

সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে সফল ভাবে আইপিএল আয়োজনের জন্য ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সচিব জয় শাহ, আইপিএল চেয়ারম্যান ব্রিজেশ প্যাটেল, বোর্ডের অন্তর্বর্তীকালীন সিইও হেমাঙ্গ আমিন ও মেডিকেল স্টাফদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন ভারতীয় কোচ। অথচ যিনি আইপিএল সংঘটনের জন্য প্রধান ভূমিকা নিলেন, সেই সৌরভের নামটাই তিনি লেখেননি।

এই ঘটনায় শাস্ত্রীকে ধিকৃত হতে হয়েছে সোশ্যাল সাইটগুলিতে। তিনি টুইট করার পরেই সেখানে নানা জনে নানা কথা লিখেছেন। কেউ লিখেছেন, ‘‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল যে নিজের বস সৌরভের নামই বলতে ভুলে গিয়েছেন শাস্ত্রী। আমার মনে হয় এটা আপনি ইচ্ছে করেই লিখেছেন।’’

সৌরভকে সমর্থন জানিয়ে একের পর এক ক্রিকেট প্রেমী টুইট করেছেন। একজন তার মধ্যে লিখেছেন, ‘‘পুরো বিশ্ব এতদিনে জেনে গিয়েছে আইপিএল সাফল্যের সঙ্গে সংঘটিত করার জন্য সৌরভের অবদান সবচেয়ে বেশি। কিন্তু আপনি সৌরভের নামই নিলেন না। তাঁকে ট্যাগও করলেন না! দয়া করে বিসিসিআই-র প্রেসিডেন্টের নামটি লিখুন। যিনি ভারতীয় ক্রিকেটের সাফল্যের নেপথ্যে রয়েছেন।’’
অনেকেই পালটা শাস্ত্রীকে তুলোধোনা করেছেন তাঁর ব্যক্তিগত নানা ঘটনা জড়িয়ে। তারপর কোহলিদের কোচ আর কিছু লিখতে যাননি। সৌরভ ও শাস্ত্রীর মধ্যে সম্পর্ক কোনওকালেই ভাল নয়। শাস্ত্রী তাঁকে বরাবর অপছন্দ করে এসেছেন। ১৯৯২ সালে অস্ট্রেলিয়া সফরে সৌরভ যেবার প্রথম ডাক পেয়েছিলেন ভারতীয় দলে। সেইসময় এই শাস্ত্রীই তাঁকে কলকাতার রসগোল্লা বলে কটাক্ষ করেছিলেন।

এমনকি যেবার অনিল কুম্বলে ভারতীয় দলের কোচ হন, সেইসময় শাস্ত্রীও আবেদন করেছিলেন। কিন্তু শচীন-সৌরভ-লক্ষ্মণদের কমিটি কোচ করেন কুম্বলেকেই। শাস্ত্রীর ধারণা হয়, সৌরভের কলকাঠিতেই তাঁর কোচ হওয়া হয়নি। সেই নিয়ে একটা রাগ রয়েইছে, এই ঘটনায় তাঁর সঙ্গে বিবাদ ফের সামনে চলে এল।
সৌরভ অবশ্য কোনওবারই তাঁর বাড়ানো ফাঁদে পা দিয়ে কোনও পালটা কিছু বলেননি। এবারও যে বিসিসিআই সভাপতি তাঁকে এতটুকু গুরুত্ব দেবেন না, তা বলাই যায়। কারণ ভারতের প্রাক্তন অন্যতম সেরা দলনায়ক মুখ খোলার আগেই তাঁর হয়ে সমর্থনের ঝড় বয়ে গিয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More