বিশ্বকাপ জিতে শচীনকে ‘ল্যাপ অফ অনার’ দেওয়ার রহস্য ফাঁস করলেন বিরাট

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ২০১১ সালের ২ এপ্রিল। ওয়াংখেড়ে। শ্রীলঙ্কার বোলার কুলশেখরার বলে মিড উইকেটের উপর দিয়ে ভারতীয় অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির বিশাল ছক্কা হাঁকানোর সঙ্গে সঙ্গেই গোটা দেশ উদ্বেলিত হয়ে উঠেছিল আনন্দে। দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ জেতার আনন্দ উদযাপনে মেতেছিল গোটা দেশ। ২৮ বছর পরে বিশ্বকাপ জেতার আনন্দ দেখা গিয়েছিল ক্রিকেটারদের মধ্যেও। ম্যাচের শেষে মাস্টার ব্লাস্টার শচীন তেণ্ডুলকরকে কাঁধে নিয়ে গোটা মাঠ ঘুরেছিলেন বিরাট কোহলি, ইউসুফ পাঠানরা। সেই কাজের পিছনের রহস্য ফাঁস করলেন বিরাট নিজেই।

সম্প্রতি স্টার স্পোর্টসে ভারতীয় দলের ওপেনার ময়ঙ্ক আগরওয়ালের অনলাইন অনুষ্ঠান ‘ওপেন নেটস উইথ ময়ঙ্ক’-এ উপস্থিত হয়েছিলেন বিরাট। সেখানে এই প্রশ্ন তাঁর সামনে করেন ময়ঙ্ক। তার জবাবে বিরাট জানান, ঠিক কী কারণে এই কাজ করেছিলেন তাঁরা।

বিরাট বলেন, “প্রথমে আমার নিজের মনোভাব ছিল যে আমরা বিশ্বকাপ জিতে গিয়েছি। আমি আনন্দে নেচে উঠেছিলাম। কিন্তু সবার মনোযোগের কেন্দ্রে ছিলেন পাজি (শচীন তেণ্ডুলকর)। কারণ আমরা সবাই জানতাম এটা তাঁর বিশ্বকাপ জেতার শেষ সুযোগ। এত বছর ধরে ভারতের জন্য তিনি যা করেছেন, ভারতকে যত ম্যাচ তিনি জিতিয়েছেন, আমাদের এতদিন ধরে তিনি যেভাবে উৎসাহ ও আত্মবিশ্বাস দিয়েছেন, তার জন্য একটা প্রতিদান দেওয়ার দরকার ছিল।”

তাই তাঁদের তরফে এটা শচীনের জন্য একটা উপহার ছিল বলেই জানান বিরাট। তিনি বলেন, “এটা সবার তরফ থেকে তাঁকে একটা উপহার ছিল, কারণ তিনি শুধুই ভারতকে দিয়েই গিয়েছেন। তাই তাঁর ঘরের মাঠে তাঁর স্বপ্ন পূরণের পরে সতীর্থদের কাঁধে চেপে ঘোরার থেকে বড় সম্মান আর কীই বা হতে পারত। তাই আমরা ভেবেছিলাম শচীনকে সম্মান জানানোর সবথেকে ভাল পদ্ধতি এটাই হতে পারে। তাই ওই কাজ আমরা করেছিলাম।”

২০১১ বিশ্বকাপ দলের সবথেকে কনিষ্ঠ ক্রিকেটার ছিলেন বিরাট। ফাইনালে চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে গুরুত্বপূর্ণ ৩৮ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। সেহওয়াগ ও শচীন আউট হওয়ার পরে গম্ভীরের সঙ্গে তাঁর পার্টনারশিপ ভারতকে কিছুটা স্থিতিশীল করেছিল। তারপর গম্ভীর ও ধোনির পার্টনারশিপ ভারতকে জয়ের দিকে নিয়ে যায়। ম্যাচ জিতে ওঠার পরে সাংবাদিকের সামনে বিরাট বলেছিলেন, এতদিন দেশের দায়িত্ব নিজের কাঁধে বয়েছেন শচীন। তাই এবার তাঁদের দায়িত্ব হল শচীনকে সেই যোগ্য সম্মান দেওয়া। তারপরেই দেখা যায় বিরাটের কাঁধে মাস্টার ব্লাস্টার। এতদিন পরে ফের সেই স্মৃতি তুলে আনলেন বিরাট।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More