‘এটা কেমন বিজয় উৎসব!’ ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে গলা তুললেন সৃজিত, আবীররা

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ভোটের ফল বেরোনোর পর রাত থেকেই হিংসার খবর আসছে কলকাতা সহ রাজ্যের নানা প্রান্ত থেকে। এতেই বেজায় বিরক্ত সকলে। বামনেত্রী থেকে টলিউড শিল্পীদের একাংশ, সকলেই মুখ খুলেছেন হিংসার বিরুদ্ধে। সোমবার তৃণমূলের হামলা নিয়ে সরব হন সিপিএম নেত্রী ঐশী ঘোষ। রীতিমতো নিন্দা করে হিংসা বন্ধের আবেদন জানিয়েছেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায় ও অভিনেতা আবীর চট্টোপাধ্যায়।

সৃজিত মুখোপাধ্যায় ‘স্টপ পোস্ট পোল ভায়োলেন্স’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে টুইট করেছেন সোমবার রাতে। তিনি লিখেছেন, সিপিএমের পার্টি অফিস জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। রেড ব্রিগেডের যে সদস্যরা কোভিডের বিরুদ্ধে অক্লান্ত লড়াই চালাচ্ছিলেন, তাঁদেরও আক্রমণ করা হয়েছে। বিজেপি কর্মীদের মারধর করা হচ্ছে। অনেকে খুন হচ্ছেন। এ আবার কী ধরনের বিজয় উৎসব! এই হিংসার তীব্র নিন্দা করছি।

টালিগঞ্জের নায়ক আবীর চট্টোপাধ্যায় বলেন, “আপনাদের অনুরোধ করছি, জয়ের পর বিনয়ী হোন।” এখন আমাদের মারণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পূর্ণ শক্তি নিয়োগ করা উচিত।

রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির বিরুদ্ধে যত ভোট সংগঠিত হয়েছে, তাতে টলিউডের শিল্পীমুখেদের ভূমিকাও কম ছিল না। সরাসরি কোনও রাজনৈতিক দলের সমর্থন না করলেও, ‘ফ্যাসিস্ট শক্তি’ বিজেপির বিরুদ্ধে লাগাতার প্রচার করে গেছেন তাঁরাও। ভোটের সময় প্রকাশিত ‘আমি এই দেশেতেই থাকব’ গানটিও এ বিষয়ে বড় প্রভাব ফেলে জনমানসে। অনেকেই মনে করছেন, বুদ্ধিজীবীদের এই সংগঠিত প্রতিবাদ বিজেপিকে রুখে দিয়েছে অনেকটাই। সেই তাঁরাই এবার বিরক্ত ভোটে জেতার পরে তৃণমূলের গুন্ডামি নিয়ে।

বিধানসভা ভোটে জামুরিয়া কেন্দ্রের প্রার্থী ছিলেন ঐশী ঘোষ। তিনি টুইটারে চারটি ছবি শেয়ার করেছেন। একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে, বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। অপর তিনটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে, সিপিএমের পার্টি অফিসের মধ্যে আসবাবপত্র ভেঙে দেওয়া হয়েছে। জেএনইউ-এর প্রাক্তন নেত্রী ঐশী লিখেছেন, টিএমসি অন্তত মানুষের রায়কে সম্মান করুক। বাংলার মানুষের স্বার্থে কাজ করার জন্য তৃণমূলকে ক্ষমতায় বসানো হয়েছে। কিন্তু ওই দলের কর্মীরা অন্যের বাড়িতে হামলা চালাচ্ছেন, পার্টি অফিস ভেঙে দিচ্ছেন। এসব কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না।

গত রবিবার ভোটের ফল বেরোনোর পরে রাতেই কলকাতার কাঁকুড়গাছিতে এক বিজেপি কর্মী খুন হন। সল্টলেক, নিউটাউন থেকেও সংঘর্ষের খবর আসে। সোমবার সকাল থেকে রাজনৈতিক সংঘর্ষ শুরু হয় কোচবিহারের শীতলকুচিতে। সেই সংঘর্ষের মাঝে পড়ে গুলিবিদ্ধ হন এক যুবক। পরে তাঁর মৃত্যু হয়। সোমবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ অভিযোগ করেন, ভোটের ফলপ্রকাশের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাজ্যে খুন হয়েছেন ছ’জন। হিংসার বিরুদ্ধে তিনি আন্দোলনে নামার হুমকি দিয়েছেন। পূর্ব বর্ধমানে হিংসার বলি হয়েছেন চারজন। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন তিনজন তৃণমূল কর্মী এবং বিজেপি সমর্থক এক মহিলা। এই পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার দু’দিনের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সফরে আসছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা।

Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More