৪৫ ঊর্ধ্বদের জন্য বাংলায় আসছে ৪ লক্ষ কোভিশিল্ডের ডোজ, হায়দরাবাদ থেকে আসবে কোভ্যাক্সিনও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এপ্রিলের ২৯ তারিখ নাগাদ কোভিশিল্ড টিকার ১০ লক্ষ ডোজ এসে পৌঁছেছিল রাজ্যে। তবে তার মধ্যে চার লক্ষ ডোজ রাজ্যবাসীর জন্য রেখে বাকি ছয় লক্ষই পাঠানো হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্যে। বাংলায় এখন ৪৫ ঊর্ধ্বদের টিকাকরণ চলছে। টিকার সেকেন্ড ডোজের অপেক্ষায় আছেন যাঁরা, তাঁদেরই প্রাধান্য দেওয়া হবে বলে সরকারি তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যেই আবার ১৮ থেকে ৪৪ বছর বয়সীদের টিকাকরণও শুরু হয়ে যাবে আর কিছুদিনের মধ্যেই। সব মিলিয়ে কোভিড টিকার বিপুল পরিমাণ ডোজ দরকার। সেই ঘাটতি মেটাতেই মঙ্গলবার পুণে থেকে কোভিশিল্ড টিকার ৪ লক্ষ ডোজ আসছে রাজ্যে। সূত্রের খবর, আজ রাতের মধ্যে হায়দরাবাদ থেকে কোভ্যাক্সিন টিকার দেড় লক্ষ ডোজও চলে আসবে বাংলায়।

সূত্রের খবর, কোভিশিল্ড টিকার নতুন ৪ লক্ষ ডোজ ৪৫ বছর ও তার বেশি বয়সীদের জন্যই সংরক্ষণ করে রাখা হবে। ১৮ ঊর্ধ্বদের কবে থেকে টিকাকরণ শুরু হবে তা এখনও নিশ্চিত করে জানায়নি রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, ১ মে থেকে নয় রাজ্যে তৃতীয় দফায় টিকাকরণ শুরু হতে পারে ৫ মে থেকে। তবে তার জন্য টিকার আরও বেশি ডোজ দরকার। সেটা রাজ্যে এসে গেলে তবেই টিকাকরণ শুরু হবে বলে শোনা যাচ্ছে। তার আগে কোভিশিল্ড টিকার এই চার লক্ষ ডোজ ৪৫ ঊর্ধ্বদের জন্যই বাঁচিয়ে রাখা হবে। বিশেষত যাঁরা টিকার সেকেন্ড ডোজ নেবেন, তাঁদের জন্য সংরক্ষণ করে রাখা হবে এই ডোজ। হায়দরাবাদের ভারত বায়োটেক থেকে দেড় লক্ষ কোভ্যাক্সিন টিকার ডোজও আসছে বলে খবর। আজ সন্ধ্যের মধ্যে ভ্যাকসিন ট্রাক ঢুকে যাবে রাজ্যে। আগামীকাল আরও এক দফায় কোভিশিল্ড টিকা আসবে।

সরকারি তরফে জানানো হয়েছে, স্বাস্থ্যকর্মী, ফ্রন্টলাইন কর্মী ও ৪৫ ঊর্ধ্বদের যেমন বিনামূল্যে টিকা দেওয়া হচ্ছে তেমনই হবে, তবে সেকেন্ড ডোজ প্রাপকরা অগ্রাধিকার পাবেন। বেসরকারি হাসপাতাল বা চিকিৎসা কেন্দ্র থেকে যাঁরা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছিলেন তাঁরা সরাসরি ভ্যাকসিন কেন্দ্র থেকে সেকেন্ড ডোজ নিতে পারবেন। কলকাতা পুরসভার আওতায় থাকা সমস্ত কোভিড ভ্যাকসিন কেন্দ্রগুলিতে ২৫ শতাংশ ক্ষেত্রে প্রথম ডোজ প্রাপক ও ৭৫ শতাংশ ক্ষেত্রে সেকেন্ড ডোজ প্রাপকদের প্রাধান্য দেওয়া হবে। যাঁরা প্রথমবার টিকার ডোজ নিচ্ছেন তাঁদের ও যাঁরা পরবর্তী ডোজ নিতে আসবেন তাঁদের জন্য আলাদা সময়ও নির্ধারণ করা হবে।

রাজ্য সরকার কিছুদিন আগেই নয়া নির্দেশিকায় বলেছিল, সরকারি হাসপাতালগুলিতে টিকা বিনামূল্যেই দেওয়া হবে, কিন্তু বেসরকারি ক্ষেত্রগুলিকে ভ্যাকসিন সরাসরি উৎপাদন সংস্থার থেকে কিনতে হবে। টিকার সমস্ত পুরনো স্টক ফেরত দিয়ে দিতে হবে। বেসরকারি ক্ষেত্রগুলি থেকে নতুন দামেই টিকা নিতে হবে সাধারণ মানুষকে। কোভিশিল্ড টিকার নির্মাতা সংস্থা পুণের সেরাম ইনস্টিটিউট আগে বলেছিল কোভিশিল্ড টিকা ডোজ প্রতি রাজ্যগুলিকে ৪০০ টাকায় বিক্রি করা হবে, বেসরকারি ক্ষেত্রে দাম পড়বে ডোজ প্রতি ৬০০ টাকা। কেন্দ্রীয় সরকারকে ১৫০ টাকায় টিকার ডোজ বিক্রি করা হবে। কিন্তু কোভিশিল্ড টিকার দাম নিয়ে আপত্তি ওঠায় সম্প্রতি সংস্থার তরফে ঘোষণা করা হয়েছে, রাজ্যগুলিকে ৩০০ টাকা দরে কোভিশিল্ডের প্রতি ডোজ বিক্রি করা হবে। মানবিক কারণে কোভিশিল্ডের ডোজ পিছু ১০০ টাকা করে কম নেওয়া হবে। অন্যদিকে, কোভ্যাক্সিন টিকার ডোজ প্রতি দামও কমিয়েছে ভারত বায়োটেক। রাজ্যগুলিকে আগে ৬০০ টাকা প্রতি ডোজে কোভ্যাক্সিন বিক্রি করা হচ্ছিল, এখন ২০০ টাকা কমে নতুন দাম হয়েছে ডোজ প্রতি ৪০০ টাকা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More