গোসাবায় বিস্ফোরণে জখম ৬ বিজেপি কর্মী, তৃণমূলের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ

দ্য ওয়াল ব্যুরো, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: নির্বাচনের উত্তাপ বাড়তেই বিস্ফোরণের ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে উঠল ক্যানিং মহকুমার গোসাবা ব্লক। রাতের অন্ধকারে বিস্ফোরণে ছয় বিজেপি কর্মী আহত হয়েছেন বলে খবর। তাঁদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তৃণমূলের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ করেছে বিজেপি। অন্যদিকে শাসক দলের অভিযোগ, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বোমা বাঁধতে গিয়ে এই বিস্ফোরণ হয়েছে। এই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে এলাকায়।

শুক্রবার গভীর রাতে ঘটনাটি ঘটেছে গোসাবা ব্লকের আরামপুর গ্রামের কাঁটাখালি এলাকায়। বিস্ফোরণের আওয়াজ পেয়েই ঘটনাস্থলে জড়ো হয়ে যান স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁরা দেখেন গুরুতর জখম অবস্থায় পড়ে রয়েছেন ছ’জন। তাঁদের সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয় গোসাবা ব্লক গ্রামীণ হাসপাতালে। সেখান থেকে নিয়ে যাওয়া হয় ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে। তাঁদের মধ্যে চারজনের অবস্থা খারাপ হলে তাঁদের কলকাতার চিত্তরঞ্জন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে খবর। সূত্রের খবর, আহতরা হলেন শোভন দেবনাথ, বিক্রম শীল, অর্পণ দেবনাথ, সুজন কুরালি, মহাদেব নায়েক ও অনল মণ্ডল।

বিজেপির অভিযোগ, কাছেই একটি বিয়ে বাড়ি থেকে ফিরছিলেন ওই কর্মীরা। সেই সময় রাতের অন্ধকারে বেশ কিছু তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতী তাঁদের উপর হামলা চালায়। একের পর এক বোমা ছোড়া হয়। সেই বোমার আঘাতেই আহত হন তাঁরা।

অবশ্য তৃণমূল এই হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে। উল্টে তাদের দাবি, বলরাম মণ্ডলের বাড়িতে বেশ কিছু বিজেপি কর্মী জড়ো হয়ে বোমা বাঁধছিল। সেই সময় আচমকা বোমা ফেটে যায়। তাতেই জখম হয় ওই ছ’জন।

এই ঘটনার প্রসঙ্গে গোসাবার বিদায়ী বিধায়ক তথা আসন্ন নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী জয়ন্ত নস্কর বলেন, “গোসাবা ব্লক অত্যন্ত শিক্ষিত এবং শান্ত এলাকা। ২০১১ সাল থেকে এলাকাকে উত্তপ্ত ও রক্তাক্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিজেপি নেতা চিত্ত ওরফে বরুণ প্রামাণিক। গত বৃহস্পতিবার গোসাবা ব্লকে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের প্ররোচনা দিয়ে যায় চিত্ত। তারপর এলাকার বিজেপি কর্মী সমর্থকরা রাতের অন্ধকারে বোমার মাল মশলা মজুত করে বোমা বাঁধছিল। সেই সময় আচমকা বিষ্ফোরণ ঘটে। সুস্থ পরিবেশকে উত্তপ্ত করে অশান্তির বাতাবরণ তৈরি করতে চাইছে বিজেপি। গোসাবার মানুষজন সেটা কোনদিনও মেনে নেননি, নেবেনও না। বিধানসভা নির্বাচনে ঘাসফুলকে জয়ী করে সুন্দরবনের নোনা জলের নদীতে পদ্ম কে বিসর্জন দেবেন তাঁরা।”

অন্যদিকে বিজেপি নেতা বরুণ প্রামাণিক জানিয়েছেন “বিধানসভা নির্বাচনে ফায়দা তোলার জন্য দল এবং আমার গায়ে কালিমালিপ্ত করার চেষ্টা করছে তৃণমূল কংগ্রেস। আমি এলাকায় ছিলাম না। ঘটনা সম্পর্কে কিছু জানিও না। আমাকে ঊদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে দোষারোপ করা হচ্ছে। মানুষ এর জবাব ব্যালটেই দেবে।”

অন্যদিকে পুলিশ প্রসাশনের কাছে ঘটনার সত্য উদঘাটনের দাবি জানিয়ে বিজেপি নেতা সঞ্জয় নায়েক বলেন “গোসাবা ব্লকে জয়ন্ত নস্করের নেতৃত্বে প্রতিনিয়ত দুষ্কৃতী রাজ চলছে। শুক্রবার রাতে আমাদের দলীয় কর্মীরা একটি অনুষ্ঠান বাড়ি থেকে ফেরার সময় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাঁদেরকে আক্রমণ করে। বোমার আঘাতে আমাদের ৬ জন কর্মী সমর্থক গুরুতর জখম হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। প্রশাসন নিরপেক্ষ তদন্ত করে দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি দিক।”

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More