BREAKING: মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা কোভিড পজিটিভ, উদ্বেগ নবান্নে

দ্য ওয়াল ব্যুরোঃ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিরাপত্তা উপদেষ্টা বিবেক সহায় কোভিড পজিটিভ। বৃহস্পতিবার কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ আসে তাঁর। করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

গত ৯ সেপ্টেম্বর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিরাপত্তা উপদেষ্টার দায়িত্ব পেয়েছিলেন বিবেক সহায়। তারপর থেকে সেই কাজ সামলাচ্ছিলেন তিনি। বিভিন্ন অনুষ্ঠান এবং জেলা সফরের সময়েও মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তার সব দায়িত্ব থাকে এই আইপিএস অফিসারের কাঁধেই। সম্প্রতি নজরুল মঞ্চের অনুষ্ঠানেও নিরাপত্তা সামলেছেন তিনি। সূত্রের খবর, বুধবার পর্যন্ত নবান্নে নিজের কাজ সামলেছেন তিনি। এই পদমর্যাদার এক আইপিএস অফিসার করোনা আক্রান্ত হওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই কিছুটা উদ্বেগ ছড়িয়েছে নবান্নে।

গত ১০ সেপ্টেম্বর করোনা আক্রান্ত হন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। মৃদু উপসর্গ থাকায় হোম আইসোলেশনেই থাকেন তিনি। কমিশনারের সংস্পর্শে আসা অন্যান্য পুলিশ আধিকারিক ও কর্মীদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যদিও কিছু দিন পরেই করোনা মুক্ত হয়ে ফের কাজে যোগ দেন অনুজ শর্মা। তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি। কিন্তু বিবেক সহায়কে হাসপাতালে ভর্তি হতে হওয়ায় উদ্বেগ কিছুটা বেড়েছে।

রাজ্যে করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়ার পরে প্রশাসনের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে একের পর এক সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে পুলিশকর্মী ও স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সংক্রমণ ক্রমাগত ছড়িয়েছে। করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে বেশ কিছু পুলিশ কর্মীর। মারা গিয়েছেন চিকিৎসকরাও। এখনও তাঁদের সংক্রামিত হওয়ার খবর আসছে। সম্প্রতি কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে এক সঙ্গে ৩৮ জন চিকিৎসক করোনা আক্রান্ত হওয়ায় পরিষবার চালু রাখার জন্য স্বাস্থ্যভবনের দ্বারস্থ হতে হয়েছিল মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষকে।

শুধুমাত্র প্রশাসন নয়, রাজ্যের রাজনৈতিক মহলেও ধাক্কা দিয়েছে করোনা। একের পর এক নেতা মন্ত্রী আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে তৃণমূলের তিনজন বিধায়কের। বাম সরকারের মন্ত্রী শ্যামল চক্রবর্তীও করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন। অবশ্য তার মধ্যেই অনেকে সুস্থ হয়েও বাড়ি ফিরেছেন। বৃহস্পতিবার সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন মন্ত্রী তাপস রায়।

মাঝে রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা অনেকটা কমেছিল। কিন্তু কিছুদিন থেকে ফের তা বাড়তে শুরু করেছে। প্রতিদিনই তার আগের দিনের রেকর্ড ভেঙে যাচ্ছে। আর তার মধ্যে সবথেকে বেশি আক্রান্ত হয়েছে কলকাতাতে। সামনেই দুর্গাপুজো। এই সময় সতর্কতা না নিলে পুজোর পরে বাংলায় করোনার সুনামি আসতে পারে বলেই মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন চিকিৎসক মহলের একাংশ। যদিও প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, সব রকমের সতর্কতা অবলম্বন করেছেন তাঁরা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More