ঘরে ঢুকতেই পরপর গুলি! নিউটাউন-কাণ্ডে উদ্ধার ৭ লক্ষ নগদ, ৫টি আগ্নেয়াস্ত্র, জানাল এসটিএফ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নিউটাউনের সাপুরজি আবাসনে পুলিশের সঙ্গে গুলির লড়াইয়ে দুই গ্যাংস্টারের মৃত্যুর পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন স্পেশাল টাস্কফোর্সের এক আধিকারিক। তিনি জানিয়েছেন, জয়পাল সিং বুল্লার এবং জশপ্রীত সিং পঞ্জাবের এই দুই কুখ্যাত গ্যাংস্টারের খোঁজ চলছিল দীর্ঘদিন ধরেই। আজ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে নিউটাউনের আবাসনে হানা দেন তাঁরা।

গোটা বিষয়টি নিয়ে সিআইডি তদন্ত শুরু করবে বলে জানা গেছে। এসটিএফের তরফে জানানো হয়েছে, নিহতদের হেফাজত থেকে উদ্ধার হয়েছে পাঁচটি আগ্নেয়াস্ত্র, ৮৯ রাউন্ড গুলি এবং নগদ ৭ লক্ষ টাকা। এই দুজনকেই ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’-এর তকমা দিয়েছিল পঞ্জাব পুলিশ। আপাতত রাজ্যে এসে পৌঁছেছে তাঁদের দল। নিহত দুজন গ্যাংস্টারকে সনাক্তও করেছেন তাঁরা।

এসটিএফের আধিকারিক জানান, পুলিশ আসতে দেখেই গুলি চালাতে শুরু করেন ওই দুজন। মোট কত রাউন্ড গুলি তাঁরা চালিয়েছেন তা তদন্তের পর জানা যাবে। তবে এসটিএফের তরফে একজন কর্মী গুরুতর জখম হয়েছেন দুষ্কৃতীদের গুলিতে। তাঁর নাম কার্তিক ঘোষ। এই মুহূর্তে তিনি আমরি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

জানা গেছে গত ১৫ মে পঞ্জাবে দুজন পুলিশকর্মীকে খুনের ঘটনা ঘটেছিল। তার সঙ্গে জড়িত ছিল এই দুজন গ্যাংস্টারের নাম। শুধু তাই নয়, এঁদের সন্ধান দিতে পারলে পুরস্কারও ঘোষণা করেছিল পঞ্জাব পুলিশ। একজনের মাথার দাম ১০ লক্ষ এবং আর একজনের মাথার দাম ছিল ৫ লক্ষ টাকা। মাদক পাচার খুন-সহ একাধিক মামলা ঝুলছিল এই দুই কুখ্যাত অপরাধীর নামে।

এদিন বেলা ১২টা নাগাদ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে হানা দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি শুরু করে এসটিএফ। এরপর সাড়ে তিনটে নাগাদ তারা আবাসনে পৌঁছে যায়। সাপুরজি আবাসনের ২০১ নম্বর ঘরে তারপরেই শুরু হয় গুলির লড়াই। পুলিশ জানিয়েছে, ঘরে ঢুকতেই পর পর গুলি চলতে থাকে তাদের উদ্দেশ্য করে। পাল্টা গুলি চালান তাঁরাও। বেশ কিছুক্ষণ ধরে শ্যুটআউট জারি থাকে।

গোটা আবাসনে চিরুনি তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। ভরদুপুরে খাস কলকাতায় এমন শ্যুটআউটের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More