ট্রাম্পের ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারতীয় সময় বুধবার গভীর রাত থেকেই মার্কিন মুলুকে ডোনাল্ড ট্রাম্প সমর্থকদের রুদ্রমূর্তি দেখেছ বিশ্ব। তারপর বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্টের টুইটার হ্যান্ডেল ১২ ঘণ্টার জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। দিনভর হিংসা চলার পর ট্রামের ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল অনির্দিষ্ট কালের জন্য তালাবন্ধ করে দিল কর্তৃপক্ষ।

ফেসবুক কর্ণধার মার্ক জুকারবার্গ স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, যে ভাবে গণতান্ত্রিক ভাবে নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে জনতাকে উস্কে দেওয়ার কাজে তাঁরা সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মকে ব্যবহার করেছে তা তাঁরা অনুমতি দিতে পারেন না।

জুকারবার্গ নিজের পেজে একথা ঘোষণা করেছেন। তিনি বলেছেন, বিরোধিতা থাকতেই পারে। তবে এই হিংসা, উগ্রতাকে কখনওই লঘু করে দেখা যায় না।

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের এমন ভয়ঙ্কর প্রভাব অতীতে বোধহয় কখনও দেখা যায়নি। উন্মত্ত বিক্ষোভকারীরা ব্যারিকেড ভেঙে, পুলিশকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে হুড়মুড়িয়ে ঢুকে পড়ে ক্যাপিটল বিল্ডিংয়ে। নৈরাজ্যের চূড়ান্ত নিদর্শন তৈরি হয়। মুখে স্লোগান, ট্রাম্পকে কিছুতেই হারতে দেওয়া যাবে না। বিল্ডিং চত্বর কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয়। বিপুল ভোটে এগিয়ে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হতে চলেছেন ডেমোক্র্যাট জো বাইডেনই। মার্কিন কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনে বৃহস্পতিবারই বাইডেনকে জয়ের শংসাপত্র দেওয়া হয়। অন্যদিকে, কংগ্রেসে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান সদস্যরা বিপুল ভোটে নাকচ করে দিয়েছেন বিদায়ী প্রেসিডেন্টের ভেটোকে। গদিদে তাঁর মেয়াদ আর কিছুদিনের। এই ধাক্কাই মানতে পারেনি ট্রাম্প সমর্থকরা।

প্রেসিডেন্টের গদিতে বাইডেন বসার আগেই উত্তাল হয়ে ওঠে ওয়াশিংটন ডিসি। ক্যাপিটল বিল্ডিংয়ে দফায় দফায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় হামলাকারীদের। গুলিও চলেছে। রক্তাক্ত বিল্ডিং চত্বর। চার বিক্ষোভকারীর মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। মৃতদের মধ্যে একজন মহিলা। মেট্রোপলিটন পুলিশ চিফ রবার্ট ডে  কন্টি বলেছেন, হিংসা ছড়ানোর অভিযোগে ৫২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ক্যাপিটল বিল্ডিং থেকে বিক্ষোভাকারীদের বের করা দেওয়া হয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More