ভারত ও অন্যান্য দেশকে দু’মাসের মধ্যে অ্যাস্ট্রজেনেকার টিকার ৬ কোটি ডোজ দেব, আশ্বাস আমেরিকার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা লড়াইয়ে ভারতের পাশে স্বতঃস্ফূর্তভাবে থাকার অঙ্গীকার করেছে আমেরিকা। ভ্যাকসিন, ওষুধপত্র, পিপিই কিট, ভেন্টিলেটর সহ যাবতীয় সুযোগ সুবিধা দিতে তৈরি বাইডেন প্রশাসন। গত রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে এই ব্যাপারে ফোনে দীর্ঘক্ষণ কথা হয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডো বাইডেনের। তারপর আজই বাইডেনের প্রশাসনের তরফে বার্তা দেওয়া হয়, আগামী দু’মাসের মধ্যে অ্যাস্ট্রজেনেকা টিকার অন্তত এক কোটি ডোজ দিয়ে ভারতকে সাহায্য করতে তৈরি আমেরিকা। তবে অ্যাস্ট্রজেনেকার ভ্যাকসিনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে যেহেতু নানারকম সংশয় রয়েছে, তাই ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এফডিএ)ক্লিনচিট পাওয়ার পরেই টিকার বিপুল ডোজ ভারতে পাঠানো হবে।

অ্যাস্ট্রজেনেকার টিকায় রক্ত জমাট বাঁধার অভিযোগ ওঠে ব্রিটেনে। এর পরে আমেরিকাতে এই টিকার প্রয়োগে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল। টিকার ডোজ নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চলছিল। বাইডেন প্রশাসনের চিফ সার্জন জেনারেল ডক্টর বিবেক মূর্তি বলেছেন, অ্যাস্ট্রজেনেকার টিকার বিপুল পরিমাণ ডোজ পড়ে রয়েছে যা ব্যবহার করা হয়নি। এফডিএ-র অনুমতির জন্য অপেক্ষা করা হচ্ছে। যে মূহূর্তে টিকায় সবুজ সঙ্কেত চলে আসবে দেশে তো বটেই বিশ্বের অন্যান্য দেশেও এই টিকার বিতরণ শুরু হয়ে যাবে। বিবেক বলছেন, অ্যাস্ট্রজেনেকার টিকার এক কোটি ডোজ তৈরিই আছে। আমেরিকার বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি আরও পাঁচ কোটি ডোজ তৈরি করছে। ভারত ও অন্যান্য দেশে এই টিকা সরবরাহ করা হবে।

ভারতে করোনা সংক্রমণ ভয়ঙ্কর পর্যায়ে গিয়ে দাঁড়িয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা লাগামছাড়াভাবে বাড়ছে। রোগীদের ভর্তি করার মতো হাসপাতালে বেড নেই, রাজ্যে রাজ্যে অক্সিজেনের আকাল। অতিমহামারী এক ভয়াবহ সুনামির মতো আছড়ে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে ভারতের পাশে সবরকম সাহায্য নিয়ে দাঁড়াতে তৈরি আমেরিকা। সোমবারই মার্কি কোভিড টাস্ক ফোর্সের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ তথা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশিয়াস ডিজিজের ডিরেক্টর অ্যান্থনি ফৌজি বলেছিলেন, অ্যাস্ট্রজেনেকার টিকার ডোজ ভারতে পৌঁছে দিতে প্রস্তুত আমেরিকা। টিকার বিপুল উৎপাদনও হচ্ছে। তবে অ্যাস্ট্রজেনেকার টিকা সুরক্ষিত এই রিপোর্ট হাতে আসার পরেই টিকা পাঠানো হবে নানা দেশে।

ব্রিটিশ ইউনিভার্সিটি অক্সফোর্ড ও ব্রিটিশ-সুইডিশ ফার্ম অ্যাস্ট্রজেনেকার টিকার ফর্মুলায় ভারতে কোভিশিল্ড টিকা তৈরি হয়েছে। পুণের সেরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি এই টিকাই একন দেশবাসীকে দেওয়া হচ্ছে। তবে কোভিশিল্ড ও ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন টিকার ডোজ মিলিয়ে পর্যাপ্ত সংকুলান হচ্ছে না। তাই বিদেশি ভ্যাকসিন দেশে নিয়ে আসার চেষ্টা করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভারতের এমন সঙ্কটের মুহূর্তে পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিয়েছে আমেরিকা। প্রেসিডেন্ট বাইডেন জানিয়েছেন, সংকটের সময়ে নয়াদিল্লি যেভাবে আমেরিকার পাশে থেকেছে, আমেরিকাও ঠিক তেমনটাই করবে। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গে ফোনে কথাও বলেন মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেক সুলিভান। ডোভালকে তিনি জানিয়েছেন, সংক্রমণ প্রতিরোধে এই মুহূর্তে ভারতের কী কী প্রয়োজন তা চিহ্নিত করেছে বাইডেন প্রশাসন। অবিলম্বে ভারতকে ওষুধ, পিপিই কিট, ভেন্টিলেটর, অক্সিজেন এবং কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের কাঁচা উপাদান সরবরাহ করবে ওয়াশিংটন।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More