নজরে মহিলা ভোট, নারী দিবসে সেলেব পরিবৃত মিছিল মমতার

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বর্ধমানের সভা হোক বা সাহাগঞ্জের—বক্তৃতায় একটা বিষয় ইদানীং বেশ কমোন। ‘মা-বোনেরা আপনাদের পা দুটোকে আমার নমস্কার’।

তৃণমূলের এ বার প্রচারের স্লোগান হল, বাংলার নিজের মেয়েকে চায়। আর দিদি বেছে বেছে প্রার্থী করেছেন ৫০ জন মহিলাকে। তাঁদের মধ্যে, জুন মালিয়া, সায়নী ঘোষরা যেমন রয়েছেন তেমনই রয়েছেন তৃণমূলের মহিলা নেতা কর্মীও। রবিবার প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদীর ব্রিগেড সভার দিন শিলিগুড়িতে মহিলাদের নিয়ে একটি মিছিল করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার আন্তর্জাতিক নারী দিবসে ফের তিনি মহিলাদের নিয়ে মিছিল করলেন কলকাতায়। যে মিছিলের প্রথম সারিতে রইলেন সাংসদ মিমি চক্রবর্তী, নুসরত জাহান, জুন মালিয়া, কৌশানী মুখোপাধ্যায়ের মতো সেলেবরা।
অনেকের মতে, একে শুধু নারী দিবসের মিছিল বললে কম হবে। বরং এ মিছিলও ভোটেরই মিছিল। এমনিতেই এই মিছিলে রান্নার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে প্রতিবাদ-স্লোগান-কাটআউট দেখা গিয়েছে। তবে পর্যবেক্ষকদের একাংশের মধ্যে, রাজনৈতিক কৌশল তার থেকে বৃহত্তর। বাংলার মহিলাদের ভোট আরও বেশি করে পেতে সুচিন্তিত কৌশল করে এগোতে চাইছেন মমতা।

জাতপাত, সম্প্রদায়ের ভিত্তিতে সর্বভারতীয় রাজনীতিতে ভোটে সমীকরণ, ভাগাভাগি ইত্যাদি অনেক দিন ধরেই চলছে। কিন্তু মহিলাদের একটি পৃথক ভোটব্যাঙ্কের মতো বিবেচনা করে কৌশল সাজানোর পদক্ষেপ সবার আগে করেছেন বিহারের নীতীশ কুমার। অতীতে লালু প্রসাদ জমানায় বিহারে নারী সুরক্ষা নিয়ে বারবার প্রশ্ন উঠত। নীতীশ ক্ষমতা. আসার পর থেকেই আইনশৃঙ্খলার পরিস্থিতি শুধরোনের চেষ্টা করেন। তার পর বিহারে মদ নিষিদ্ধ করে দেন। এ বারও বিহার ভোটে মহিলাদারে গরিষ্ঠ অংশ তাঁকে উপুরহস্ত হয়ে ভোট দিয়েছে বলেই অনেকে মনে করেন। এ বার হয়তো তেমনই কৌশল নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপি যখন ধর্মীয় মেরুকরণকে পাখির চোখ করেছে, তখন তলে তলে অন্য মেরুকরণের চেষ্টায় হয়তো রয়েছেন দিদি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More