শওকত মোল্লা অবস্থানে বসে পড়লেন! অভিযোগ, সিপিএম-আব্বাসের দল বোমা মারছে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ২০১৬-র ভোটে শওকত মোল্লার জয়ের ব্যবধান ছিল ১ লক্ষ ৪০ হাজারের বেশি। বিরোধীরা অভিযোগ করেছিলেন, ভোটে অবাধ লুঠ হয়েছে লুঠ! কিন্তু দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার রাজনীতিতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অন্যতম আস্থাভাজন নেতা হিসাবে পরিচিত এই নেতার দাবি ছিল, স্রেফ মানুষের আশীর্বাদেই জিতেছেন তিনি।

সেই তিনি ক্যানিং পূর্বের বিদায়ী বিধায়ক তথা তৃণমূল প্রার্থী শওকত ভোটের সকালে অভিযোগ করলেন, কাল রাত থেকে তাণ্ডব শুরু করেছে আব্বাস সিদ্দিকির দল আইএসএফ আর সিপিএমের বাহিনী। যে হার্মাদরা ঘরে ঢুকেছিল, তারাই রাস্তায় নেমে পড়েছে। সংবাদমাধ্যমের সামনে শওকত এও বলেন, নির্বাচন কমিশনকে বারবার জানিয়েও কোনও লাভ হচ্ছে না। এর পরেই তিনি অবস্থানে বসে পড়েন। বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।

এদিন সকালেই ক্যানিং পূর্বের ৭২ নম্বর বুথের সামনে দাঁড়িয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন শওকত। সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলার সময়েই তাঁর মোবাইল বেজে ওঠে। ফোনে কথান বলেই তিনি বলেন, এই দেখুন, এইমাত্র খবর এল ৮০ আর ৮৩ নম্বর বুথ থেকে ওরা আমাদের এজেন্টকে বের করে দিয়েছে। আমি ওখানে যাব।

জীবনতলার একটি বুথ থেকে তৃণমূলের এক পোলিং এজেন্টকে মেরে তুলে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে আইএসএফের বিরুদ্ধে। তাঁর মাথা ফেটে গিয়েছে। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তাঁকে। অন্য দিকে ক্যানিং পশ্চিম, মগরাহাট পশ্চিম, বারুইপুর পশ্চিমেও আইএসএফ ও সিপিএমের বিরুদ্ধে বোমাবাজির অভিযোগ তুলেছে তৃণমূল।

বারুইপুর পূর্বে আবার বিরোধীদের অভিযোগ, তৃণমূল সকাল থেকে বুথের সামনে লোক দাঁড় করিয়ে রেখে ভোটারদের ভয় দেখিয়ে বাড়ি ফিরিয়ে দিচ্ছে। কিন্তু তৃণমূলের শক্ত ঘাঁটি দক্ষিণ ২৪ পরগনায় অতীতের বেশ কয়েকটি ভোটে যে ছবি দেখা যেত, এদিন সকালটা যেন ঠিক তার বিপরীত। তৃণমূল অভিযোগের পর অভিযোগ করছে।

অন্যদিকে এক আইএসএফ নেতা সংবাদমাধ্যমে বলেন, ভোট ভাল হচ্ছে। ক্যানিংয়ের দুই আসনেই মানুষ ১০ বছর পর ভোট দিতে পারছেন। তাই তৃণমূল রেগে যাচ্ছে। বরং তাঁদের এও অভিযোগ, তৃণমূলের গুণ্ডারা শুধু বিরোধীদের হামলা করছে তা নয়, কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপরেও হামলা করছে। সোমবার সারা রাত বোমাবাজি করেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিভিন্ন জায়গায়। এ ব্যাপারে কমিশনের কাছে অভিযোগ জানাবেন বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More