রবিবার, ফেব্রুয়ারি ১৭

মাটিহারা মহানন্দা! নদীর পাড় থেকে অবাধে চলছে মাটি চুরি, অভিযোগের তীর শাসক দলের দিকেই

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কাকভোরে ঘুমিয়ে আছে মহানন্দা। নিঃশব্দে পাড়ে এসে দাঁড়ায় একটি নৌকা। চারপাশের স্তব্ধতা ভেঙে নদীর পাড় বরাবর একের পর এক কোদালের কোপ। শ্রমিকদের মৃদু কথাবার্তা, সেই সঙ্গে ঝপাঝপ শব্দে ঘুম ভাঙে নদী লাগোয়া জনপদের। মাটি মাফিয়াদের সৌজন্যে চোখের সামনে নদী-লুঠ দেখতে দেখতে দিন শুরু হয় পুরনো মালদা পুরসভা এলাকার।

কোদাল চালানোর পাশাপাশি, নদীতে নেমে পড়ে জেসিবি ও বেশ কয়েকটি ট্রাক্টর। ভোরের আলো ফোটার আগে মাটিবোঝাই সেই ট্রাক্টর মিলিয়ে যায় দূরের গ্রামে। জমি মাফিয়াদের নজর থেকে বাদ পড়েনি রেলব্রিজের সংরক্ষিত এলাকাও। এই দৃশ্য এখন গা-সওয়া হয়ে গিয়েছে নদীপাড়ের জনপদের। বিষয়টি অজানা নয় প্রশাসনেরও। অথচ মাটি মাফিয়াদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা তো দূরের কথা, দিনের পর দিন তাদের দৌরাত্ম্য যেন বেড়েই চলেছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রতিদিনই কয়েক হাজার ট্রাক্টর নিয়ে রেল ব্রিজ ও নদীর পাড় সংলগ্ন এলাকা থেকে মাটি চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী। আর এই বিশাল কর্মকাণ্ডের পিছনে নাকি মদত রয়েছে স্থানীয় শাসক দলের কাউন্সিলর থেকে পুরসভার চেয়ারম্যানের।

পুরনো মালদা পুরসভার ২ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের গা ঘেঁষে চলে গেছে মহানন্দা নদী। এই নদীর উপরে রয়েছে একটি রেল ব্রিজও ,যার উপর দিয়ে প্রায় প্রতিদিনই কয়েকশো ট্রেন যাতায়াত করে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ প্রতিদিনই প্রায় কয়েক হাজার গাড়ি এই মহানন্দা নদীর পাড় থেকে মাটি কেটে নিয়ে যায় । মাটি কাটা হয় রেল ব্রিজের নিচে থেকেও। এলাকার বাসিন্দাদের দাবি, এর ফলে বিপন্ন হচ্ছে রেল লাইন ,বিঘ্নিত হচ্ছে যাত্রী সুরক্ষা। যে কোনও সময়ে বড় দুর্ঘটনার ঘটে যেতে পারে।

শুধু রাতের বেলা নয়, দিনের আলোতেও অবাধে চলছে মাটি চুরি। পুরনো মালদা পুরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা নিরঞ্জন মণ্ডল বলেন, “নদীর পাড়ে যেখানে অবাধে চুরি হচ্ছে সেখান থেকে ৩০০ মিটার দূরে মালদা থানা ও ৫০০ মিটার দূরে পুরসভা। মাটি চুরি হলেও কোনও হেলদোল নেই প্রশাসনের।” সেই সঙ্গে তিনি আরও জানান, এ ভাবে দিনের পর দিন মাটি কাটা চলতে থাকলে, বন্যা অবধারিত। মহানন্দার জলে ভেসে যাবে পুরসভার বিস্তীর্ণ এলাকা। গৃহহীন হয়ে পড়বে কয়েক লক্ষ মানুষ।

২ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা জামাল মোমিনের অভিযোগ ছয় নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মজিফুল ইসলাম এই জমি মাফিয়াদের মদত জোগাচ্ছেন। প্রতিবাদ করলেই প্রাণে মারার হুমকি দেওয়া হয়। জমি মাফিয়াদের দৌরাত্মের কথা স্বীকার করে স্থানীয় কংগ্রেসের বিধায়ক ভূপেন্দ্র নাথ হালদার জানান, এই এলাকায় অবাধে মাটি চুরির ঘটনা নতুন নয়। শাসক দলের নেতাদের মদতেই এই এলাকায় মাটি চুরি হচ্ছে। তিনি বলেন “একাধিকবার প্রশাসনকে জানিয়েও কোন লাভ হয়নি , আমি অসহায়।”

পুরসভার চেয়ারম্যান কার্তিক ঘোষের কথায়, “মাটি চুরির অভিযোগ এসেছে।  আমরা বিষয়টা খতিয়ে দেখছি। “

Shares

Comments are closed.