হোয়াইট হাউস দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে বিডেন, ফ্লোরিডার দিকে তাকিয়ে ট্রাম্প

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এই মুহূর্তে গোটা বিশ্বের চোখ রয়েছে আমেরিকার দিকে। কে হবেন আমেরিকার পরবর্তী প্রেসিডেন্ট। রিপাবলিকান প্রার্থী তথা বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, নাকি ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বিডেন, কে দখল করবেন হোয়াইট হাউসের ক্ষমতা। এখনও পর্যন্ত যা ট্রেন্ড তাতে এগিয়ে রয়েছে বিডেন। তাঁর ২১৩টি ইলেকটোরাল ভোটের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের দিকে রয়েছে ১৩৮টি ইলেকটোরাল ভোট। তবে ফ্লোরিডায় এগিয়ে রয়েছে ট্রাম্প। এই প্রদেশে ট্রাম্প জিততে পারলে অনেকটাই ব্যবধান কমবে।

রিপাবলিকান প্রার্থী তথা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দ্বিতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় আসার বিষয়ে আশাবাদী। অন্যদিকে ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বিডেনও দেশজুড়ে চলা প্রবল ট্রাম্প বিরোধিতার মধ্যে হোয়াইট হাউসের ক্ষমতা দখলের বিষয়ে আশাবাদী। নির্বাচনী প্রচারে কোনও খামতি রাখেনি দু’দলই।

আমেরিকার ৫০টি প্রদেশের মধ্যে ইতিমধ্যেই ৩৬টি প্রদেশের ছবি সামনে এসে গিয়েছে। তাতে দেখা গিয়েছে, ১৭টি প্রদেশে ভোটে জিতেছেন বিডেন। অন্যদিকে ১৯টি প্রদেশে জিতেছেন ট্রাম্প। বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রদেশে চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই।

সংবাদসংস্থা এএফপি এবং অন্যান্য মার্কিন সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, এখনও পর্যন্ত আলাবামা (৯), আরকানসাস (৬), ইদাহো (৪), ইন্ডিয়ানা (১১), কানসাস (৬), কেন্টাকি (৮), লুসিয়ানা (৮), মিসিসিপি (৬), মিসৌরি (১০), নেব্রাস্কা (৫), উত্তর ডাকোটা (৩), ওহিও (১৮), ওক্লাহোমা (৭), দক্ষিণ ক্যারোলিনা (৯), দক্ষিণ ডাকোটা (৩), টেনেসি (১১), উটাহ (৬), ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া (৫), উওমিং (৩) প্রদেশগুলি জিতেছেন ট্রাম্প। এর মধ্যে ওহিও ছাড়া সেরকম বড় ইলেকটোরাল ভোট কোনও জায়গা থেকে পাননি তিনি।

অন্যদিকে যে ২১৩টি ইলেকটোরাল ভোট বিডেন পেয়েছেন তার মধ্যে ক্যালিফোর্নিয়া (৫৫), কলোরাডো (৯), কানেক্টিকাট (৭), ডেলাওয়্যার (৩), ডিস্ট্রিক্ট অফ কলম্বিয়া (৩), হাওয়াই (৪), ইলিওনিস (২০), মেরিল্যান্ড (১০), ম্যাসাচুসেটস (১১), নিউ হ্যাম্পশায়ার (৪), নিউ জার্সি (১৪), নিউ মেক্সিকো (৫), নিউ ইয়র্ক (২৯), ওরেগন (৭), রোড আইল্যান্ড (৪), ভারমন্ট (৩), ভার্জিনিয়া (১৩) ও ওয়াশিংটন (১২) রয়েছে।

ইতিমধ্যেই ফ্লোরিডাতে শেষ হয়েছে ভোটগ্রহণ। মোট ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে জিততে হলে দরকার ২৭০টি ইলেকটোরাল ভোট। তার মধ্যে ফ্লোরিডাতেই রয়েছে ২৯টি ইলেকটোরাল ভোট। অর্থাৎ বরাবরই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এই প্রদেশ। ২০১৬ সালের নির্বাচনে খুব সামান্য ব্যবধানে এই প্রদেশ জিতেছিলেন ট্রাম্প। তিনি পেয়েছিলেন ৪৯ শতাংশ ভোট। ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিন্টন পেয়েছিলেন ৪৭.৮ শতাংশ ভোট।

সাধারণত দেখা যায়, প্রেসিডেন্ট হিসেবে সাধারণ মানুষের রায় বা পপুলার ভোট যাঁর দিকে বেশি পড়ছে তিনিই হোয়াইট হাউসে পৌঁছে যান। কিন্তু সবসময় যে তা হয় তেমনটা একেবারেই নয়। জর্জ ডব্লিউ বুশ থেকে ডোনাল্ড ট্রাম্প—কেউই পপুলার ভোটে জেতেননি। অর্থাৎ মার্কিন জনতার অধিকাংশ চাননি তাঁরা প্রেসিডেন্টের কুর্সিতে বসুন। কিন্তু তাও তাঁরা প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন একটাই কারণে, ইলেকটোরাল কলেজ পদ্ধতিতে জিতে।

ইলেকটোরাল কলেজে মোট ভোট সংখ্যা ৫৩৮টি। প্রেসিডেন্ট হতে গেলে পেতে হয় ২৭০টি ভোট। তবে পপুলার ভোটের যে কোনও গুরুত্ব নেই তেমনটা নয়। বরং এর মধ্যে রয়েছে মার্কিন সংবিধানের এক জটিল গাণিতিক নিয়ম। ধরা যাক এক্স এবং ওয়াই দুই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী নির্বাচনী লড়াইয়ে নেমেছেন। এবার ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যে ভোট গণনার পর দেখা গেল এক্স ৫০.০১ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। তাহলে ইলেকটোরাল কলেজে ক্যালিফোর্নিয়ার ৫৫টি ভোট এক্সের পক্ষেই যাবে। অন্য রাজ্যের ক্ষেত্রেও একই। ৫০ শতাংশের বেশি ভোট পেলেই ইলেকটোরাল কলেজের সব ভোট পপুলার ভোট যে দিকে সেদিকেই যাবে। তখন আর পছন্দ অপছন্দের ব্যাপার থাকবে না।

কিন্তু জটিল অঙ্কের অবতারণা হয় তখনই যখন দেখা যায় কোনও রাজ্যে কোনও প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী কাঁটায় কাঁটায় ৫০ শতাংশ বা তার কম ভোট পেয়েছেন। তখন ইলেকটোরাল কলেজের নির্বাচকমণ্ডলীর সদস্যরা তাঁদের মতো করে ভোট দেন। এবং সেই ভোট গণনা হয়। গত ভোটে ট্রাম্প যা ভোট পেয়েছিলেন তার চেয়ে অন্তত ৩০ লক্ষ পপুলার ভোট বেশি পেয়েছিলেন হিলারি ক্লিন্টন। কিন্তু তাও ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন ইলেকটোরাল কলেজ পদ্ধতির মাধ্যমে। এছাড়াও বুশ, বেঞ্জামিন হ্যারিসন, রাদারফোর্ড বি হেইজরাও পপুলার ভোটে হেরে ইলেকটোরাল কলেজের ভোটে গরিষ্ঠতা পেয়ে প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন।

এবার নির্বাচনে এখনও পর্যন্ত এগিয়ে রয়েছে বিডেন। তবে এখনও কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রদেশের ফল বাকি রয়েছে। তাই শেষ হাসি কে হাসে তা জানতে আরও কয়েক ঘণ্টার অপেক্ষা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More