ইমরান কি হার মানলেন? স্বীকার করলেন,’মোদীর উপর চাপ পড়েনি, লাভ হয়নি দুনিয়া ঘুরে নালিশ করে’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পর কী দৌড়ঝাঁপটাই না শুরু করেছিল ইসলামাবাদ। একে বলছে, তাকে বলছে- নরেন্দ্র মোদী আর ভারতের বিরুদ্ধে নালিশ করাকে রুটিনে পরিণত করে ফেলেছিলেন ইমরান খান। কিন্তু এ বার নতি স্বীকার করলেন পাক প্রধানমন্ত্রী। স্পষ্ট বলে দিলেন, আন্তর্জাতিক দরবারে ঘুরে ঘুরে নালিশ করেও লাভের লাভ কিস্যু হয়নি। মোদীর উপর কোনও চাপই তৈরি করা যায়নি।

এই মুহূর্তে ইমরান এবং মোদী দুজনেই রয়েছেন নিউ ইয়র্ক শহরে। পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মহম্মদ কুরেশির সঙ্গে সাংবাদিক বৈঠকে ইমরানের গলা থেকে হতাশা ঝরে পড়ে। রাগঢাক না রেখেই বলেন, “আন্তর্জাতিক দরবারে অভিযোগ জানালেও, তারা কিছুই করতে পারেনি। কোনও চাপ আসেনি মোদীর উপর।” এ জন্য তিনি যে হতাশ, তাও মেনে নেন ইমরান।

রাষ্ট্রপুঞ্জের অধিবেশনের মাঝেই ইমরান এবং মোদী আলাদা করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেছেন। মোদীর সঙ্গে প্রথম বৈঠকের পর ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন ট্রাম্প। কিন্তু ইমরানের সঙ্গে বৈঠকের পর ট্রাম্প অন্য সুরে গান ধরেন। বলেন, চাইলে তিনিই মধ্যস্থতা করে কাশ্মীর সমস্যা মিটিয়ে দিতে পারেন। তারপর ফের মোদী-ট্রাম্প বৈঠক হয়। সেখান থেকে বেরিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, “মোদী রকস্টার। মোদী ভারতের পিতা।” অনেকে মনে করছেন, মোদী সম্পর্কে ট্রাম্পের শেষ মন্তব্য ইমরানের হতাশাকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

জম্মু ও কাশ্মীর থেকে বিশেষ সাংবিধানিক মর্যাদা তুলে নেওয়ার পর দৌত্য শুরু করেছিল ইমরান প্রশাসন। দরজায় দরজায় ঘুরে বলেছিল, দেখো আমাদের সঙ্গে কথা না বলে ভারত একতরফা সব করে নিল। নয়াদিল্লির অবস্থান তখন থেকেই ছিল দৃঢ়। স্পষ্ট বলে দিয়েছিল, কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। এখানে পাকিস্তানের নাক গলানোর অবকাশ নেই।

দেড় মাস ধরে কম চেষ্টা করেনি পাকিস্তান। কিন্তু পাশে পায়নি কাউকে। উল্টে রাষ্ট্রপুঞ্জের স্থায়ী সদস্য দেশের অনেকে ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছিল। পর্যবেক্ষকদের মতে, না পেরে শেষমেশ ইমরান মেনে নিতে বাধ্য হলেন, মোদীর উপর আন্তর্জাতিক চাপ তৈরির সমস্ত কৌশল জলে গিয়েছে।

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More