ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্ট পাকাপাকি বন্ধ, ‘মুখ বন্ধের চেষ্টা’, অভিযোগ প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্টের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আমেরিকার ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনায় উস্কানির অভিযোগে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্ট পাকাপাকি ভাবে বন্ধ করে দিল টুইটার কর্তৃপক্ষ। এই ঘটনার পরে ট্রাম্পের অভিযোগ, তাঁর মুখ বন্ধ করার জন্যই এই কাজ করা হয়েছে।

নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে টুইট করেই এই অভিযোগ করেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, “স্বাধীনভাবে কথা বলার অধিকার খর্ব করার দিকে এগিয়ে চলেছে টুইটার। ডেমোক্র্যাট ও বামপন্থীদের সঙ্গে আলোচনা করেছে টুইটার কর্মীরা। তারপরে আমার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়ার কথা হয়েছে। আমার মুখ বন্ধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। সেইসঙ্গে যে সাড়ে সাত কোটি দেশভক্ত আমাকে ভোট দিয়েছেন তাঁদেরও মুখ বন্ধ করার চেষ্টা হয়েছে।” এই টুইটের পরে সেটিও মুছে দেওয়া হয়।

টুইটারের তরফে জানানো হয়, ট্রাম্পের সমর্থকরা ক্যাপিটল বিল্ডিংয়ে হামলার পরে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। তাই ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্ট পাকাপাকি ভাবে বন্ধ করে দিচ্ছে তারা। তার আগে প্রাথমিক ভাবে ১২ ঘণ্টার জন্য ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করা হয়েছিল। তবে সতর্ক করা হয়েছিল, তিনি যদি ফের নিয়ম ভাঙেন তাহলে পাকাপাকি ভাবে তা বন্ধ করে দেওয়া হবে। সেটাই হল।

বৃহস্পতিবার অবশ্য ট্রাম্পের তরফে খারাপ কোনও টুইট করা হয়নি। বরং একটি ভিডিও বার্তায় নিজের সমর্থকদের শান্ত থাকার আবেদন করেন তিনি। এমনকি তিনি মেনে নেন নির্বাচনে তাঁর হার হয়েছে। তাঁর কাছ থেকে জো বাইডেনের হাতে ক্ষমতার হস্তান্তরে কোনও সমস্যা হবে না বলেও জানান তিনি।

কিন্তু সমস্যা হয় শুক্রবারের কর্মকাণ্ডে। সেদিন ফের দুটি টুইট করেন ট্রাম্প। একটি টুইটে ট্রাম্প দাবি করেন, তাঁর সমর্থকদের অসম্মান করা যাবে না। অন্য টুইটে তিনি বলেন বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে থাকবেন না তিনি। এই দুই টুইটের পরেই পদক্ষেপ নেয় টুইটার কর্তৃপক্ষ। তারা জানায়, ট্রাম্পের এই দুই টুইট তাঁর সমর্থকদের ফের একবার উত্তেজিত করে তোলার পক্ষে যথেষ্ট। এই ধরনের টুইট লাগাতার হতে থাকলে আরও অনেক বেশি হিংসার ঘটনা ঘটতে পারে। তাতে দেশের আইনশৃঙ্খলা নষ্ট হতে পারে। তাই ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট পাকাপাকি ভাবে বন্ধ করে দিল টুইটার কর্তৃপক্ষ।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More