৭ কোটি বাজারমূল্যের তিমির বমি চোরাই পাচার, গুজরাতে পুলিশের জালে তিন অভিযুক্ত

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অ্যাম্বারগ্রিস। পাতি বাংলায় তিমি মাছের জমাট বাধা বমি। শুনতে নাক শিটকে গেলেও এই অ্যাম্বারগ্রিসই কিন্তু বিপদে ফেলল তিন জনকে। চোরাচালান করতে গিয়ে পুলিশের জালে ফাঁসলেন তাঁরা।

ঘটনাটি ঘটেছে গুজরাতে। জানা গেছে ওই তিনজনের কাছে প্রায় ৫.৩৫ কেজি অ্যাম্বারগ্রিস ছিল। জুনাগড় থেকে আমদাবাদে এক খরিদ্দারের কাছে সেগুলি পাচার করছিলেন তাঁরা। আন্তর্জাতিক বাজারে এই পরিমাণ অ্যাম্বারগ্রিসের দাম প্রায় ৭ কোটি টাকা। শনিবার তিন জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশের ডেপুটি কমিশনার প্রেমসুখ ডেলু জানিয়েছেন, ওই তিনজনের কাছ থেকে আমরা ৫.৩৫ কেজি অ্যাম্বারগ্রিস উদ্ধার করেছি। বাজারমূল্য ৭ কোটি টাকা। আমাদের সন্দেহ এর পিছনে অনেক বড় নেটওয়ার্ক রয়েছে। অন্তত ১০ জন রয়েছে আমাদের সন্দেহের তালিকায়।

পুলিশ সূত্রের খবর, বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ আইনে গ্রেফতার করা হয়েছে ওই তিন অভিযুক্তকে। অভিযুক্তরা হলেন জুনাগড়ের শরিন চেদা, ভাবনগরের খালিদ ওফি এবং রাজস্থানের সুমের সোনি।

কী এই অ্যাম্বারগ্রিস? কী কাজে লাগে?

অ্যাম্বারগ্রিস হল তিমির অন্ত্রে জমতে থাকা এক ধরনের পদার্থ। মোমের মতো জমাট বাধা এই পদার্থই বমি করে বের করে দেয় তিমি। আর তা মানুষের কাজে ব্যবহার করা হয়। কী কাজে? কসমেটিকস বা সাজগোজের জিনিসপত্র বানাতে কাজে লাগানো হয় এই অ্যাম্বারগ্রিস। অ্যাম্বারগ্রিস দিয়ে সুগন্ধি পারফিউমও তৈরি করা হয়। এছাড়া বিশেষ কিছু প্রাচীন চিকিৎসা পদ্ধতিতে অ্যাম্বারগ্রিস ব্যবহারের উল্লেখ পাওয়া যায়। আন্তর্জাতিক বাজারে মোমের মতো দেখতে এই পদার্থ যথেষ্ট মূল্যবান।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.