অভিষেকের ভাই আকাশের দাবি, শ্রীরামপুরে কল্যাণকে সরানো হোক

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: এ যেন বহুমুখের আগ্নেয়গিরি। একটা থামছে তো অন্যটা দিয়ে লাভা উদগীরণ শুরু হচ্ছে। এবার খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, (mamata) অভিষেক (abhishek) বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিবার (family)থেকেই কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের (kalyan) বিরুদ্ধে ক্ষোভের (agitation)জ্বালামুখ খুলে গেল।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডায়মন্ড হারবার মডেলকে (diamondharbour model) তীব্র সমালোচনায় বিদ্ধ করেছেন শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তা নিয়ে যে শাসকদল আন্দোলিত এ ব্যাপারে কোনও সন্দেহ নেই। কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রকাশ্যে সমালোচনা করেছেন কুণাল ঘোষ । পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সৌগত রায়রা ঠারেঠোরে কল্যাণের উদ্দেশে বলেছেন, এমন কথা প্রকাশ্যে না বলাই উচিত। এবার সরাসরি কল্যাণকে শ্রীরামপুরের সাংসদ পদ থেকে সরানোর দাবি তুলে দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাই আকাশ বন্দ্যোপাধ্যায় (brother)। নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে শুক্রবার রাতে আকাশ একটি পোস্টার পোস্ট করেছেন। যাতে লেখা, শ্রীরামপুর নতুন সাংসদ চায়। ক্যাপশনে লিখেছেন, “নিজেকে হাসির পাত্র না করে, পরিবর্তনের সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নেওয়া উচিত।”

অনেকের মতে, আকাশ বোঝাতে চেয়েছেন, তৃণমূলের মধ্যে এখন পরিবর্তন চলছে। তাতে মানিয়ে নেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। নইলে নিজেকে হাসির পাত্রে পরিণত করা হবে।

আকাশ তৃণমূলের বড় পদে নেই। কিন্তু তিনি ব্যানার্জি বাড়ির ছেলে। অনেকে মনে করছেন, শুধু তৃণমূল নয়, এই মন্থনে আন্দোলিত দলনেত্রী ও  সাধারণ সম্পাদকের পরিবারও। ফলে তা তাত্‍পর্যপূর্ণ বৈকি!

যদিও এই গোটা পর্বে মমতার নীরবতা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন। বিশেষত বিরোধীরা। শুক্রবার প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী বলেছেন, ” বাংলার মুখ্যমন্ত্রী চুপ কেন? তাঁর দলের সাংসদ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে কথা বলছেন, তিনি নীরব? এই নীরবতাই স্পষ্ট করে দিচ্ছে, ভাইপোর সঙ্গে তাঁর বিরোধ শুরু হয়েছে।”

পর্যবেক্ষকদের অনেকের মতে, ডায়মন্ড হারবার মডেলের পরেই মমতার তৃণমূল আর অভিষেকের তৃণমূল–দুটি যে আলাদা বিষয় সেই ধারণা অনেকের মধ্যে নির্মিত হয়ে গিয়েছে। তাঁদের বক্তব্য, কল্যাণের ধারাবাহিক বলে যাওয়া, কবিতা আওড়ে শিরদাঁড়ার জোর প্রদর্শন এবং তার পাল্টা অভিষেকের সমর্থনে দেবাংশু ভট্টাচার্য, সুদীপ রাহাদের মতো তরুণ ব্রিগেডের ময়দানে নামা দুই তৃণমূলের বিভাজনকে স্পষ্ট করছে। এর মধ্যেই আবার বন্দ্যোপাধ্যায় পরিবারে দিদির পরবর্তী প্রজন্ম আওয়াজ তুলল, পরিবর্তনকে মান্যতা দিতে হবে।

 

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.