শুক্রবারও জেলেই রাত কাটবে আরিয়ানের, রিলিজ অর্ডার পৌঁছতে দেরি

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো : মুম্বইয়ের আর্থার রোড (Arthur Road) জেলে বন্দি আছেন সুপারস্টার শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান। বৃহস্পতিবার বম্বে হাইকোর্ট তাঁর জামিনের নির্দেশ দেয়। তার পরে ২৪ ঘণ্টা কেটে গেলেও জেল থেকে মুক্তি পাননি শাহরুখ পুত্র। একটি সূত্রে খবর রিলিজ অর্ডারের কপি এদিন বিকাল সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত জেলে পৌঁছয়নি। জেল সুপারিনটেনডেন্ট নীতিন ওয়েচাল বিকাল পাঁচটা ৩৫ মিনিট পর্যন্ত রিলিজ অর্ডারের জন্য অপেক্ষা করেছিলেন। কিন্তু সেই অর্ডার তিনি পাননি।

মাদক মামলায় অভিযুক্ত আরিয়ানকে হাইকোর্ট জামিনের ১৪ টি শর্ত দিয়েছে। আদালত বলেছে, পুলিশকে না জানিয়ে তিনি মুম্বইয়ের বাইরে যেতে পারবেন না। প্রতি শুক্রবার তাঁকে নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)-র অফিসে হাজিরা দিতে হবে। তাঁকে পাসপোর্ট জমা রাখতে হবে। জামানত হিসাবে দিতে হবে ১ লক্ষ টাকা। সব মিলিয়ে ১৪ টি শর্তে জামিন দেওয়া হয়েছে শাহরুখ-পুত্রকে।

হাইকোর্ট বলেছে, বিনা অনুমতিতে আরিয়ান দেশ ছাড়তে পারবেন না। জামিনে মুক্ত থাকা অবস্থায় তিনি মাদক সেবন করতে পারবেন না। তাঁর সহ অভিযুক্ত আরবাজ মার্চেন্টের সঙ্গে যোগযোগ করতে পারবেন না।

আরিয়ান খানের বিরুদ্ধে মামলায় তদন্তকারী অফিসারের সম্পর্কে আগেই একটি গুরুতর অভিযোগ তুলেছিলেন মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী নবাব মালিক। তিনি বলেছিলেন, তদন্তকারী অফিসার সমীর ওয়াংখেড়ে জন্মসূত্রে মুসলমান। কিন্তু জালিয়াতি করে হিন্দু পরিচয় দিয়ে তিনি কাস্ট সার্টিফিকেট জোগাড় করেন। তার জোরেই তিনি ইন্ডিয়ান রেভিনিউ সার্ভিসে চাকরি পেয়েছিলেন। ওয়াংখেড়ে অবশ্য দাবি করেন, তিনি হিন্দু। কিন্তু নবাব মালিক টুইটারে ওয়াংখেড়ের ‘নিকাহ নামা’-র ছবি পোস্ট করেছেন। অর্থাৎ তিনি দেখাতে চেয়েছেন, মুসলমান মতেই ওয়াংখেড়ের বিবাহ হয়েছিল। সুতরাং তিনি মুসলমান।

এর আগে নবাব মালিক একটি বার্থ সার্টিফিকেট পোস্ট করে দাবি করেন, সেটি সমীর ওয়াংখেড়ের। বার্থ সার্টিফিকেটে শিশুর বাবার নাম হিসাবে লেখা আছে দাউদ কে ওয়াংখেড়ে। নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরোর ওয়েবসাইটে লেখা আছে, সমীরের বাবার নাম ধ্যানদেব ওয়াংখেড়ে। নবাব মালিক টুইট করে বলেছেন, সমীরের ধর্মীয় পরিচয় নিয়ে তাঁর কোনও মাথাব্যথা নেই। কিন্তু তিনি প্রমাণ করতে চাইছেন, ওই তদন্তকারী অফিসার জালিয়াত।

মন্ত্রীর দাবি, ২০০৬ সালের ৭ ডিসেম্বর সমীরের বিবাহ হয়। তাঁর বোনের স্বামী আজিজ খান ছিলেন বিয়ের সাক্ষী। এর আগে ওয়াংখেড়ের স্ত্রী ক্রান্তি রেদকার ওয়াংখেড়ে মন্ত্রীর দাবি খারিজ করে বলেন, আমি ও আমার স্বামী সমীর দুজনেই জন্মসূত্রে হিন্দু । আমরা অন্য কোনও ধর্মই গ্রহণ করিনি কখনও। সব ধর্মের প্রতিই শ্রদ্ধা আছে। সমীরের বাবাও ছিলেন হিন্দু। তিনি আমার মুসলিম শাশুড়ি মাকে বিয়ে করেন। শাশুড়ি মা আর নেই। সমীরের আগের বিয়েটা হয়েছিল বিশেষ বিবাহ আইনে। ২০১৬-য় তাঁদের ডিভোর্স হয়। ২০১৭য় আমাদের বিয়ে হয় হিন্দু বিবাহ আইনে।

প্রেস বিবৃতি দিয়ে সমীর ওয়াংখেড়েও বলেন, আমি বহু ধর্মে বিশ্বাসী, ধর্মনিরপেক্ষ পরিবারের ছেলে। বাবা হিন্দু, মা মুসলিম।  টুইটারে আমার ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশ অবমাননাকর, আমার পারিবারিক গোপনীয়তায় আগ্রাসন। মহারাষ্ট্রের  মন্ত্রী নবাব মালিকের কুত্সামূলক প্রচারে ব্যথিত।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.