মৌলবাদের হিংসায় ওপার বাংলায় পুড়ল ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ-র সঙ্গীতাসন

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মৌলবাদীদের নির্দিষ্ট কোনও দেশ, ধর্ম, জাতি, বর্ণ হয়না! তাঁরা সব দেশেই সমানভাবে তাণ্ডব চালাতে দ্বিধা করেন না। তাঁদের আক্রমণে ক্ষতিগ্রস্ত গোটা পৃথিবীর শিল্পজগৎ, সাহিত্য, কৃষ্টি! এবার সেই ‘লজ্জা’র কালোদিন ঘনিয়ে এলো প্রতিবেশী বাংলাদেশে। সেখানে ফের মৌলবাদীদের রোষের শিকার সংস্কৃতির পীঠস্থান।

মৌলবাদীদের তাণ্ডবে ব্রাহ্মণবেড়িয়ার বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ’র সঙ্গীত ভবন ‘দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতভবন’ পুড়ে গিয়েছে। সেই সঙ্গে একাধিক বাদ্যযন্ত্র, নথিপত্র, স্বরলিপি-সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ নথি, জিনিস সম্পূর্ণ ছায় হয়ে গেছে! তবে ওস্তাদের ব্যবহৃত সরোদটি অক্ষত রয়েছে। গোটা বাড়ির ধ্বংসস্তূপের ধারে তা পড়ে থাকতে দেখা যায়! তবে এ নতুন নয়, এর আগে ২০১৬ সালে এই প্রতিষ্ঠানের বেশ খানিকটা অংশ জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছিল। যদিও এই ঘটনার সঙ্গে তার বিস্তর ফারাক বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞদের একাংশ।

সুরসম্রাটের এই সঙ্গীতের সাধনক্ষেত্রকে এই ভাবে পুড়তে দেখে শোকস্তব্ধ ছাত্রছাত্রী থেকে কর্মী সকলেই! সমস্ত সঙ্গীত প্রেমী মানুষেরা তীব্র নিন্দা করেছেন এই ঘটনার। এক রাতের মধ্যেই এমন একটি সংস্কৃতি পীঠস্থান পুড়ে ছাই হতে পারে তা ভাবনারও বাইরে ছিল অনেকের! ‘দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন’-এর নিরাপত্তা রক্ষী প্রবীন্দ্র দাস জানান যে তিনি প্রতিষ্ঠানের একটি ঘরে থাকেন। ওই ঘর এবং আরও কয়েকটি ঘর ছাড়া আর সবই পুড়ে গিয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। তাঁর অভিযোগ, মৌলবাদীদের ভয়ে এই ধ্বংসলীলা থেকে বাঁচাতে কেউ এগিয়ে আসেননি। প্রতিষ্ঠান সূত্রে খবর, এই অগ্নিকাণ্ডের জেরে দুর্লভ আড়াইশোটি বই, আড়াই হাজার ছবি, দলিলপত্র, আলাউদ্দিন খাঁ’র লেখা সঙ্গীতের স্বরলিপি, সঙ্গীতের যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়েছে। নষ্ট হওয়া বাদ্যযন্ত্রগুলির মধ্যে রয়েছে ১২টি হারমোনিয়াম, সেতার, তবলা, বেহালা ও সরোদ। সবমিলিয়ে অন্তত ৩৫ লক্ষ টাকার যন্ত্রপাতির ক্ষতি হয়েছে বলে খবর।

গত সপ্তাহ থেকে বাংলাদেশে হিংসাত্মক আন্দোলনে নেমেছে মৌলবাদীদের একটা গোষ্ঠী। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে ঘিরে তাঁদের এই বিরোধিতা। তিনি সফর সেরে দেশে ফিরে এলেও এই তাণ্ডব থামেনি। যদিও পুলিশ প্রশাসন কড়া হাতে তা দমন করেছে। তবে তার আগেই বিপদ যা হওয়ার, হয়ে গিয়েছে। ব্রাহ্মণবেড়িয়ায় বিখ্যাত ‘দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন’টিও মৌলবাদীদের তাণ্ডবের শিকার। বিখ্যাত সঙ্গীত প্রতিষ্ঠানটিতে অগ্নিসংযোগ করা হয়, প্রতিটি ঘরে হামলাও চলে বলে অভিযোগ। তিনটি শ্রেণিকক্ষ, প্রশাসনিক কক্ষ, বাদ্যযন্ত্রের মিউজিয়ামটিতে ভাঙচুর চলে। প্রায় গোটা বাড়িটি পুড়ে গিয়েছে। তবে সেই ধ্বংসস্তূপের মধ্যেও অক্ষত রয়েছে ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ’র ব্যবহৃত সরোদটি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More