১২ ফেব্রুয়ারি ভোট চার পুরসভায়, আগেই লিখেছিল দ্য ওয়াল

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভোট পিছিয়ে দেওয়ার ব্যাপারে আদালত তাদের মনোভাব স্পষ্ট করে দিয়েছিল। তবে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ভার দিয়েছিল রাজ্য নির্বাচন কমিশনের কাঁধেই। দ্য ওয়াল-এ শুক্রবারই লেখা হয়েছিল, ২২ জানুয়ারির বদলে ভোট পিছিয়ে ১২ ফেব্রুয়ারি হতে পারে। হলও তাই। কমিশন আদালতে জানাল, কোভিড পরস্থিতির কথা বিবেচনা করে আদালতের পরামর্শ মতো ভোট পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে। পরিবর্তিত দিন ১২ ফেব্রুয়ারি। ওই দিন ভোট হবে বিধাননগর, আসানসোল, শিলিগুড়ি এবং চন্দননগরে।

চার পুরনিগমের ভোট নিয়ে রাজ্যের মতামত জানতে চেয়েছিল কমিশন। শনিবার সকালে কমিশনকে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করে জানায় নবান্ন। এদিন নবান্ন থেকে রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে চিঠি লেখা হয়। সেখানেই জানানো হয়, করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে চার পুরনিগমের ভোট পিছিয়ে দিলে রাজ্যের তাতে কোনও আপত্তি নেই। এরপরই কমিশন ভোট পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্তে সিলমোহর দেয়।

কোভিডের উত্তাল পরিস্থিতিতে পুরভোট পিছিয়ে দেওয়ার মামলায় শুক্রবার নির্দেশ দেয় কলকাতা হাইকোর্ট। আদালত বলে, কমিশন বিবেচনা করে দেখুক, এই পরিস্থিতিতে চার কর্পোরেশনের ভোট চার থেকে ছয় সপ্তাহ পিছিয়ে দেওয়া যায় কি না। এ ব্যাপারে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সিদ্ধান্ত জানানোর জন্য রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশ দেয় আদালত। তারপরই আলোচনা শুরু করে কমিশন।

ইতিমধ্যেই কমিশন আদালতে জানিয়ে রেখেছে, বাকি ১০৮টি পুরসভার ভোট হবে ২৭ ফেব্রুয়ারি। এই চার কর্পোরেশনের ভোট পিছিয়ে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি নিয়ে যাওয়ায় সেই সূচি নিয়ে আবার কৌতূহল তৈরি হয়েছে। যদি ২৭ ফেব্রুয়ারি শ্তাধিক পুরসভার ভোট করতে হয় তাহলে জানুয়ারির শেষে বা ফেব্রুয়ারির গোড়াতেই বিজ্ঞপ্তি জারি করতে হবে। অনেকের মতে, ১০৮টি পুরসভার ভোট পিছিয়ে দেওয়ার অবকাশ হয়তো কমিশনের নেই। কারণ মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার বিষয় রয়েছে। এখন দেখার কমিশন কী সিদ্ধান্ত নেয়।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.