ত্রিপুরার সিপিএম সশস্ত্র হিংসার পথে হাঁটতে চাইছে, অভিযোগ বিজেপির, তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ত্রিপুরার সিপিএম নেতাদের ফেসবুক পোস্ট নিয়ে সরগরম উত্তর-পূর্বের সেই রাজ্যের রাজনীতি। বিজেপির অভিযোগ, জনভিত্তি হারিয়ে, সদ্য সমাপ্ত এডিসি ভোটে একটিও আসন না পেয়ে সিপিএম এখন সশস্ত্র হিংসার পথে হাঁটতে চাইছে। শুধু বিজেপি দল নয়। সরকারের মধ্যেও এ নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে।

ঘটনার সূত্রপাত রবিবার। সিপিএমের অভিযোগ, রাজধানী আগরতলার দক্ষিণ প্রান্তে বাধারঘাট এবং সূর্যমণিনগর এলাকায় বেছে বেছে তাদের শতাধিক নেতা কর্মীদের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে বিজেপির লোকজন। যদিও গেরুয়া শিবির এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

এরপর ত্রিপুরা সিপিএমের শীর্ষ নেতারা ফেসবুকে একের পর এক পোস্ট করতে থাকেন। সবচেয়ে বেশি আলোড়ন পড়ে গিয়েছে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী তথা চার বারের বিধায়ক ভানুলাল সাহার পোস্ট নিয়ে।

ভানুলালবাবু তাঁর পোস্টে লিখেছেন, “ওদের ইট, লাথি, পেট্রল বোমা মোকাবিলায় গণপ্রতিরোধে বাড়ি বাড়ি লাঠি, দাঁ, শাবল, দোয়ার বেন্দা, খুন্তি, লোহার পাইপ প্রস্তুত রাখুন।” এগুলিকে আবার আইনত নিরামিষ অস্ত্র হিসেবে উল্লেখ করেছেন তিনি।

এখানেই থামেননি ভানুলাল। তিনি আরও লেখেন, “আত্মরক্ষায় হাতে প্রতিরক্ষা সামগ্রী নেওয়া কোনও অন্যায় নয়।” দলের যুব ব্রিগেডের উদ্দেশে তিনি বলেছেন, “যৌবন তুমি আগুন হও।”

প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীর এ হেন বক্তব্যকে প্রকাশ্য উস্কানি হিসেবেই দেখছে বিজেপি। সরকারেরও মনোভাব তাই। মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের ওএসডি সঞ্জয় মিশ্র টুইট করে এই ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেছেন।

সঞ্জয় মিশ্র লিখেছেন, “বিজেপি-র কোনও নেতা যদি এই কথাটি বলতেন তাহলে জাতীয় স্তরের সংবাদমাধ্যম তোলপাড় হত। তবে বুদ্ধিজীবী হিসাবে জন্মগ্রহণকারী বাম নেতাদের হিংসায় উস্কানি নিয়ে আলোচনাও হয় না। ভানুলাল সাহা ত্রিপুরার মানিক সরকার আমলের অর্থমন্ত্রী ছিলেন এবং চারবারের বিধায়ক।”

ত্রিপুরা বিজেপির এক মুখপাত্র বলেন, “আসলে সিপিএম এখন দিশাহারা। ত্রিপুরার এডিসি ভোটে শূন্য, বাংলায় শূন্য হয়ে গিয়েছে সিপিএম। ত্রিপুরাতেও তারা তেইশের ভোটে অশনি সঙ্কেত দেখতে পাচ্ছে। তাই বাজার গরম করতে এই ধরনের উস্কানিমূলক কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়াচ্ছেন সিপিএম নেতারা।”

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.