কঙ্গনাকে বাঁচাতে পারবে না মোদীর নিরাপত্তা, হুমকি মহারাষ্ট্রের মন্ত্রীর

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো : মোদী সরকার (Modi Govt) অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতকে ওয়াই প্লাস নিরাপত্তা দিয়েছে বটে, কিন্তু তিনি আইনের হাত থেকে বাঁচতে পারবেন না। বুধবার এই মন্তব্য করলেন মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী তথা এনসিপি-র নেতা নবাব মালিক। অভিযোগ, শিখ সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে ইনস্টাগ্রামে অপমানজনক মন্তব্য করেছেন অভিনেত্রী। তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে। এই প্রেক্ষিতে নবাব মালিক বলেন, “শিখ সম্প্রদায়ের লোকজন কঙ্গনার বিরুদ্ধে এফআইআর করেছেন। তিনি প্রায়ই বড় নেতাদের অপমান করেন। কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়। কেন্দ্রীয় সরকার তাঁকে নিরাপত্তা দিতে পারে, কিন্তু আইনের হার থেকে বাঁচাতে পারবে না।”

গত সপ্তাহে ইনস্টাগ্রামে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর ছবি শেয়ার করেন কঙ্গনা। সেখানে তিনি লেখেন, ইন্দিরা একসময় খলিস্তানিদের ‘মশার মতো’ মেরে শেষ করেছিলেন। পরিণামে তাঁকে জীবন দিতে হয়েছিল। কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীদের খলিস্তানি বলে দাবি করেন কঙ্গনা। মঙ্গলবার দিল্লি গুরুদোয়ারা ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি মনজিন্দর সিং সিরসা, নবি মুম্বই গুরুদোয়ারার সুপ্রিম কাউন্সিলের সভাপতি জসপাল সিং সিধু এবং দাদারের শ্রী গুরু সিং সভা গুরুদোয়ারার অমরজিৎ সিং সান্ধু অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে এফআইআর করেন।

গত শুক্রবার সকালে জাতির উদ্দেশে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেন, তিন কৃষি আইন বাতিল করা হবে। আন্দোলনরত কৃষকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধ, তাঁরা যেন রাস্তা থেকে উঠে এসে মাঠে যান। ফসল ফলান।

প্রধানমন্ত্রীর ওই ঘোষণার পরেই কার্যত ফুঁসে উঠলেন কঙ্গনা। কেন? তাঁর বক্তব্য, এই সিদ্ধান্ত লজ্জাজনক, দুঃখজনক, একেবারে অনুচিত।  তাঁর বক্তব্য, কেউ যদি রাস্তার দখল নিয়ে ভাবে সরকার, সংসদ কোনও কিছুকে মানবে না, তাহলে তো গোটা জাতিকে জিহাদি বলা হবে। একে যাঁরা সমর্থন করেন তাঁদের অভিনন্দন।

এমনিতে কৃষক আন্দোলনের শুরু থেকেই কঙ্গনা ছিলেন এর তীব্র সমালোচক। কখনও বলেছেন এই আন্দোলন হল দেশদ্রোহীদের সঙ্ঘবদ্ধ আগ্রাসন। কখনও বলেছেন, যাঁরা আন্দোলন করছেন তাঁরা কেউ কৃষকই নন। বিদেশের অর্থে দেশকে অশান্ত করতে এসব করছেন। ১৫ অগস্ট কৃষকদের ট্রাক্টর মিছিল লালকেল্লায় ঢুকে পড়াকে মুঘল হানা বলেও উল্লেখ করেছেন কঙ্গনা।

অনেকের মতে, কঙ্গনা হয়তো মনে করছেন আন্দোলনের সামনে সরকারের এই আইন প্রত্যাহার আসলে আত্মসমর্পণ। হেরে যাওয়া। তাই হয়তো তিনি এতটা রেগে গিয়েছেন। নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.