করোনা আতঙ্ক কাটিয়ে পর্যটকদের জন্য দরজা খুলছে আমেরিকা, ব্রিটেন সহ নানা দেশ

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো : করোনা অতিমহামারীর (Pandemic) মধ্যে দু’বছর ধরে বন্ধ ছিল বিশ্বের প্রায় প্রতিটি পর্যটনকেন্দ্র। তার ফলে অর্থনীতির ক্ষতি হয়েছে বিপুল। যাঁরা পর্যটনশিল্পের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, তাঁরা পড়েছেন সমস্যায়। বিশ্ব জুড়ে অতিমহামারীর প্রকোপ কিছুদূর কমতেই পর্যটন কেন্দ্রগুলি খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিভিন্ন দেশ। রাষ্ট্রপুঞ্জের ট্রেড অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট কনফারেন্স অনুযায়ী ২০২০ ও ‘২১ সালে বিশ্ব জুড়ে ব্যবসার ক্ষতি হয়েছে ৪ হাজার কোটি ডলার। এই প্রেক্ষিতে পর্যটন শিল্পকে চাঙ্গা করার জন্য উদ্যোগী হয়েছে বিভিন্ন দেশ। যদিও রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০২৩ সালের আগে পর্যটন শিল্পে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসার সম্ভাবনা কম।

বিশ্ব জুড়ে এখন ভ্যাকসিনেটেড মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। তাঁদের জন্যই আগামী ডিসেম্বর ও জানুয়ারিতে ট্যুরিস্ট সিজনে পর্যটনকেন্দ্রগুলি খুলে দিতে চাইছে আমেরিকা, ব্রিটেন সহ বিভিন্ন দেশ। পর্যটক ও স্থানীয় মানুষের নিরাপত্তার জন্য প্রত্যেক বহিরাগতকে ভ্যাকসিনেশনের প্রমাণপত্র আনতে হবে। দ্বিতীয়ত, বিমান বন্দরেই পর্যটকদের আরটি পিসিআর টেস্ট করা হবে। তৃতীয়ত কোনও কোনও ক্ষেত্রে বহিরাগতদের কোয়ারান্টাইনেও রাখা হতে পারে।

আমেরিকা

মার্কিন প্রশাসন ঘোষণা করেছে, আগামী মাসেই পর্যটনকেন্দ্রগুলি খুলে দেওয়া হবে। ৮ নভেম্বর থেকে পর্যটকরা বিমানে আমেরিকায় আসতে পারবেন। তাঁদের সঙ্গে থাকতে হবে আরটি পিসিআর টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট এবং ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ নেওয়ার প্রমাণ। আগামী দিনে পর্যটকদের জন্য আরও কয়েকটি বিধি ঘোষণা করা হবে।

তাইল্যান্ড

আগামী ১ নভেম্বর থেকে পর্যটকরা তাইল্যান্ডের পর্যটন কেন্দ্রগুলি ঘুরে দেখার সুযোগ পাবেন। মোট ১০ টি ‘লো রিস্ক কান্ট্রি’ অর্থাৎ যেখানে অতিমহামারীর প্রকোপ ইতিমধ্যে কমে এসেছে, সেখানকার পর্যটকরা তাইল্যান্ডে ঢোকার অনুমতি পাবেন। তাঁদের দেশ থেকে নেগেটিভ আরটি পিসিআর রিপোর্ট আনতে হবে। তাইল্যান্ডে এসে আর একবার আরটি পিসিআর টেস্ট করাতে হবে। যে দেশগুলিকে তাইল্যান্ড ‘লো রিস্ক কান্ট্রি’ বলে মনে করছে, তাদের মধ্যে আছে চিন, জার্মানি, সিঙ্গাপুর, ব্রিটেন এবং আমেরিকা। ভারত সেই তালিকায় নেই।

ভারত থেকে কেউ তাইল্যান্ডে গেলে তাঁকে সাতদিন কোয়ারান্টাইনে থাকতে হবে। ওই সময়ের মধ্যে তাঁর দু’বার আরটি পিসিআর টেস্ট করা হবে। তাছাড়া দেশ থেকে তাঁকে নিয়ে আসতে হবে ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ।

ব্রিটেন

ভারতে যাঁরা কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন নিয়েছেন, একসময় তাঁদের কোয়ারান্টাইনে থাকা বাধ্যতামূলক করেছিল ব্রিটেন। তা নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। এখন স্থির হয়েছে, যে ভারতীয়রা ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ নিয়ে আসবেন, তাঁদের কোয়ারান্টাইনে থাকতে হবে না। প্রত্যেক পর্যটককে ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট আনতে হবে। ব্রিটেনে আসার দ্বিতীয় দিনের মাথায় তাঁদের আরটি পিসি আর টেস্ট করানো হবে।

শ্রীলঙ্কা

পর্যটকদের সঙ্গে থাকতে হবে ভ্যাকসিনেশানের সার্টিফিকেট। তাছাড়া বিমানে ওঠার ৭২ ঘণ্টা আগে তাঁদের করাতে হবে আরটি পিসিআর টেস্ট। রিপোর্ট নেগেটিভ হলে তাঁদের কোয়ারান্টাইনে থাকতে হবে না। কিন্তু ভ্যাকসিন না নিয়ে কেউ শ্রীলঙ্কায় এলে তাঁকে ১৪ দিন থাকতে হবে কোয়ারান্টাইনে।

দুবাই

পর্যটকদের দুবাই আসার আগে ৯৬ ঘণ্টার মধ্যে করাতে হবে আরটি পিসি আর টেস্ট।

মালদ্বীপ

ভারত সহ কয়েকটি দেশের পর্যটকদের ওই দেশে আসার ভিসা দেওয়া হবে।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.