মিজোরামে যাবেন না, সীমান্ত সংঘর্ষের পরে অসমীয়াদের বলল রাজ্য প্রশাসন

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গত ২৬ জুলাই অসম-মিজোরাম সীমান্তে সংঘর্ষ হয়। নিহত হন অসম পুলিশের ছয় কর্মী ও এক সাধারণ মানুষ। বৃহস্পতিবার অসম রাজ্য প্রশাসন থেকে রাজ্যবাসীর কাছে অনুরোধ জানানো হল, মিজোরামে যাবেন না। কারণ সেখানে তাঁদের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে। অসম প্রশাসনের পক্ষ থেকে এক অ্যাডভাইসারিতে বলা হয়েছে, সংঘর্ষের পরে মিজো নাগরিক সমাজের কয়েকটি সংগঠন, ছাত্র ও যুব সংগঠন ক্রমাগত উস্কানিমূলক বিবৃতি দিয়ে চলেছে। অসম পুলিশের পাওয়া একটি ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, মিজোরামে অনেক সাধারণ মানুষও অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ঘুরছে। তাদের হাতে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র পর্যন্ত আছে।

একইসঙ্গে অ্যাডভাইসরিতে বলা হয়েছে, যে অসমীয়ারা নানা কারণে বাধ্য হয়ে মিজোরামে আছেন, তাঁরা যেন অত্যন্ত সতর্ক হয়ে চলাফেরা করেন।

মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা দাবি করেছেন, অসম পুলিশই প্রথমে গুলি চালিয়েছিল। সংঘর্ষের পরে জোরামথাঙ্গা টুইটারে হিংসার ছবি দিয়ে লেখেন, অবিলম্বে এসব বন্ধ হওয়া দরকার। তিনি বলেন, কাছাড় হয়ে মিজেরামে ফেরার সময় নিরীহ মানুষের ওপর হামলা করেছে গুন্ডাবাহিনী, দুষ্কৃতীরা। ছিনতাই, লুঠপাট করেছে। অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার উদ্দেশে তাঁর প্রশ্ন, আপনি কী করে এই নৈরাজ্য সমর্থন করছেন?

অসম সরকার থেকে পাল্টা টুইট করে বলা হয়, মাননীয় জোরামথাঙ্গাজি, কোলাশিবের (মিজোরাম) এসপি আমাদের বাহিনীকে  ফাঁড়ি থেকে সরিয়ে নিতে বলছেন। শোনা যাচ্ছে, তারা না সরা পর্যন্ত ওদের লোকজন হিংসা থামাবে না, কোনও আবেদনই শুনবে না। এই পরিস্থিতিতে কীভাবে আমরা সরকার চালাব? আপনি যত দ্রুত সম্ভব হস্তক্ষেপ করবেন, আশা করছি। একইসঙ্গে হিমন্ত ট্যুইট করে জানান, তিনি মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি লেখেন, আমি ফের বলেছি, অসম দুই রাজ্যের সীমান্তে শান্তি, স্থিতাবস্থা বজায় রাখবে। প্রয়োজনে আইজল গিয়ে সমস্যা নিয়ে কথা বলায় আমার আগ্রহের কথাও প্রকাশ করেছি।

আইজল, কোলাশিব ও মামিত-মিজেরামের তিনটি জেলার সঙ্গে অসমের কাছাড়, হাইলাকান্দি ও করিমগঞ্জের ১৬৪.৬ কিমি দীর্ঘ সীমান্ত ঘিরে বিরোধ বহুদিনের। মাঝেমধ্যেই সীমান্তের বিতর্কিত এলাকায় সংঘর্ষ হয় দুই রাজ্যের বাসিন্দাদের। উভয়েই পরস্পরের বিরুদ্ধে অনুপ্রবেশের অভিযোগ তোলে। শেষ গন্ডগোল হয়েছিল জুনে। দুই রাজ্যের নিরাপত্তাবাহিনীই পরস্পরের দিকে জোর করে ঢুকে পড়ার অভিযোগ করেছে। শুধু মিজোরাম নয়, মেঘালয়, অরুণাচল প্রদেশেরও সীমান্ত বিরোধ আছে অসমের।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More