পুরুষদের শরীরেই বেশি কাজ করছে করোনার এই ওষুধ?

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোভিড পজিটিভ (Covid) কোনও মহিলার থেকে করোনা আক্রান্ত পুরুষের শরীরেই নাকি বেশি কার্যকরী হচ্ছে এই ওষুধ। পরীক্ষা করে বিজ্ঞানীরা দেখছেন, মহিলাদের থেকে পুরুষদের ওপর এই ওষুধের এফিকেসি অনেক বেশি।

‘নেচার মেডিসিন’ মেডিক্যাল জার্নালে এই খবর ছাপা হয়েছে। করোনার এই ওষুধের নাম ডেক্সোমিথাসোন। স্টেরয়েড গোত্রের ওষুধ। একটা সময় এই ডেক্সামিথাসোনকে জীবনদায়ী বলেছিলেন বিজ্ঞানীরা। পরে গবেষকরাই সতর্ক করেছিলেন সব ধরনের রোগীর জন্য উপযোগী নয় ডেক্সামিথাসোন। সেক্ষেত্রে ওষুধের প্রয়োগে মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়ে। কোন কোন রোগীর ক্ষেত্রে ডেক্সামিথাসোন বিপদের কারণ হতে পারে তার বিস্তারিত রিপোর্টও সামনে আনে নিউ ইয়র্কের অ্যালবার্ট আইনস্টাইন কলেজ অব মেডিসিন।

গবেষকরা বলছেন, ডেক্সামিথাসোন ওষুধের প্রভাব পুরুষ ও মহিলাদের শরীরে কেমন তার পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। রোগীদের নমুনা সংগ্রহ করে আরএনএ সিকুয়েন্স করে দেখা হয়েছে, ওষুধ কতটা কার্যকরী হচ্ছে। তাতে বিজ্ঞানীরা বুঝেছেন, মহিলাদের শরীরে স্টেরয়েড জাতীয় এই ওষুধের কার্যকারিতা খুব কম। বরং পুরুষদের শরীরে অনেক বেশি।

করোনা ঠেকাতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদনে প্রায় ৭০ রকমের ড্রাগ নিয়ে সলিডারিটি ট্রায়াল করছে বিশ্বের বিভিন্ন সায়েন্স রিসার্চ ইনস্টিটিউট, ফার্মাসিউটিক্যাল ফার্ম এবং বায়োটেকনোলজি কোম্পানি। প্রায় ছ‘হাজার রোগীর উপরে রিকভারি ট্রায়াল করে অক্সফোর্ড জানিয়েছিল ডেক্সামিথাসোন মৃত্যুহার কমাচ্ছে। প্রাথমিক ট্রায়ালে রিপোর্টে দাবি করা হয়েছিল, এই ওষুধের প্রয়োগে মৃত্যুর ঝুঁকি ৪০% থেকে ২৮% এ নেমে এসেছে। অনেকেরই সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটারি সিন্ড্রোম কমেছে। ভেন্টিলেটর সাপোর্ট থেকে বেরিয়ে এসেছেন অনেক রোগীই। ডাক্তারদের হিসেবে, তীব্র শ্বাসকষ্টের কারণে মৃত্যুর ঝুঁকি ২৫ শতাংশ থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ২০ শতাংশে। তবে রক্তে যদি সিআরপি প্রোটিনের মাত্রা ১০-এর কম থাকে, তাহলে ডেক্সামিথাসোনের থেরাপি করলে মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায় অনেকটাই। রোগীকে ভেন্টিলেটরে সাপোর্ট দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা সুখপাঠ

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.