দ্বিতীয় শ্রেণির পড়ুয়াকে মারধর, কাঠগড়ায় সল্টলেকের হরিয়ানা বিদ্যামন্দির

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সল্টলেকের হরিয়ানা বিদ্যামন্দিরের দ্বিতীয় শ্রেণির পড়ুয়াকে মারধরের অভিযোগ উঠল স্কুলেরই এক শিক্ষিকার বিরুদ্ধে। জানা গিয়েছে, ওই পড়ুয়া দমদম নাগেরবাজারের বাসিন্দা। পুলকারেই স্কুলে যাতায়াত করত সে।

অভিযোগ, সোমবার স্কুল ছুটির ঘণ্টা পড়ার আগেই নাকি ওই পড়ুয়া পিঠে ব্যাগ নিয়ে পুলকারের লাইনে দাঁড়াতে যায়। সে যখন ব্যাগ গোছাচ্ছিল সেই সময় তাকে দেখতে পান এক শিক্ষিকা। অভিযোগ, এরপর ওই পড়ুয়াকে বেধড়ক মারধর করেন তিনি। বাড়ি ফেরার পর বাচ্চাটির বাঁ গালে দাগ দেখতে পেয়ে সন্দেহ হয় অভিভাবকের। জিজ্ঞাসা করে গোটা ঘটনা জানতে পারেন তাঁরা। এরপর আরজিকর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় বাচ্চাটিকে। ছাত্রের বাবা জানিয়েছেন, “শারীরিক এবং মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েছে আমার ছেলে। ভীষণ ভয়ে এবং আতঙ্কে রয়েছে।”

এই ঘটনায় বিধাননগর উত্তর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই পড়ুয়ার পরিবার। বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছে পুলিশ। মেল করে গোটা বিষয়টা স্কুল কর্তৃপক্ষকেও জানিয়েছেন আক্রান্ত পড়ুয়ার বাবা। কিন্তু ছাত্রের বাবা অভিযোগ করছেন থানায় অভিযোগ দায়ের করার পর থেকেই তাঁর উপর নানা রকমের চাপ সৃষ্টি করছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

তিনি বলেন, “ক্রমাগত স্কুল থেকের আমায় অভিযোগ তুলে নিতে বলা হচ্ছে। দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন প্রলোভন। ওঁনারা আমার ছেলের চিকিৎসার খরচ দিতে চাইছেন। আমার যা ক্ষমতা আছে তাতে ছেলের চিকিৎসাটুকু আমি করাতে পারবো। আর না থাকলেও স্কুলের টাকা আমি নিতাম না। আমি শুধু আমার ছেলের উপর হওয়া অন্যায়ের শাস্তি চাই। তার জন্য যতদূর যেতে হয় আমি যাবো।”

ওই পড়ুয়ার বাবা এও অভিযোগ করেছেন, স্কুল কর্তৃপক্ষ শুধু প্রলোভন দেখিয়েই থামেনি। বরং হুমকিও দিয়েছে তারা। তিনি বলেন, “কর্তৃপক্ষের তরফে কিছু লোকজন বলছেন আমার ছেলের ভবিষ্যৎ নষ্ট করে দেবেন তাঁরা। এমনকী ও যাতে আর কোনও স্কুলে ভর্তি হতে না পারে সেই ব্যবস্থাও নাকি করবেন। তবে আমি অভিযোগ তুলবো না। এই স্কুলেও আমি আর ছেলেকে পড়াবো না।”

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.